রবিবার | অক্টোবর ২৫, ২০২০ | ১০ কার্তিক ১৪২৭

টেলিকম ও প্রযুক্তি

অনলাইনে ‘জাতীয় শোক দিবস’ পালন করল আইডিইএ প্রকল্প

বণিক বার্তা অনলাইন

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের আওতায় বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল এর অধীনে ‘উদ্ভাবন ও উদ্যোক্তা উন্নয়ন একাডেমী প্রতিষ্ঠাকরণ প্রকল্প (আইডিইএ)’ একটি বিশেষ আলোচনা সভা আয়োজন করে।

অদ্য শনিবার (১৫ আগস্ট) ২০২০ অনলাইন পদ্ধতিতে এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) এর নির্বাহী পরিচালক পার্থপ্রতিম দেব এবং অনলাইন এই অনুষ্ঠানটি সভাপতিত্ব করেন আইডিইএ প্রকল্পের পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) সৈয়দ মজিবুল হক।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনের উল্লেখযোগ্য বিষয়গুলো তুলে ধরেন আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম। তিনি বলেন, আমাদের জাতির পিতা স্বপ্ন দেখেছেন একটি শোষণহীন, বঞ্চনাহীন, বেকারত্বমুক্ত, সুখী-সমৃদ্ধশালী সোনার বাংলা। এই সোনার বাংলা গড়তে হলে আমি মনে করি আমাদের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি হল একটি অন্যতম হাতিয়ার বা উপাদান। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা যে, তিনি এই হাতিয়ারটিকে সঙ্গে নিয়েছেন এবং এই হাতিয়ারের মাধ্যমে বাংলাদেশ ডিজিটাইজড হচ্ছে। বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্ম ইতোমধ্যে আইসিটি খাতে দক্ষতা, মেধা এবং সম্মান অর্জন করেছে। আগামীতে আমরা যে উন্নত বিশ্বের কথা বলি এই তরুণ প্রজন্মকে নিয়েই তথ্য প্রযুক্তির হাত ধরে আমরা আমাদের লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবো।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) এর নির্বাহী পরিচালক পার্থপ্রতিম দেব বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু যদি বেঁচে থাকতেন তবে দেশ আরো অনেক দূর এগিয়ে যেত। তিনি বঙ্গবন্ধুর কর্মজীবনের অনেক বিষয় তুলে ধরেন। বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজগুলো আমাদের তরুণরা সফলতার সাথে সম্পন্ন করবে এবং সুন্দর বাংলাদেশ গড়ে তুলবে এমনটাই আশা ব্যাক্ত করেন বিসিসি এর নির্বাহী পরিচালক জনাব পার্থপ্রতিম দেব।

আইডিইএ প্রকল্পের পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) সৈয়দ মজিবুল হক অনুষ্ঠানে সভাপতি হিসেবে বলেন যে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন অত্যন্ত সাহসী। বিভিন্ন উদাহরণের মাধ্যমে তিনি বঙ্গবন্ধুর গৃহিত বিভিন্ন কার্যক্রমের কথা শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন। সবশেষে, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের শহীদ সদস্যদের আত্নার মাগফেরাত কামনা করে তিনি বক্তব্য শেষ করেন।

বঙ্গবন্ধু স্বপরিবারে ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট কালো রাতে হত্যার শিকার হন। জাতি-ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে বাঙালি জাতি গভীর শ্রদ্ধার সাথে আজকের এই দিনটি পালন করে। তবে করোনাভাইরাসের কারণে অনলাইনের মাধ্যমে জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচি পালন করার সিদ্ধান্ত নেয় আইডিইএ প্রকল্প। ৪৫তম শাহাদাৎবার্ষিকীর শোকাবহ এই দিনে বঙ্গবন্ধু সহ সকল শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে অনলাইনে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে বিশেষ মোনাজাত শেষে আলোচনা সভার সমাপ্ত হয়।

প্রকল্পের আওতাধীন প্রায় ৫০টিরও বেশি স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠান এই আয়োজনে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে অংশ নেয়। স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠানের মধ্য থেকে বক্তব্য রাখেন ‘মনের বন্ধু’ প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও তৌহিদা শিরোপা এবং ‘আই পেজ বাংলাদেশ’ এর সিইও মাশরুর সুরিদ। এছাড়া অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আইডিইএ প্রকল্পের উপ-পরিচালক কাজী হোসনে আরা, প্রকল্পের পরামর্শকগণসহ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ ও বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের কর্মকর্তাগণ।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন