সোমবার | সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২০ | ১৩ আশ্বিন ১৪২৭

খবর

কৃষি খাতে উদ্যোক্তা তৈরিতে ব্যাংকগুলোকে এগিয়ে আসার আহ্বান কৃষিমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশের অর্থনীতিতে কৃষির গুরুত্ব অপরিসীম। কৃষির উন্নয়নের মাধ্যমেই দেশের সার্বিক উন্নয়ন টেকসই দারিদ্র্য বিমোচন করা সম্ভব হবে। আর এটি করতে হলে গ্রামীণ অর্থনীতির বিকাশে কৃষি অকৃষি উভয় খাতে উদ্যোক্তা তৈরি করতে হবে এবং তাদের সহযোগিতা করতে হবে। তাই কৃষি অকৃষি উভয় খাতে উদ্যোক্তা তৈরিতে সহজ শর্তে ঋণ নিয়ে ব্যাংকগুলোকে আরো এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী . মো. আবদুর রাজ্জাক। গতকাল কৃষিমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবন থেকে অনলাইনের মাধ্যমে টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলায় অগ্রণী ব্যাংকের ৯৫৮তম শাখার উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, দেশে কৃষি প্রক্রিয়াজাতে, খুচরা কৃষি যন্ত্রপাতি তৈরি মেরামতে স্থানীয় পর্যায়ে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা তৈরির অনেক সুযোগ রয়েছে। সেজন্য এসব খাতে ব্যাংকগুলোকে উদ্যোক্তা তৈরির মনোভাব নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে। উদ্যোক্তাদের সহজ শর্তে ঋণ দিতে হবে। বিশেষ অঞ্চলে দুগ্ধশিল্পে অর্থায়নের সুযোগ রয়েছে। শিল্প-কারখানা প্রক্রিয়াকরণে অগ্রণী ব্যাংক ঋণ প্রদানের মাধ্যমে দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিতে ভূমিকা রাখবে বলে আশা করেন তিনি।

গতকালের শাখা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অগ্রণী ব্যাংকের চেয়ারম্যান . জায়েদ বখত, ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মোহাম্মদ শামস-উল ইসলাম, উপব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) মো. আনিসুর রহমান, মো. রফিকুল ইসলাম নিজাম উদ্দিন আহাম্মদ চৌধুরী, উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আরিফা সিদ্দিকা, পৌর মেয়র খন্দকার মঞ্জুরুল ইসলাম তপন, ব্যাংকের ময়মনসিংহ সার্কেলের মহাব্যবস্থাপক সফিকুর রহমান সাদিক, ধনবাড়ী শাখা ব্যবস্থাপক আসাদুজ্জামান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী অঞ্চলটি ঐতিহাসিক অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ জানিয়ে মোহাম্মদ শামস-উল ইসলাম বলেন, থানাটির পাশে গড়ে উঠছে জামালপুর অর্থনৈতিক অঞ্চল। বাণিজ্যিক কৃষিতে অগ্রসরমাণ থানাটি। এছাড়া রেমিট্যান্স আনার সুযোগ রয়েছে। সবমিলিয়ে একটি আদর্শ শাখা হিসেবে কাজ করতে পারবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। পাশাপাশি কৃষিভিত্তিক উদ্যোক্তা তৈরিতে শাখাটি কাজ করবে বলেও জানান তিনি।

. জায়েদ বখত বলেন, গত কয়েক বছরের দক্ষতা প্রচেষ্টার কারণে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ২৯ শতাংশ থেকে ১৪ দশমিক শতাংশে নামিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছি। পাশাপাশি ব্যাংকের অন্যান্য সূচকে বেশ ভালো অগ্রগতি হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর এক অংকের সুদহার নির্দেশনা বাস্তবায়নে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। স্বল্প সুদে ঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করলেও আমাদের মুনাফায় কমতি হয়নি। দক্ষতার সঙ্গে ব্যাংক পরিচালনার মাধ্যমে অগ্রণী ব্যাংক সামনের সারিতেই থাকবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন