মঙ্গলবার | নভেম্বর ২৪, ২০২০ | ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

শেষ পাতা

ভয়াবহ পর্যায়ে দ্বিতীয় সংক্রমণপ্রবাহ

ফ্রান্স ও জার্মানিতে আবারো লকডাউন ঘোষণা

বণিক বার্তা ডেস্ক

ইউরোপে করোনার সংক্রমণ ভয়াবহ পর্যায়ে পৌঁছেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) তথ্য বলছে, গত কয়েক দিনে মহাদেশটিতে দৈনিক সংক্রমণ সংখ্যা ছিল দুই লাখের কাছাকাছি। বিপর্যয়ের মাত্রা বিবেচনায় বেশ কয়েকটি দেশ আবারো লকডাউন আরোপের পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে। এরই মধ্যে ফ্রান্স জার্মানি চার সপ্তাহের জন্য আংশিক লকডাউন আরোপের ঘোষণা দিয়েছে।

করোনার দ্বিতীয় প্রবাহ মারাত্মক আকার ধারণ করায় এরই মধ্যে ইতালি, বেলজিয়াম, চেক রিপাবলিকসহ ইউরোপ মহাদেশের বেশ কয়েকটি দেশ নানামুখী পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হয়েছে। তবে ইউরোপীয় দেশগুলোর মধ্যে মুহূর্তে ফ্রান্সের অবস্থাই সবচেয়ে বেশি শোচনীয়। গত কয়েক দিনে দেশটিতে প্রতিদিনই সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে ৩০ হাজারেরও বেশি। সোমবার সংখ্যা রেকর্ড ৫২ হাজার অতিক্রম করে যায়। অন্যদিকে জার্মানির পরিস্থিতি ফ্রান্স বা স্পেনের মতো খারাপ না হলেও দেশটিতে বুধবারও সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে প্রায় ১৫ হাজার মানুষের।

অবস্থায় বুধবার ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাখোঁ দেশটিতে চার সপ্তাহের লকডাউন আরোপের ঘোষণা দেন, যা আজ থেকেই কার্যকর হচ্ছে। সে অনুযায়ী অন্তত আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত লকডাউন কার্যকর থাকবে। এর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেলও নিজ দেশে চার সপ্তাহের লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছেন। আগামী সোমবার থেকে ঘোষণা কার্যকর হবে।

ফরাসি টেলিভিশনে দেয়া মাখোঁর লকডাউনের ঘোষণা অনুযায়ী, এখন পর্যন্ত দেশটিতে সংক্রমণ প্রতিরোধে যেসব পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে, তা আর যথেষ্ট নয়। নভেম্বরের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে যদি সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা না যায়, তাহলে দেশটির হাসপাতালগুলোর সব আইসিইউ বেড শুধু কভিড-১৯ আক্রান্ত দিয়ে পূর্ণ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

এদিকে জার্মানিতে লকডাউন ঘোষণা দেয়ার সময়ে দেশটির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল জানান, জাতীয় স্বাস্থ্যগত জরুরি অবস্থা এড়ানোর তাগিদে লকডাউন চলাকালে দেশটির রেস্তোরাঁ, বার ক্লাবগুলো বন্ধ রাখা হবে।

এছাড়া বক্তব্য দেয়ার সময়ে জার্মানিতে বসবাসকারী সবাইকে ঘরে থাকার পাশাপাশি ভ্রমণ এড়ানো এবং সামাজিকভাবে অন্যদের সঙ্গে যোগাযোগ একেবারে সর্বনিম্ন মাত্রায় রাখার পরামর্শ দেন অ্যাঙ্গেলা মেরকেল। লকডাউনের মধ্যে দেশটির স্কুল কিন্ডারগার্টেনগুলো খোলা রাখা হলেও এসব প্রতিষ্ঠানে সর্বোচ্চ মাত্রায় স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণের নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন