বুধবার | সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২০ | ৮ আশ্বিন ১৪২৭

দেশের খবর

ময়মনসিংহে বাসের ধাক্কায় সিএনজি অটোরিকশার ৭ আরোহী নিহত

বণিক বার্তা প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলায় যাত্রীবাহী বাস একটি সিএনজি চালিত অটোরিকশাকে চাপা দিলে কমপক্ষে সাতজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো তিনজন।

আজ শনিবার (০৮ আগস্ট) বেলা ৩টা ৫০ মিনেটে ময়মনসিংহ-জামালপুর মহাসড়কের মুক্তাগাছা উপজেলার ভাবকীর মোড় এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। 

নিহতরা হলেন টাঙ্গাইল জেলার মধুপুর উপজেলার শোলাকুড়ি ইউনিয়নের নয়াপাড়া গ্রামের স্বামী নূরুল ইসলাম (৩০), স্ত্রী তাসলিমা (২৬) ও তাদের কন্যা লিজা আক্তার (১৩), রুকন মিয়া (৩৮),  নজরুল ইসলাম (৩৫), অটোরিকশা চালক আসাদুল হক (৪৫) ও অজ্ঞাত(৩০)। এদের বাড়ী মুক্তাগাছা উপজেলায়। 

নিহতরা সবাই শ্রমিক শ্রেণির লোক। ঈদ শেষে কর্মস্থলে ঢাকা যাওয়ার উদ্দেশ্যে মুক্তাগাছা আসছিলেন। 

মুক্তাগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিপ্লব কুমার বিশ্বাস বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, নিহতরা সবাই সিএনজি অটোরিকশার আরোহী। হতাহতদের উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, জামালপুরগামী রাজীব পরিবহনের বেপরোয়া বাসটির ধাক্কায় দুমড়ে-মুচড়ে যায় অটোরিকশাটি। এতে ঘটনাস্থলে মারা যান চারজন। বাকি তিনজন হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান। অটোরিকশাটিতে চালকসহ সাতজন আরোহী ছিলেন। 

ময়মনসিংহ সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল আমিন জানান, নিহতদের মধ্যে একই পরিবারের তিনজন রয়েছেন। তাদের বাড়ি টাঙ্গাইলের মধুপুরে। আর বাকি চারজনের বাড়ি মুক্তাগাছায়। 

তিনি আরো জানান, ঘটনাস্থলে নিহত চারজনের মরদেহ মুক্তাগাছা থানায় রয়েছে। আর হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যাওয়া তিনজনের মরদেহ রয়েছে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। বাসচালককে ঘটনাস্থল থেকে আটক করা হয়েছে। 

এ ঘটনার পর বিক্ষুব্ধ জনতা জামালপুর-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে। পরে ঘন্টাখানেক পর পুলিশ জনতাকে ছত্রভঙ্গ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন। বিক্ষুদ্ধ জনতা বাসটি ভাঙ্চুর করে এবং ঘাতক রাজিব পরিবহনের চালক কামাল হোসেএক (৫৩) ধরে পুলিশে সোর্পদ করে। বাস চালকের বাড়ি পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর উপজেলার হুগলামনিয়া গ্রামে। 

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন