বৃহস্পতিবার | আগস্ট ১৩, ২০২০ | ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭

খবর

মাস্ক ও পিপিই সরবরাহে দুর্নীতি

সিএমএসডির ৬ কর্মকর্তাকে দুদকে তলব

নিজস্ব প্রতিবেদক

নিম্নমানের মাস্ক, পিপিই অন্যান্য সুরক্ষা সরঞ্জাম কেনাকাটায় দুর্নীতির অভিযোগ অনুসন্ধানে সেন্ট্রাল মেডিকেল স্টোরস ডিপোর (সিএমএসডি) ছয় কর্মকর্তাকে তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) গতকাল দুদকের পরিচালক মীর মো. জয়নুল আবেদীন শিবলী স্বাক্ষরিত এক তলবি নোটিস দেয়া হয় তাদের।

এদের মধ্যে সিএমএসডির সাবেক সহকারী পরিচালক (মজুদ বিতরণ) বর্তমানে সহকারী পরিচালক (প্রশাসন) ডা. মো. শাহজাহান, সাবেক ডেস্ক অফিসার- অতিরিক্ত দায়িত্ব (স্টোর) ডা. সাব্বির আহম্মেদ, স্টোর অফিসার কবির আহম্মেদকে ১৯ জুলাই দুদকে হাজির হয়ে বক্তব্য দিতে বলা হয়েছে। আর ২০ জুলাই তলব করা হয়েছে সিনিয়র স্টোরকিপার মো. ইউসুফ ফকির, উপপরিচালক পিঅ্যান্ডসি ডা. মো. জাকির হোসেন, সাবেক মেডিকেল অফিসার (চিফ কোঅর্ডিনেটর) ডা. জিয়াউল হককে।

দুদকের তলবি নোটিসে বলা হয়, স্বাস্থ্য পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং সিএমএসডির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম, দুর্নীতি ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে কভিড-১৯-এর চিকিৎসার নিমিত্তে নিম্নমানের মাস্ক, পিপিই অন্যান্য স্বাস্থ্য সরঞ্জামাদি ক্রয়সহ বিভিন্ন হাসপাতালে সরবরাহের নামে অন্যদের যোগসাজশে কোটি কোটি টাকা আত্মসাত্পূর্বক অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধানের জন্য তাদের বক্তব্য শ্রবণ গ্রহণের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।

প্রসঙ্গত, দেশে নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরুর পর থেকে নিম্নমানের সুরক্ষা সরঞ্জাম দিয়ে চিকিৎসা কার্যক্রম চালিয়ে যেতে হচ্ছে বলে অভিযোগ করে আসছিলেন চিকিৎসকরা। পরে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসক অন্য স্বাস্থ্যকর্মীদের মধ্যে সাধারণ নিম্নমানের মাস্ক দেয়ার অভিযোগ তদন্ত করতে ২১ এপ্রিল একটি কমিটি করার কথা জানায় স্বাস্থ্য পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়। কয়েক দফা সময় বাড়িয়ে কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়। তবে সেই প্রতিবেদনের আলোকে কী ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে তা জানায়নি মন্ত্রণালয়। এন-৯৫ মাস্ক পিপিইসহ অন্যান্য স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী কেনাকাটায় দুর্নীতির অভিযোগ অনুসন্ধানে গত ১৫ জুন জয়নুল আবেদীন শিবলীকে প্রধান করে চার সদস্যের একটি অনুসন্ধান টিম গঠন করে দুদক।

মাস্ক ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রীসহ (পিপিই) নিম্নমানের স্বাস্থ্য সরঞ্জাম সরবরাহে দুর্নীতির অভিযোগ অনুসন্ধানে দুদক জুলাই মেসার্স জেএমআই হসপিটাল রিকুইজিট ম্যানুফ্যাকচারিং লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. আব্দুর রাজ্জাক, তমা কনস্ট্রাকশনের সমন্বয়কারী (মেডিকেল টিম) মো. মতিউর রহমান, এলান করপোরেশনের চেয়ারম্যান ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমিনুল ইসলাম আমিন, মেডিটেক ইমেজিংয়ের পরিচালক মো. হুমায়ুন কবির এবং ঢাকা সেন্ট্রাল ইন্টারন্যাশনাল মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হসপিটালের চেয়ারম্যান লেক্সিকোন মার্চেন্ডাইজ টেকনোক্র্যাটের মালিক মো. মোতাজ্জেরুল ইসলাম মিঠুকে তলবি নোটিস পাঠায়। এদের মধ্যে জেএমআই হাসপাতাল রিকুইজিট ম্যানুফ্যাকচারিং লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. আব্দুর রাজ্জাক এবং তমা কনস্ট্রাকশনের সমন্বয়কারী (মেডিকেল টিম) মো. মতিউর রহমান জুলাই দুদকে এসে তাদের বক্তব্য পেশ করেন। একই দিন এলান করপোরেশন লিমিটেডের চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম আমিনক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করা হলেও তিনি দুদকে হাজির হননি।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন