সোমবার | সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০ | ৬ আশ্বিন ১৪২৭

আন্তর্জাতিক খবর

সৌদি প্রকল্পে বিপুল ঘুষ, দেশ ছাড়ছেন স্পেনের সাবেক রাজা

বণিক বার্তা ডেস্ক

দুর্নীতির অভিযোগে তদন্তের মুখে পড়ায় স্পেন ছেড়ে চলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন দেশটির সাবেক রাজ হুয়ান কার্লোস। সোমবার স্পেনের রয়্যাল প্যালেস দিয়েছে এ খবর।

৮২ বছর বয়সী হুয়ান কার্লোস নিজের ছেলে বর্তমান রাজা ফিলিপের কাছে লেখা চিঠিতে দেশ ছাড়ার কথা জানিয়েছেন। ছয় বছর আগে পদত্যাগ করে ফিলিপকে ক্ষমতায় বসান কার্লোস। 

স্পেনের সাবেক রাজা বলেছেন, প্রসিকিউটররা সাক্ষাৎকার নিতে চাইলে তিনি চলে আসবেন। 

সৌদি আরবে হাই-স্পিড রেল চুক্তিতে অনিয়মের সঙ্গে হুয়ান কার্লোসের সম্পৃক্ততা নিয়ে গত জুন মাসে সুপ্রিম কোর্ট আনুষ্ঠানিকভাবে তদন্তের নির্দেশ দেয়। 

অভিযোগ রয়েছে, ২০০৮ সালে সৌদির সঙ্গে রেল চুক্তি থেকে ১০ কোটি ইউরো ঘুষ নিয়েছেন হুয়ান কার্লোস এবং অফশোর কোম্পানির মাধ্যমে তা পাচার করেছেন। এ কারণে সুইজারল্যান্ডেও তার বিরুদ্ধে তদন্ত চলমান।  

৬৭০ কোটি ইউরোর চুক্তিতে মক্কা ও মদিনার মধ্যে হাই-স্পিড রেল লাইনের কাজ পেয়েছিল স্পেনের একটি ফার্ম। সেখান থেকেই নাকি হুয়ান কার্লোস বাগিয়ে নেন ১০ কোটি ইউরো। স্পেনের দুর্নীতি দমন কমিশন বলছে, কিছু অর্থ বেনামে সুইস ব্যাংকেও সরিয়ে ফেলতে পারেন কার্লোস, তাই সেখানেও তদন্ত চলছে।

স্পেনের সাবেক রাজা কোথায় বসবাস করবেন, সেটি জানা যায়নি। তবে স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, তিনি আর নিজ দেশে থাকছেন না। 

১৯৭৫ সালে স্বৈরশাসক জেনারেল ফ্রাঙ্কোর পতনের পর হুয়ান কার্লোসই দেশকে স্বৈরতন্ত্র থেকে গণতন্ত্রের পথে নিয়ে আসতে অগ্রণী ভ‚মিকা পালন করেন। ফ্রাঙ্কো স্পেন শাসন করেন ৩৬ বছর। সব মিলিয়ে ৪৪ বছরের মধ্যে হুয়ান কার্লোস স্পেনের প্রথম রাজার সিংহাসনে বসেন। ফ্রাঙ্কোর অনুসারীদের হতাশ করে তিনি দেশটিতে স্বৈরতন্ত্রের অবসান ঘটিয়ে গণতন্ত্রের পথে নিয়ে যান। এছাড়া কাতালোনিয়া ও বাস্ক অঞ্চলে স্বাধীনতা আন্দোলনও তিনি অনেকটা প্রশমিত করেন। আর ১৯৮১ সালে দমন করেন সামরিক ক্যু। তার অবদানের জন্য স্পেনের ইতিহাসেই বিরাট জায়গা পাওয়ার দাবিদার তিনি। অথচ সেই কার্লোসকে কিনা দুর্নীতির অভিযোগ মাথায় নিয়ে দেশ ছাড়তে হচ্ছে। এটা তার জন্য ভীষণ লজ্জাজনক ঘটনাই হতে চলেছে। 

প্রায় ৪০ বছর ক্ষমতায় থাকার পর ২০১৪ সালে সিংহাসন ত্যাগ করেন হুয়ান কার্লোস। তার সিংহাসন ছাড়ার সিদ্ধান্তকেও ত্বরান্বিত করেছে দুর্নীতির অভিযোগ। তখন তার মেয়ের জামাইয়ের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। এছাড়া স্পেনের চরম অর্থনৈতিক মন্দার সময় হাতি শিকারে গিয়ে সমালোচনার মুখে পড়েন হুয়ান কার্লোস। 

গত মার্চ মাসে রাজা ষষ্ঠ ফিলিপ দুর্নীতির অভিযোগে কলঙ্কিত পিতার উত্তরাধিকার অস্বীকার করেন। তখন জারজুয়েলা রাজপ্রাসাদ থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে বলা হয়, বিশেষ ভাতা হিসেবে বার্ষিক ১ লাখ ৯৪ হাজার ইউরো আর পাবেন না কার্লোস। সেই থেকে বাবার সঙ্গে দূরত্ব বজায় রেখে চলতে থাকেন ফিলিপ। 

হুয়ান কার্লোস দেশ ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফিলিপকে লিখেছেন, ‘স্পেনের রাজা হিসেবে আপনার কাছে আমি দেশ ছাড়ার সিদ্ধান্তের কথা জানাচ্ছি। এ সিদ্ধান্তটি আমি গভীর আবেগ থেকে নিলেও এতে বিরাট প্রশান্তি রয়েছে।’

হুয়ান কার্লোসের দেশ ছাড়ার চিঠি পেয়ে রাজা ফিলিপ বলেছেন বাবার প্রতি তার ‘হৃদয়গ্রাহী শ্রদ্ধা আর কৃতজ্ঞতা’।

সূত্র: বিবিসি 

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন