সোমবার | সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০ | ৫ আশ্বিন ১৪২৭

খবর

সাবেক সেনা কর্মকর্তার মৃত্যু নিয়ে অস্বস্তি

২০ পুলিশ সদস্য প্রত্যাহারের পর তদন্ত কমিটি পুনর্গঠন

নিজস্ব প্রতিবেদক

কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের তল্লাশি চৌকিতে গুলিবিদ্ধ হয়ে সাবেক সেনা কর্মকর্তার মৃত্যুর ঘটনায় সরকারের দায়িত্বশীলদের মাঝে অস্বস্তি বিরাজ করছে। পুলিশের পক্ষ থেকে এ ঘটনায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হলেও এ বিষয়ে কেউই কোনো মন্তব্য করতে চাচ্ছেন না। এমনকি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিজেও এড়িয়ে যাচ্ছেন প্রসঙ্গটি। এ ঘটনার পর প্রকৃত ঘটনা জানতে গঠিত তদন্ত কমিটি পুনর্গঠিত হয়েছে। আগামী সাত দিনের মধ্যে সরেজমিন পরিদর্শন করে ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। পাশাপাশি টেকনাফের ওই তদন্ত কেন্দ্রের ২০ পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

দুই বছর আগে সেনাবাহিনী থেকে অবসরে যাওয়া মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান গত শুক্রবার রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। একমাস ধরে কক্সবাজারের হিমছড়িতে থাকা সাবেক এই সেনাকর্মকর্তা তিন সঙ্গীকে নিয়ে উঠেছিলেন নীলিমা রিসোর্টে। ভ্রমণবিষক ডকুমেন্টরি তৈরির জন্য দুর্গম এলাকায় যাতায়াত ছিল তার। 

পুলিশের দাবি, রাতে ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভের রাস্তা দিয়ে ফিরছিলেন সাবেক এই সেনাকর্মকর্তা। সে সময় তল্লাশি চৌকিতে থামার পর পুলিশ সদস্যরা গাড়ি তল্লাশি করতে চাইলে বাধা দেন তিনি। এমনকি নিজের সঙ্গে থাকা লাইসেন্স করা অস্ত্র কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যদের দিকে তাক করেন। আত্মরক্ষার্থে পুলিশ গুলি ছুড়লে তিনি গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র ও মাদক উদ্ধারের পাশাপাশি এ ঘটনায় আরো দুইজনকে আটক করে দুটি মামলা দায়ের করার কথাও জানায় পুলিশ।

ঈদ পরবর্তী কুশল বিনিময়ের অনুষঠানে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামানের কাছে সাংবাদিকরা সাবেক সেনাকর্মকর্তার গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যাওয়ার বিষয়ে জানতে চান। সে সময় তদন্তাধীন বিষয় নিয়ে মন্তব্য করবেন না বলে ছাফ জানিয়ে দেন মন্ত্রী।

অবসরের সময় স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সে দায়িত্ব পালন করা রাশেদের বয়স ছিল ৩৬ বছর। তল্লাশি চৌকিতে গুলিবিদ্ধ হয়ে তার মৃত্যুর পর প্রকৃত ঘটনা জানতে পরদিন তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহা. শাজাহান আলিকে প্রধান গঠিত তদন্ত কমিটি পুনর্গঠিত করে তাকে করা হয়েছে সদস্য। নেতৃত্বে আনা হয়েছে যুগ্মসচিব পদমর্যাদার এক কর্মকর্তাকে। চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মোহাম্মদ মিজানুর রহমানকে আহ্বায়ক করে গঠিত কমিটিকে আগামী সাত দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। 

এই কমিটিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের একজন প্রতিনিধি সদস্য হিসেবে থাকবেন, যাকে মনোনীত করবেন ১০ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি ও কক্সবাজারের এরিয়া কমান্ডার। পুলিশ বিভাগের পক্ষ থেকে এই কমিটিতে সদস্য হিসেবে থাকবেন চট্টগ্রাম রেঞ্জের উপ পুলিশ মহাপরিদর্শকের মনোনীত একজন প্রতিনিধি।

এদিকে কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের গুলিতে অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা নিহতের ঘটনায় বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জসহ ২০ জনকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। জেলার পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন জানান, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে ইতোমধ্যে একটি তদন্ত কমিটি গঠিত হয়েছে। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ লিয়াকত আলিসহ ২০ পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন