বৃহস্পতিবার | নভেম্বর ২৬, ২০২০ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

খবর

হাজী সেলিমের পক্ষে একদল ব্যবসায়ীর সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক

সংসদ সদস্য হাজী মোহাম্মদ সেলিম এবং তার ছেলে ইরফান সেলিমের বিরুদ্ধে ওঠা সব অভিযোগকে ‘অপবাদ’ আখ্যা দিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন পুরনো ঢাকার একদল ব্যবসায়ী। ইরফান সেলিম গ্রেফতার হওয়ার পর পুরনো ঢাকার ব্যবসা-বাণিজ্য ‘ব্যাহত হচ্ছে’ বলেও দাবি করেছেন তারা।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে মৌলভীবাজার ব্যবসায়ী সমিতির কার্যালয়ে ‘পুরান ঢাকার ব্যবসায়ী ঐক্য ফোরাম’-এর ব্যানারে এই সংবাদ সম্মেলন করা হয়। সেখানে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আবু মোতালেব।

তিনি বলেন, পুরাতন ঢাকার একটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় সংসদ সদস্য হাজী মোহাম্মদ সেলিম, যিনি সুখে-দুঃখে সর্বাবস্থায় পৃষ্ঠপোষকতা করে আসছেন, বর্তমানে তাকে জড়িয়ে বিভিন্ন অপপ্রচার, যেমন চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে পত্র-পত্রিকা ও মিডিয়াতে সম্প্রচার করা হচ্ছে; যাতে পুরাতন ঢাকার ব্যবসায়ীদের চলমান ব্যবসা দারুণভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

‘এ সাংসদের বিরুদ্ধে যে সকল অপবাদ হচ্ছে, আজকের এই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আমরা ব্যবসায়ীবৃন্দ হলফ করে ঘোষণা করছি যে, তিনি তিন তিনবার সংসদ সদস্য থাকাকালীন আমাদের কোনো ব্যবসায়িক সমিতি বা সংগঠনে অদ্যাবধি তার এবং তার পরিবারের বিরুদ্ধে উল্লিখিত বিষয়ে কোনো অভিযোগ আজও আমরা পাইনি।’

সংবাদ সম্মেলনে পুরনো ঢাকার ব্যবসায়িক পরিস্থিতি জানাতে এবং যানজট নিরসনের জন্য  যে ছয়টি পয়েন্ট তুলে ধরা তার পঞ্চম পয়েন্টে এসব কথা বলেন মোতালেব।

প্রথম তিনটি পয়েন্টে তিনি যানজট নিরসন, ট্রেড লাইসেন্সে উৎসে কর না কাটা, প্যাকেজ ভ্যাটের হার কমানোর দাবি জানান। আরেকটি পয়েন্টে ময়লা পরিষ্কারের ফি কমানোয় সন্তোষ প্রকাশ করা হয়।   

গত রোববার রাতে ধানমণ্ডিতে হাজী সেলিমের গাড়ি থেকে নেমে এসে নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তাকে মারধরের ঘটনার পর সোমবার থানায় মামলা হয়। সেদিনই সোয়ারিঘাটের দেবী দাস লেনের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ইরফান সেলিমকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। 

ইরফান ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর। 

র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতের সাজায় বর্তমানে কারাগারে রয়েছেন ইরফান। এরই মধ্যে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে স্থানীয় সরকার বিভাগ। মারধরের মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালত তাকে তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে। 

ইরফান গ্রেফতারের পর থেকেই হাজী সেলিমের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগের খবর গণমাধ্যমে আসতে শুরু করেছে। এ পরিস্থিতিতে ‘পুরান ঢাকার ব্যবসায়ী ঐক্য ফোরাম’ বলছে, এমপির মদিনা গ্রুপ ও বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নিয়ে সংবাদমাধ্যমে ‘যেভাবে প্রচার’ চালানো হচ্ছে, তাতে সেসব প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ‘গভীর আতঙ্কে’ রয়েছেন। বিষয়টি তদন্ত না হওয়া পর্যন্ত এমপির পরিবার ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে সংবাদ প্রচার থেকে বিরত থাকারও অনুরোধ জানান আবু মোতালেব।

সংবাদ সম্মেলনে মৌলভীবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি হাজী মো. এনায়েত উল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক মো. গোলাম মাওলা উপস্থিত ছিলেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন