বুধবার | নভেম্বর ২৫, ২০২০ | ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

প্রথম পাতা

পরীক্ষার সঙ্গে কমেছে শনাক্তও, মৃতের সংখ্যা বেড়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক

টানা পাঁচদিন শনাক্তের সংখ্যা দুই হাজারের বেশি থাকার পর গতকাল তা সীমার নিচে নেমে এসেছে। তবে নমুনা পরীক্ষাও সময়ে কমেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় হাজার ৮৪৭ জন কভিড-১৯ পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হওয়ায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে লাখ ৪৫ হাজার ২৮১। সময়ে মৃত্যু হয়েছে ২৮ জন রোগীর, যা আগের দিন ছিল ১৭ জন। দেশে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে গতকাল স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পাঠানো নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গতকাল সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় দেশের ১১৭টি পরীক্ষাগারে ১২ হাজার ৪৫৮টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। আগের কিছু নমুনাসহ সময় ১২ হাজার ৬৪৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পর্যন্ত মোট ২৬ লাখ ৩৫ হাজার ২০২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পর্যন্ত হাজার ৩৫০ জন করোনা রোগী মারা গেছেন। নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা বিবেচনায় গতকাল শনাক্তের হার ছিল ১৪ দশমিক ৬১ শতাংশ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় বাসা হাসপাতালে মোট হাজার ৯২১ জন করোনা রোগী সুস্থ হয়েছে। এতে সুস্থের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে লাখ ৬০ হাজার ৩৫২। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের মধ্যে ১৮ জন পুরুষ ১০ জন নারী। মৃতদের মধ্যে ১৯ জনই ষাটোর্ধ্ব, ছয়জনের বয়স ৫১-৬০ বছরের মধ্যে, একজন করে তিনজনের বয়স ৪১-৫০, ৩১-৪০ ১১-২০ বছর বয়সসীমার মধ্যে। তারা সবাই হাসপাতালে চিকিত্সাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। মৃতদের মধ্যে ১৬ জন ঢাকা, তিনজন করে ছয়জন চট্টগ্রাম রাজশাহী, দুজন করে চারজন খুলনা বরিশাল, একজন করে দুজন সিলেট রংপুর বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন।

দেশে পর্যন্ত মারা যাওয়া হাজার ৩৫০ জনের মধ্যে হাজার ৮৮১ জন পুরুষ হাজার ৪৬৯ জন নারী। তাদের মধ্যে হাজার ৩৫৩ জনের বয়স ছিল ৬০ বছরের বেশি। এছাড়া হাজার ৬৬৩ জনের বয়স ৫১-৬০ বছরের মধ্যে, ৭৭৩ জনের বয়স ৪১-৫০, ৩৩৫ জনের বয়স ৩১-৪০, ১৪৫ জনের বয়স ২১-৩০, ৫১ জনের বয়স ১১-২০ এবং ৩০ জনের বয়স ছিল ১০ বছরের কম।

মৃতদের মধ্যে হাজার ৩৪৯ জন ঢাকা বিভাগের, হাজার ২৩১ জন চট্টগ্রাম, ৩৮৮ জন রাজশাহী, ৪৮৬ জন খুলনা, ২১৪ জন বরিশাল, ২৬২ জন সিলেট, ২৯০ জন রংপুর ১৩০ জন ময়মনসিংহ বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহানে নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রথম শনাক্ত হয়। গত ১১ মার্চ নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণে সৃষ্ট রোগ কভিড-১৯-কে বৈশ্বিক মহামারী ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বিশ্বের ২১৫টি দেশ অঞ্চলে এরই মধ্যে ভাইরাসটির সংক্রমণ ছড়িয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশ সময় গতকাল বিকাল পর্যন্ত সারা বিশ্বে কোটি ৮০ লাখ ২৯ হাজার ২০৭ জন কভিড-১৯- আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১৩ লাখ ৮০ হাজার ৮৮ জনের।

চলতি বছরের মার্চ দেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার ১০ দিন পর কভিড-১৯- আক্রান্ত রোগীর মৃত্যুর খবর জানায় সরকার। জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্যমতে, শনাক্তের সংখ্যায় বিশ্বে বাংলাদেশ তালিকার ২৪তম অবস্থানে মৃত্যুর সংখ্যা বিবেচনায় বাংলাদেশের স্থান ৩৩তম।


এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন