শনিবার | নভেম্বর ২৮, ২০২০ | ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

পণ্যবাজার

প্রাকৃতিক রাবার

বাড়তি উৎপাদনের পর রফতানিও বাড়িয়েছে মালয়েশিয়া

বণিক বার্তা ডেস্ক

করোনা মহামারীর ধাক্কা সামলে মালয়েশিয়ার প্রাকৃতিক রাবার উৎপাদনে চাঙ্গা ভাব ফিরে এসেছে। চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে দেশটিতে প্রাকৃতিক রাবার উৎপাদনে প্রায় শতাংশ প্রবৃদ্ধির দেখা মিলেছে। একই সময় দেশটি থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে প্রাকৃতিক রাবার রফতানিও বেড়েছে ১৪ শতাংশের বেশি। মালয়েশিয়ান স্ট্যাটিস্টিকস ডিপার্টমেন্টের সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে তথ্য জানানো হয়েছে। খবর সিনহুয়া বিজনেস রেকর্ডার।

প্রাকৃতিক রাবার উৎপাদনকারী দেশগুলোর বৈশ্বিক শীর্ষ তালিকায় মালয়েশিয়ার অবস্থান ষষ্ঠ। তবে উৎপাদিত রাবারের বেশির ভাগ রফতানি করে দেয়ায় পণ্যটির রফতানিকারকদের বৈশ্বিক শীর্ষ তালিকায় মালয়েশিয়া চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে।

দেশটির সরকারি তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে মালয়েশিয়ায় সব মিলিয়ে ৪৬ হাজার ১৮৭ টন প্রাকৃতিক রাবার উৎপাদন হয়েছে। আগের মাসের তুলনায় সময় দেশটিতে প্রাকৃতিক রাবার উৎপাদন বেড়েছে দশমিক শতাংশ।

গত আগস্টে মালয়েশিয়ায় মোট ৪৪ হাজার ৫৪৩ টন প্রাকৃতিক রাবার উৎপাদন হয়েছিল। সে হিসাবে এক মাসের ব্যবধানে দেশটিতে প্রাকৃতিক রাবার উৎপাদন হাজার ৬৪৪ টন বেড়েছে।

তবে আগের মাসের তুলনায় বাড়লেও ২০১৯ সালের একই সময়ের তুলনায় গত সেপ্টেম্বরে মালয়েশিয়ায় প্রাকৃতিক রাবার উৎপাদন এক-চতুর্থাংশ বা ২৫ দশমিক শতাংশ কমে এসেছে।

উৎপাদনের পাশাপাশি গত সেপ্টেম্বরে মালয়েশিয়া থেকে প্রাকৃতিক রাবারের রফতানিও আগের মাসের তুলনায় বাড়তির পথে ছিল। দেশটির পরিসংখ্যান বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে মালয়েশিয়া থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে সব মিলিয়ে ৪৮ হাজার ৭২০ টন প্রাকৃতিক রাবার রফতানি হয়েছে। আগের মাসের তুলনায় সময় দেশটি থেকে পণ্যটির রফতানিতে ১৪ দশমিক শতাংশ প্রবৃদ্ধি বজায় ছিল।

সেপ্টেম্বরে মালয়েশিয়া থেকে চীনের বাজারে সবচেয়ে বেশি প্রাকৃতিক রাবার রফতানি হয়েছে। সময় দেশটি থেকে রফতানি হওয়া ৪৬ শতাংশ প্রাকৃতিক রাবারের গন্তব্য ছিল চীন। করোনা মহামারীর সময় দেশে দেশে রাবারের তৈরি হ্যান্ড গ্লাভসের চাহিদা বাড়তি থাকায় পণ্যটির কাঁচামাল হিসেবে মালয়েশিয়া থেকে প্রাকৃতিক রাবার বাড়িয়েছে চীনসহ বিভিন্ন দেশ।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন