সোমবার | আগস্ট ১০, ২০২০ | ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭

পণ্যবাজার

সৌদি আরব থেকে চীনে আমদানিতে নতুন রেকর্ড

বণিক বার্তা ডেস্ক

নভেল করোনাভাইরাসের ধাক্কা অনেকটা সামলে উঠেছে চীন। দেশটির অর্থনৈতিক কার্যক্রমে গতি ফিরতে শুরু করেছে। এতে বিশ্বের শীর্ষ জ্বালানি তেল ভোক্তা দেশটিতে পণ্যটির চাহিদা বাড়তে শুরু করেছে। ফলে জ্বালানি তেল আমদানি বাড়াতে শুরু করেছেন দেশটির ব্যবসায়ীরা। চলতি বছরের মে মাসে চীনের অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের আমদানি বেড়ে যাবত্কালের সর্বোচ্চে উঠেছে। সময় সৌদি আরব থেকে পণ্যটির আমদানি বাড়িয়েছে দেশটি। মে মাসে সৌদি আরব থেকে চীনের জ্বালানি তেল আমদানি আগের বছরের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ বেশি বেড়েছে। খবর রয়টার্স সিনহুয়া।

সৌদি আরব অর্গানাইজেশন অব পেট্রোলিয়াম এক্সপোর্ট কান্ট্রিজের (ওপেক) সবচেয়ে বড় জ্বালানি তেল উত্তোলনকারী দেশ। জ্বালানি পণ্যটির রফতানিকারকদের বৈশ্বিক তালিকায় দেশটির অবস্থান শীর্ষে। চীনের জেনারেল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অব কাস্টমসের তথ্য অনুযায়ী, গত মে মাসে সৌদি আরব থেকে চীন দৈনিক গড়ে ২১ লাখ ৬০ হাজার ব্যারেল অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানি করেছে, আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় যা ৯৪ দশমিক শতাংশ বেশি। একই সঙ্গে তা চলতি বছরের আগের মাসের তুলনায় ৭১ শতাংশ বেশি।

সময় চীনের বাজারে জ্বালানি তেল সরবরাহে রাশিয়াকে টপকে শীর্ষে উঠে এসেছে সৌদি আরব। মে মাসে রাশিয়া থেকে চীন দৈনিক গড়ে ১৮ লাখ ২০ হাজার ব্যারেল জ্বালানি তেল আমদানি করেছে, যা ২০১৯ সালের একই মাসের তুলনায় ২১ দশমিক শতাংশ বেশি। অন্যদিকে গত এক বছরের মধ্যে সৌদি আরব থেকে চীনের জ্বালানি তেল আমদানি বেড়েছে ২০ দশমিক শতাংশ এবং রাশিয়া থেকে পণ্যটির আমদানি বেড়েছে ১৭ দশমিক শতাংশ।

গত মাসে চীন ইতিহাসের সর্বোচ্চ জ্বালানি তেল আমদানির রেকর্ড করেছে। দেশটির শুল্ক বিভাগের সূত্র অনুযায়ী, মে মাসে আন্তর্জাতিক বাজার থেকে চীনের আমদানিকারকরা দৈনিক গড়ে কোটি ১৩ লাখ ৪০ হাজার ব্যারেল জ্বালানি তেল আমদানি করে রেকর্ড করেছে। মূলত পরিশোধন কার্যক্রম বৃদ্ধিতে সময় দেশটিতে পণ্যটির চাহিদা বেড়েছে। এছাড়া পণ্যটির মন্দা মূল্য দেশটির রেকর্ড আমদানি বৃদ্ধিতে সহায়ক ভূমিকা রেখেছে।

এদিকে আমদানি বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে গত মে মাসে অভ্যন্তরীণভাবে চীনের জ্বালানি তেল উত্তোলনও বেড়েছে। চীনের ন্যাশনাল ব্যুরো অব স্ট্যাটিস্টিকসের তথ্য অনুযায়ী, সময় দেশটির কূপগুলো থেকে মোট কোটি ৬৪ লাখ ৬০ হাজার টন অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলন করা হয়েছে, আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় যা দশমিক শতাংশ এবং চলতি বছরের এপ্রিলের তুলনায় দশমিক শতাংশ বেশি। এদিকে মে মাসে আগের বছরের একই মাসের তুলনায় দেশটিতে পণ্যটির পরিশোধন দশমিক শতাংশ বেড়ে কোটি ৭৯ লাখ টনে উন্নীত হয়েছে। 

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন