বুধবার | অক্টোবর ২১, ২০২০ | ৫ কার্তিক ১৪২৭

শিল্প বাণিজ্য

ডিজিটাল ট্রেড উইকে আলোচকরা

ব্যবসা প্রসারে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হতে যাচ্ছে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক

পরবর্তী দশকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ব্যবসা প্রসারের ক্ষেত্রে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হতে চলেছে বলে মনে করছেন খাতসংশ্লিষ্টরা। গতকাল ডিজিটাল ট্রেড উইকের তৃতীয় দিনে মার্চেন্ট বের সহযোগিতায় জেসিআই বাংলাদেশের আয়োজনে লিডারশিপ কনক্লেভ সেশনে অংশগ্রহণকারী আলোচকরা এমন অভিমত ব্যক্ত করেন।

সেশনে উপস্থিত ছিলেন টেক ইন এশিয়ার এমডি আন্ডরু বেইসলি, ডেল ইএমসির (এশিয়া এমার্জিং মার্কেট) ভাইস প্রেসিডেন্ট অনোথাই অয়েট্টায়াকর্ণ, সেবা প্লাটফর্ম লিমিটেডের সিইও আদনান ইমতিয়াজ হালিম এবং সহজের প্রতিষ্ঠাতা এমডি মালিহা এম কাদির। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন এড সার্চের সিইও এবং জেসিআই সেন্ট্রাল পার্ক হেলনিস্কির প্রেসিডেন্ট হেলেনা রেবেন। এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন মার্চেন্ট বের এমডি আবরার হোসনে সায়েম।

সেশনে টেক ইন এশিয়ার এমডি বলেন, ইন্দোনেশিয়ার তুলনায় বাংলাদেশের জনসংখ্যা দুই-তৃতীয়াংশ। আর গড় বয়স ২৮ বছর। অন্যদিকে চায়না ইউএসএর জনসংখ্যার গড় বয়স ৩৮ বছর। এর মানে হলো, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিপুল পরিমাণ জনগোষ্ঠী অর্থনীতিতে অবদান রাখতে পারবে এবং ব্যবসার প্রসার উন্নতির ক্ষেত্রে প্রযুক্তি নতুন ধরনের উদ্ভাবনও বড় ভূমিকা রাখবে।

উদ্ভাবন স্টার্টআপের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অবস্থান বেশ ভালো উল্লেখ তিনি আরো বলেন, জিডিপির ক্ষেত্রে বাংলাদেশের বার্ষিক জিডিপির প্রবৃদ্ধি খুবই সন্তোষজনক। এমন প্রবৃদ্ধি থাকলে সেখানে ব্যবসার অগ্রগতি অনুমিত।

ডেল ইএমসির ভাইস প্রেসিডেন্ট বলেন, বর্তমান করোনা পরিস্থিতে ব্যবসাকে টিকিয়ে রাখতে দুটি জিনিস জরুরি। একটি হলো ব্যবসাকে নতুন উদ্ভাবন প্রযুক্তির মাধ্যমে পরিচালিত করা এবং অন্যটি হলো ডিজিটাল প্লাটফর্মগুলো ব্যবহারের মাধ্যমে কীভাবে টার্গেট মার্কেটের কাছে পৌঁছানো যায় তা নিয়ে কাজ করা এবং সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া।

সেবার সিইও বলেন, বাংলাদেশে লাখ লাখ সিএমএসএমই ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আছে। এর মধ্যে কেবল দশমিক শতাংশ ডিজিটাল। বাকি ৯৯ দশমিক শতাংশ সনাতন পদ্ধতিতে ব্যবসা পরিচালনা করছেন। সুতরাং এটি একটি বড় সুযোগ। করোনাকালের মধ্যে আমরা প্রচলিত ব্যবসাগুলোয় সংকোচন লক্ষ করেছি। তবে এমএসএমই খাতে উদ্ভাবন প্রসার লাভ করেছে। বর্তমানে সবাই নতুন প্রযুক্তিকে গ্রহণ করছে এবং ডিজিটাল মাধ্যমকে আপন করে নিচ্ছে। কারণ সবাই এখন বিশ্বাস করছে, প্রচলিতভাবে ব্যবসা করে সামনে টিকে থাকা খুব কঠিন হয়ে যাবে।

মালিহা এম কাদির বলেন, ডিজিটাল মার্কেটে একটি পণ্য বা সেবা তৈরি করার সময় বেশকিছু বিষয় মাথায় রাখা জরুরি। এগুলোর মধ্যে রয়েছে সামগ্রিক ব্যবসার পরিধি সম্পর্কে জানা, ক্রেতারদের সামগ্রিক মনোভাব চাহিদার কথা জানা, নিজে যদি ক্রেতা হই তবে কী কী বিষয় আমি চাইব সেগুলোকে বের করা।

ডিজিটাল ট্রেডকে প্রমোট করতে এবং তৈরি পোশাক খাতে ট্রেডের ডিজিটাইজেশনের সূচনা করতে এমন আয়োজন বাংলাদেশে এই প্রথম অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বাংলাদেশের রফতানি খাতকে প্রসারিত করতে এমন আয়োজন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশা করছে আয়োজক প্রতিষ্ঠান মার্চেন্ট বে। আয়োজনটি চলবে ২১ অক্টোবর পর্যন্ত।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন