বৃহস্পতিবার | অক্টোবর ২৯, ২০২০ | ১৪ কার্তিক ১৪২৭

প্রথম পাতা

এইচএসসি পরীক্ষার সূচি আগামী সপ্তাহে

নিজস্ব প্রতিবেদক

আগামী সোম বা মঙ্গলবারের মধ্যে এইচএসসি সমমানের পরীক্ষার পরিপূর্ণ পরিকল্পনাসহ তারিখ ঘোষণা করতে পারবেন বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেন, আমরা চার সপ্তাহের সময় দিয়ে এইচএসসি পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করব। কোন পদ্ধতিতে পরীক্ষা নেব, কতটুকু পরীক্ষা নেব তা আগামী সোম-মঙ্গলবারের মধ্যে জানিয়ে দেয়া হবে।

গতকাল শিক্ষাবিষয়ক সাংবাদিকদের সঙ্গে এক ভার্চুয়াল মতবিনিময় সভায় শিক্ষামন্ত্রী এসব কথা বলেন। সময় উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, মাধ্যমিক উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন, কারিগরি মাদরাসা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান, মাধ্যমিক উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ গোলাম ফারুক প্রমুখ।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ছয় মাস ধরে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিয়ে ধরে রাখা যায় না। তাই দ্রুততম সময়ের মধ্যে কতগুলো বিষয়ে এইচএসসি পরীক্ষা নেয়া যায় সেটা আমরা চিন্তাভাবনা করছি। যখন আমরা পরীক্ষা নেব তখন কেউ যদি করোনা আক্রান্ত হয়, তাদের কীভাবে মূল্যায়ন করা যায় সেই বিবেচনাও আমাদের থাকবে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ানোর ব্যাপারে মন্ত্রী বলেন, বর্তমানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। তাই অক্টোবরের পরও ছুটি বাড়ছে। কতদিন ছুটি বাড়ছে, সেটা আমরা জানিয়ে দেব। তবে ধাপে ধাপে ছুটি বাড়ানো ছাড়া অন্য কোনো যৌক্তিক পদ্ধতি আমাদের কাছে নেই।

কবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে পারে সে ব্যাপারে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় আগে খোলার বিষয়টি বিবেচনায় রেখে আমরা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করব। আমরা শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধির ব্যাপারটি বিবেচনা করব। আবার শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবনের কথাও বিবেচনা করব। তবে কোনো অবস্থাতেই আমরা শিক্ষার্থীদের ঝুঁকির মধ্যে ফেলতে পারি না।

টিউশন ফির ব্যাপারে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জোর-জবরদস্তি করে কিছু চাপিয়ে দেয়া ঠিক হবে না। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রতিদিনের কিছু খরচ বাদে সব খরচই রয়ে গেছে। যারা সরকারি চাকরি করেন, তাদের আয় আগের মতোই আছে। তাদের জন্য কোনো ছাড়ের প্রয়োজন নেই। তবে যারা প্রকৃতপক্ষে ক্ষতিগ্রস্ত, তাদের ব্যাপারটি বিবেচনায় নিয়ে উভয় পক্ষকে ছাড় দিতে হবে।

সময় শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল বলেন, অনির্দিষ্টকালের জন্য হয়তো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা যাবে না। এজন্য আগামীতে সাধারণ মানুষ অভিভাবকদের মধ্যে আস্থা সচেতনতা তৈরি করতে গণমাধ্যমকে ভূমিকা পালনের আহ্বান জানান তিনি।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন