শনিবার | সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০ | ১১ আশ্বিন ১৪২৭

প্রথম পাতা

মজুদ, সরবরাহ ও মূল্য স্বাভাবিক রাখতে আট উদ্যোগ

অনলাইনে পেঁয়াজ বিক্রি করবে টিসিবি

নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশে বর্তমানে প্রায় ছয় লাখ টন পেঁয়াজ মজুদ রয়েছে। বিপুল পরিমাণ পেঁয়াজ আমদানি করছে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) সংস্থাটি -কমার্সের মাধ্যমে পেঁয়াজ বিক্রির উদ্যোগ নিয়েছে। এছাড়া চাহিদা অনুযায়ী বাজারে পেঁয়াজের মজুদ, সরবরাহ মূল্য স্বাভাবিক রাখতে আট পদক্ষেপ নিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। গতকাল পেঁয়াজের মজুদ, সরবরাহ মূল্য পরিস্থিতি নিয়ে এক ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনিশ। এদিকে পেঁয়াজ রফতানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের অনুরোধ জানিয়ে ভারতীয় হাইকমিশনকে চিঠি দিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

ব্রিফিংয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, পেঁয়াজ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হোন, প্রয়োজনের অতিরিক্ত পেঁয়াজ কিনবেন না। তুরস্ক মিসর থেকে টিসিবির মাধ্যমে পেঁয়াজ আমদানি করা হচ্ছে, অল্পদিনের মধ্যে এগুলো দেশে পৌঁছবে। ভারত পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের আগেই আন্তর্জাতিক টেন্ডারের মাধ্যমে এগুলো কেনা হয়েছিল। এক মাসের মধ্যে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসবে। ভোক্তারা পেঁয়াজ ব্যবহারে একটু সাশ্রয়ী হলে কোনো সমস্যা হবে না।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, গত বছরের তুলনায় দেশে এবার প্রায় এক লাখ টন পেঁয়াজ বেশি উৎপাদন হয়েছে। জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের পাশাপাশি জেলা প্রশাসন বাজার মনিটরিং জোরদার করেছে। পেঁয়াজ রফতানির ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের বিষয়ে ভারত সরকারের সঙ্গে কূটনৈতিক মাধ্যমে জরুরি ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। মেঘনা, সিটি এস আলম গ্রুপ গত বছর পেঁয়াজের বিষয়ে সহযোগিতা করেছিল, তাদের সঙ্গেও কথা হয়েছে। গতবারের মতো এবারো তারা সহযোগিতা করার আশ্বাস দিয়েছে। পেঁয়াজ সরবরাহে কোনো ঘাটতি হবে না। পেঁয়াজ নিয়ে অস্থির হওয়ার কোনো কারণ নেই। অসাধু ব্যবসায়ীদের জন্য জেল-জরিমানা বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। মিয়ানমার থেকে ১২-১৩শ টন পেঁয়াজ লোড হয়েছে, যা কিছুদিনের মধ্যে আসবে। এক মাস আমাদের সাশ্রয়ী হতে হবে। এক মাসের মধ্যে সাপ্লাই চেইন ফুল করে দেব।  পেঁয়াজের বিষয়ে দ্রুত সংগনিরোধ সনদ ইস্যু করার জন্য কৃষি মন্ত্রণালয়ে পত্র পাঠানো হয়েছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর সার্বিক পরিস্থিতি মনিটরিং জোরদার করেছে।

জানা গেছে, হিলি, ভোমরা বেনাপোল স্থলবন্দরে ভারতীয় অংশে ৮৫০টি পেঁয়াজ বোঝাই ট্রাক আটকে গেছে। ভারত থেকে এলসির মাধ্যমে কেনা পেঁয়াজ সীমান্ত পার হওয়ার অপেক্ষায় আছে। দু-একদিনের মধ্যে বাংলাদেশে প্রবেশ করবে বলে জানান বাণিজ্যমন্ত্রী। আগামী বছরের মার্চ পর্যন্ত পেঁয়াজের ওপর শতাংশ আমদানি শুল্ক আপাতত প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়ে এনবিআর চেয়ারম্যানকে পুনরায় পত্র পাঠানো হয়েছে বলে জানান বাণিজ্যমন্ত্রী।

এদিকে গতকাল ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক শেষে ভার্চুয়াল ব্রিফিংয়ে এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী মুস্তফা কামাল জানান, পেঁয়াজ আমদানিতে শতাংশ আমদানি শুল্ক কমানোর বিষয়টি বিবেচনা করা হবে। যদি রাজস্ব খাতে কোনো কিছু করার থাকে অবশ্যই ছাড় দেয়া হবে। অতীতেও বিবেচনা করা হয়েছে, এখনো করা হবে। জনগণের দুর্দশা বাড়ুক এটা আমরা চাই না। আমাদের হাতে যেটা আছে, যদি রাজস্ব খাতে কোনো কিছু করার থাকে অবশ্যই ছাড় দেয়া হবে। অসাধু ব্যবসায়ীদের জন্য কী ব্যবস্থা নেবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে আমার কিছু বলা লাগবে না। এখন যে আলোচনা হয়েছে সেটাই পরিষ্কার মেসেজ।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন