বুধবার | জানুয়ারি ২০, ২০২১ | ৭ মাঘ ১৪২৭

আন্তর্জাতিক ব্যবসা

জি২০ সম্মেলনে ঐক্যবদ্ধভাবে মহামারী মোকাবেলার প্রতিশ্রুতি

বণিক বার্তা ডেস্ক

নভেল করোনাভাইরাস মহামারীর প্রাদুর্ভাব থেকে উদ্ধারের লক্ষ্যে একযোগে চেষ্টা করছে গোটা পৃথিবী। সেই ঐক্যবদ্ধ উদ্যোগের ওপর জোর দিয়েই শনিবার শুরু হয় জি২০ শীর্ষ সম্মেলন। দুই দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত সেই সম্মেলন শেষ হয়েছে রোববার।

সৌদি আরবে দুদিনের এই ভার্চুয়াল সম্মেলনে উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন সৌদি আরবের বাদশা সালমান বিন আবদুল-আজিজ আল সৌদ। তিনি মহামারী মোকাবেলায় জি২০ দেশগুলোর ২১ বিলিয়ন ডলার এবং বৈশ্বিক অর্থনীতিকে চাঙ্গা করার জন্য ১১ ট্রিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের উদ্যোগকে সাধুবাদ জানান।

উদ্বোধনী বক্তৃতায় কিং সালমান বিশ্বনেতাদের আবেদন জানান ভ্যাকসিন এবং চিকিৎসা দেয়ার ক্ষেত্রে সুযোগ-সুবিধাগুলো আরো বিস্তৃত করতে। পাশাপাশি কভিড-১৯-এর প্রভাবে অর্থনৈতিকভাবে ভেঙে পড়া দেশগুলোর দিকেও দৃষ্টি দেয়ার আহ্বান জানান তিনি।

তিনি বলেন, আমাদের দায়িত্ব হচ্ছে এই সম্মেলনের মধ্য দিয়ে একসঙ্গে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করা এবং আমাদের সংকট প্রশমনের নীতি গ্রহণের মাধ্যমে মানুষদের আশা আকাঙ্ক্ষার শক্তিশালী একটা বার্তা দেয়া।

মহামারী সামনে রেখে মূল সম্মেলনের পাশাপাশি বিশ্বনেতারা মহামারীর প্রস্তুতি প্রতিক্রিয়া নামে আলাদা বৈঠকও করেছেন। সে সময় অন্য নেতারাও মহামারীর প্রভাব মোকাবেলায় কিং সালমানের বক্তব্যের পুনরাবৃত্তি করেন।

ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাখোঁ বলেন, মহামারীর একমাত্র কার্যকর প্রতিক্রিয়া হতে পারে সংহতির ভিত্তিতে একটি সমন্বিত বৈশ্বিক উদ্যোগ। জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মেরকেল বলেন, মহামারী হচ্ছে একটি বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ, যা কেবল বৈশ্বিক প্রচেষ্টা দ্বারা জিতে আসা সম্ভব। সম্মেলনে ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধি চার্লস মিকেল বলেন, কভিড-১৯ আমাদের অনেককে বিস্মিত করেছে। কিন্তু এটা বিশ্বের প্রথম বৈশ্বিক মহামারী নয়। দুঃখজনকভাবে, এটি শেষও নয়। সামনের দিকে তাকিয়ে বিশ্বকে আরো ভালোভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে।

নিয়ে চলতি বছর দ্বিতীয়বারের মতো মহামারী নিয়ে আলোচনা করার জন্য জি২০ নেতারা ভার্চুয়ালি মিলিত হলেন। দি অ্যাসোসিয়েটস প্রেসের (এপি) রিপোর্ট অনুসারে, এর আগে মার্চে মহামারীর শুরুতে জরুরি বৈঠকে মিলিত হয়েছিলেন বিশ্বনেতারা।

বর্তমান সময়ে এসে জি২০ নেতারা যখন ফের মিলিত হলেন, তখন গোটা বিশ্বে কভিড-১৯ মহামারীর দ্বিতীয় ঝড় দেখা গেছে। যেখানে প্রতিনিয়ত দেশে দেশে বাড়ছে আক্রান্ত মৃত্যুর সংখ্যা। অনেক দেশ বাধ্য হয়ে ফের লকডাউন কারফিউ ফিরিয়ে এনেছে।

এই সম্মেলনে অংশ নেয়া বিশ্বনেতাদের অন্তত তিনজন এরই মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তারা হলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন, ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বোলসোনারো এবং মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

সম্মেলনের একদিন আগে জাতিসংঘের সেক্রেটারি জেনারেল আন্তোনিও গুতেরেস বলেন, বৈশ্বিকভাবে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন প্রস্তুতকরণ, প্রক্রিয়া বিতরণের জন্য আরো ২৮ বিলিয়ন ডলার প্রয়োজন। সে সময় তিনি জি২০ দেশগুলোকে ভ্যাকসিন বিতরণের আন্তর্জাতিক উদ্যোগে কোভ্যাক্সে অংশ নেয়ার আহ্বান জানান। এর আগে জাতিসংঘের এই উদ্যোগে অংশ নেয়া থেকে বিরত থাকার কথা জানিয়েছিলেন সদ্য নির্বাচনে হেরে যাওয়া মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। নতুন নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন অবশ্য বিষয় নিয়ে এখনো কোনো মন্তব্য করেননি।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন