বৃহস্পতিবার | নভেম্বর ২৬, ২০২০ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

পণ্যবাজার

চাঙ্গা হয়ে উঠছে নিকেলের বাজার

বণিক বার্তা ডেস্ক

স্টেইনলেস স্ট্রিল তৈরিতে নিকেলের চাহিদা বাড়ছে এবং আগামীতে আরো বাড়বে। আর চাহিদা বৃদ্ধির এমন প্রাক্কলনের মধ্যে ব্যবহারিক ধাতুটির বাজার চাঙ্গা হয়ে উঠতে শুরু করেছে। সর্বশেষ গত সোমবার ধাতুটির দাম ১১ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চে পৌঁছে। মূলত ডলারের মূল্য কমে যাওযায় শিল্প ধাতুর বাজারে তার প্রভাব পড়েছে। পাশাপাশি নিকেলের শীর্ষ ব্যবহারকারী দেশ চীনে ধাতুটির ব্যবহার বৃদ্ধির ফলে বাজার চাঙ্গা হতে শুরু করেছে বলে মনে করছেন খাতসংশ্লিষ্টরা। খবর রয়টার্স।

গত সোমবার নিকেলের বেঞ্চমার্ক লন্ডন মেটাল এক্সচেঞ্জে ধাতুটির দাম দশমিক শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ প্রতি টন ১৫ হাজার ৬৮৫ ডলারে বিক্রি হয়। এমনকি দিনের শুরুতে এদিন দাম টনপ্রতি ১৫ হাজার ৮১৫ ডলার পর্যন্তও পৌঁছে, যা গত বছরের নভেম্বরের পর সর্বোচ্চ।

বাজারবিষয়ক বিশ্লেষক জিম লেনোন বলেন, চীনে নিকেলের ব্যবহার উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বাড়ছে। অন্যদিকে ইন্দোনেশিয়ায়ও স্টেইনলেস স্ট্রিলের উৎপাদন বাড়ছে। বিশেষ করে উচ্চমানসম্পন্ন ৩০০ সিরিজের নিকেল ব্যবহারের মাধ্যমে স্টেইনলেস স্টিল উৎপাদন বাড়াচ্ছে ইন্দোনেশিয়া, যা নিকেলের বাজারকে চাঙ্গা করার অন্যতম কারণ।

আর স্টেইনলেস স্টিলের উৎপাদনের ওপর নির্ভর করে চলতি বছরের নিকেলের চাহিদা বাজার বিষয়েও একটা ভালো ধারণা পাওয়া যাচ্ছে বলে মনে করেন বিশ্লেষক। তিনি বলেন, অক্টোবরে প্রাথমিকভাবে স্টেইনলেস স্টিল উৎপাদনে যে গতি রয়েছে, তা চলতি বছর রেকর্ড পরিমাণে পৌঁছতে পারে। একইভাবে ইন্দোনেশিয়াও রেকর্ড পরিমাণ উৎপাদন অব্যাহত রাখতে পারে।

এদিকে নিকেলের চাহিদা চলতি বছরের তুলনায় আগামী বছর যে আরো বাড়বে, সেটিও উঠে এসেছে খাতসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের তথ্যে। ইন্টারন্যাশনাল নিকেল স্টাডি গ্রুপের (আইএনএসজি) তথ্য বলছে, চলতি বছর সব মিলিয়ে বৈশ্বিক বাজারে নিকেলের চাহিদা থাকবে ২৩ লাখ ২০ হাজার টন। আর আগামী বছর চাহিদা বেড়ে ২৫ লাখ ২০ হাজার টনে পৌঁছতে পারে। তবে চলতি বছর ধাতুটির উদ্বৃৃত্ত থাকতে পারে লাখ ১৭ হাজার টন, আগামী বছর যার পরিমাণ দাঁড়াতে পারে ৬৮ হাজার টনে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন