বৃহস্পতিবার | অক্টোবর ০১, ২০২০ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৭

দেশের খবর

মঠবাড়িয়ার বাবা-মাসহ শিশু হত্যার রহস্য উদঘাটন, গ্রেফতার ২

বণিক বার্তা প্রতিনিধি, পিরোজপুর

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় অটোচালক আয়নাল হক ও তার স্ত্রী খুকু মনি, কন্যা আশফিয়সহ হত্যা রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। মঠবাড়িয়া থানা পুলিশ ও পিরোজপুর ডিবি পুলিশ যৌথ অভিযান চালিয়ে এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় অলি বিশ্বাস (৩৮) ও রাকিব বেপারী (২০) নামে দুই আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতার হওয়া অলি বিশ্বাস উপজেলার ধানীসাফা গ্রামের মৃত. তোজাম্বর আলী বিশ্বাসের ছেলে, রাকিব একই এলাকার কাওছার বেপারীর ছেলে। তারাও পেশায় অটোচালক।

পিরোজপুর জেলা পুলিশ সুপার হায়াতুল ইসলাম শনিবার (৮ আগষ্ট) রাতে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। পুলিশ সুপার জানান, গতকাল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অলি বিশ্বাসকে গ্রেফতার করা হয়। তাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে চারজন মিলে এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে স্বীকার করে।

পুলিশ সুপার হায়াতুল ইসলাম আরও জানান, অটোচালক আয়নাল হকের ঘরে অনেক টাকা ও স্বর্ণালংকার আছে এমন সন্দেহে অলি বিশ্বাস, রাকিব বেপারী ও বাকি দুইজন সিঁদ কেটে ঘরে প্রবেশ করে। এসময় আয়নাল হক তাদের চিনে ফেলে ও বাঁচার আকুতি জানায়। চিনে ফেলার কারণে আয়নাল হক ও তার স্ত্রী খুকু মনিকে প্রথমে হত্যা করে। পরে বৈঠক করে তিন বছরের শিশু কন্যা আশফিয়াকে হত্যা করে। মামলা তদন্তের স্বার্থে বাকি দুই আসামির নাম প্রকাশ করেননি পুলিশ সুপার।

হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত দেশীয় অস্ত্র ও বিভিন্ন মালামাল উদ্ধার করেছে পুলিশ। হায়াতুল ইসলাম জানান, পলাতক দুই আসামিকে অচিরেই গ্রেফতার করা হবে। হত্যাকান্ডের পর থেকেই মঠবাড়িয়া সার্কেলের অ্যাডিশনাল এসপি হাসান মোস্তফা স্বপনের নেতৃত্বে র‌্যাব, সিআইডি, পিবিআই, ডিবিসহ থানা পুলিশের ৫টি টিম মাঠে সার্বক্ষণিক কাজ করেছে বলে জানান তিনি।

উলেখ্য, গত শুক্রবার ৩১ জুলাই সকালে মঠবাড়িয়া উপজেলার ধানীসাফা গ্রামের একটি বাড়ী থেকে হাত বাঁধা অবস্থায় ঝুলন্ত অটো চালক আয়নাল (৩৫) তার স্ত্রী খুকু মনি (২৫) ও তাদের একমাত্র ৩ বছরের কন্যা শিশু আশফিয়ার মরদেহ উদ্ধার করে থানা পুলিশ।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন