বৃহস্পতিবার | সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০ | ৯ আশ্বিন ১৪২৭

খেলা

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শেষ ষোলো

সিটির মাঠে রিয়ালের কঠিন চ্যালেঞ্জ

বণিক বার্তা ডেস্ক

সদ্যই ৩৪তম লা লিগা শিরোপা জিতে নিতে পারে রিয়াল মাদ্রিদ, কিন্তু সেটা ছিল তাদের রক্ষণ সাফল্যের জোরে। এবার ভিন্ন টুর্নামেন্ট, ভিন্ন মঞ্চ। উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে শেষ ষোলোর দ্বিতীয় লেগে শুক্রবার ম্যানচেস্টার সিটির মাঠে ১-২ গোলে পিছিয়ে থেকে নামছে জিনেদিন জিদানের দল। এ ম্যাচে উতড়ে যেতে হলে লস ব্লাংকোসদের রক্ষণাত্মক ফুটবলের ওপর নির্ভরতা কাজে আসবে না, জ্বলে উঠতে হবে তারকাদের।

এ ম্যাচে এডেন হ্যাজার্ডকে ঘিরে অনেক প্রত্যাশা থাকবে জিনেদিন জিদানের। ইনজুরি আর ফর্মহীনতায় তিনি নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি। এবার আস্থার প্রতিদান দেয়ার পালা। তিনি নিজের মুখেই স্বীকার করেছেন যে ক্যারিয়ারের সর্বনিম্ন অবস্থানে রয়েছেন এ মুহূর্তে। চেলসি থেকে রিয়ালে পাড়ি জমানোর পর মৌসুমের বেশিরভাগ সময়ই সাইডলাইনে বসে কাটিয়েছেন। এটা তার কাছে দুঃস্বপ্নের মতো। এ নিয়ে বেলজিয়ান তারকা বলেন, ‘এ বছর, দলগতভাবে আমরা লিগ শিরোপা জিতেছি, কিন্তু নিশ্চিতভাবেই ব্যক্তিগত পর্যায়ে এটা আমার ক্যারিয়ারের বাজে মৌসুম।’

শেষ ষোলোর প্রথম লেগে ঘরের মাঠে সিটির কাছে ১-২ গোলে হেরেছে রিয়াল মাদ্রিদ। কোয়ার্টার ফাইনালে উঠতে হলে ও পাঁচ বছরের মধ্যে চতুর্থ চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জিততে চাইলে রিয়ালকে জিততে হবে ন্যূনতম দুই গোলের ব্যবধানে। জিদানের দলকে কঠিন এ বাধা উতড়াতে হলে হ্যাজার্ডের মতো তারকাকে জ্বলে উঠতে হবে। 

গত ফেব্রুয়ারিতে বার্নাব্যুতে পেছন থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে ২-১ গোলের জয় তুলে নেয় পেপ গার্দিওলার ম্যানসিটি। ওই ম্যাচে বহিষ্কৃত হন রিয়াল অধিনায়ক সার্জিও রামোস। তার অনুপস্থিতিতে দ্বিতীয় লেগে আরো ফেভারিট হয়ে নামবে সিটিজেনরা। কিন্তু হ্যাজার্ড এমন এক খেলোয়াড় যে কিনা সবকিছু রিয়ালের পক্ষে নিয়ে আসার সামর্থ্য রাখেন। বাড়তি কিছু, বিশেষ কিছু পাওয়ার আশায়ই যে তাকে চেলসি থেকে সই করিয়েছে রেকর্ড ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নরা। যদিও ভিনিসিয়ুস জুনিয়র, রদ্রিগো, মার্কো অ্যাসেনসিও, লুকাক ভাজকেজ কিংবা করিম বেনজেমার মধ্যে যেকোনো কেউই ম্যাচের মোড় ঘুড়িয়ে দিতে পারেন। 

হামেশ রদ্রিগেজ আর গ্যারেথ বেলকে এ ম্যাচের স্কোয়াডে রাখেননি জিদান। 

এদিকে ম্যানসিটির স্প্যানিশ মিডফিল্ডার রদ্রি কালকের লড়াইয়ে নিজের দলকেই ফেভারিট মানছেন, যদিও রিয়াল যেকোনো কিছু ঘটানোর সামর্থ্য রাখে বলে মনে করেন তিনি। তার বিশ্বাস, প্রথম লেগের স্কোরলাইন অপ্রাসঙ্গিক। তার কথায়, ‘আগামীকালের ম্যাচ নিয়ে আমরা আত্মবিশ্বাসী আর উদ্বিগ্নও। এই ম্যাচ নিয়েই আমাদের গোটা মনোযোগ। আমরা এমন কিছুর জন্য তৈরি যাকে কঠিন কাজ বলেই মানছি। লক্ষ্য ম্যাচটি জেতা। অবশ্যই আপনি ফলাফলের দিকে তাকাবেন, তবে তা অবশ্যই যখন ম্যাচ শেষ হতে ১০ মিনিট বাকি থাকবে, তার আগে নয়।’

রিয়ালকে নিয়ে তার কথা, ‘তারা একটি দলের চেয়েও বেশি কিছু। তারা সব সময় ঘুরে দাঁড়ায়। এই টুর্নামেন্টের সবচেয়ে বড় দল। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে তাদের রয়েছে বিশাল প্রভাব। যদিও এখন দুটি দলের মধ্যে ব্যবধান খুব বেশি নয়। আমাদের ভালো দল, ভালো স্কোয়াড, যদি সবকিছু ঠিকমতো করতে পারি তবে ফল আমাদের পক্ষেই আসবে। আমাদের মাঠেই প্রদর্শন করতে হবে।’

ম্যাচ শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত ১টায়। কাল শেষ ষোলোর আরেক ম্যাচে জুভেন্টাস ঘরের মাঠে খেলবে ফরাসি দল লিওঁর বিপক্ষে। প্রথম লেগে লিওঁ জিতেছে ১-০ গোলে। যদিও চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসে সর্বোচ্চ গোলদাতা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো রয়েছেন বলে এক গোলের ঘাটতি পুষিয়ে বিজয়ী হওয়ার সামর্থ্য রাখে জুভেন্টাস।

সূত্র: মার্কা ও গোল ডটকম

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন