বৃহস্পতিবার | আগস্ট ০৬, ২০২০ | ২২ শ্রাবণ ১৪২৭

টেলিকম ও প্রযুক্তি

থাইল্যান্ডে হুয়াওয়ের প্রযুক্তিতে চালকবিহীন গাড়ির পরীক্ষা শুরু

বণিক বার্তা ডেস্ক

চিকিৎসা সেবাসংক্রান্ত উপকরণ সরবরাহে চালকবিহীন গাড়ি ব্যবহারের লক্ষ্যে হুয়াওয়ে, থাইল্যান্ড ন্যাশনাল ব্রডকাস্টিং টেলিকমিউনিকেশন কমিউনিকেশন (এনবিটিসি) এবং সিরিরাজ হাসপাতাল যৌথভাবে থাইল্যান্ডের স্মার্ট হাসপাতালে আনম্যানড ভেহিকল পাইলট প্রজেক্ট ড্রাইভিং থাই হেলথকেয়ার টু ফাইভজি এরা চালু করেছে। হুয়াওয়ের ফাইভজি প্রযুক্তির সুবিধা নিয়ে চালকবিহীন গাড়িগুলো কোনো সংস্পর্শ ছাড়াই চিকিৎসা সেবাসংক্রান্ত উপকরণ সরবরাহ করতে পারবে। খবর ব্যাংকক পোস্ট।

বিবৃতিতে হুয়াওয়ে জানায়, ধরনের প্রযুক্তি জটিল পরিবেশে কার্যক্রম চালাতে সক্ষম বলে লজিস্টিক সেবায় মানুষের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। চালকবিহীন এসব গাড়ি নিরাপদ, সহজে ব্যবহারযোগ্য, সাশ্রয়ী সমাধান এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের কাজের চাপ কমিয়ে রোগীর সুরক্ষা নিশ্চিতেও কার্যকর। এর ফলে সামনের দিনগুলোতে জাতীয় স্বাস্থ্য খাতকে স্মার্ট হাসপাতালের রূপ দেয়ার জন্য ক্রমান্বয়ে ফাইভজি প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে।

বিষয়ে থাইল্যান্ডের জাতীয় সম্প্রচার টেলিযোগাযোগ কমিশন কার্যালয়ের মহাসচিব টাকর্ন তানতাসিথ বলেন, ফাইভজি প্রযুক্তি ব্যবহার করে এনবিটিসি দূরবর্তী চিকিৎসা সেবা প্রদানের লক্ষ্যে কমিউনিটি হেলথ প্রমোশন হাসপাতাল স্থানীয় বড় হাসপাতালগুলোর সঙ্গে যুক্ত হয়ে পরীক্ষামূলকভাবে চার ধরনের রোগের চিকিৎসা সেবা দিচ্ছে। এগুলো হলো চোখের সমস্যা, চর্মরোগ, রক্তচাপে অস্বাভাবিকতা ডায়াবেটিস। প্রত্যন্ত এলাকার মানুষ কারাবন্দিদের চিকিৎসা প্রদানের জন্য রাচাবুরি প্রদেশের রাচাবুরি কেন্দ্রীয় কারাগার এবং খাও বিন কেন্দ্রীয় কারাগারে এভাবে চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষের কাছে ফাইভজি উদ্ভাবনগুলোর সর্বোচ্চ সুবিধা পৌঁছে দেয়াই এনবিটিসির চলমান প্রকল্পগুলোর লক্ষ্য।

তিনি বলেন, থাইল্যান্ডের সফল ফাইভজি নিলামের সুবিধা রয়েছে এবং আসিয়ানভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে ফাইভজি প্রযুক্তিতে অন্যতম শীর্ষস্থানে আছে দেশটি।

এনবিটিসি প্রতিযোগিতামূলক সুবিধাগুলোকে স্বীকৃতি দেয় এবং বিভিন্ন খাতে ফাইভজি প্রযুক্তির সংযোজনের মাধ্যমে দেশে ডিজিটাল অসাম্য ঘোচাতে উৎসাহ প্রদান করে, যা একই সঙ্গে আমাদের দৈনন্দিন জীবন, কাজ উৎপাদনকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে এবং ডিজিটাল রূপান্তরের জন্য থাইল্যান্ডকেও প্রস্তুত করছে।

কভিড-১৯ মহামারীর বিরুদ্ধে চিকিৎসা সেবা প্রদানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখা থাইল্যান্ডের সবচেয়ে পুরনো এবং বৃহত্তম সিরিরাজ হাসপাতালে প্রথম পরীক্ষামূলক কার্যক্রম চালানোর পর এনবিটিসি ফাইভজি সক্ষম বিভিন্ন চালকবিহীন গাড়ির সুবিধা এবং সক্ষমতা মূল্যায়ন করবে। এখান থেকে প্রাপ্ত ফলাফল পরবর্তী সময়ে অন্যান্য হাসপাতালসহ নানাবিধ ব্যবহারের জন্য সহায়ক হবে।

বিষয়ে থাইল্যান্ডের মাহিদল বিশ্ববিদ্যালয়ের সিরিরাজ হাসপাতালের মেডিসিন অনুষদের ডিন অধ্যাপক . প্রসিত ওয়াতানাপা বলেন, সম্পদের কার্যকর ব্যবহার নিশ্চিত করে কভিড-১৯ পরিস্থিতিতে রোগী চিকিৎসা কর্মীদের নিরাপত্তাকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। সিরিরাজ হাসপাতাল সামগ্রিকভাবে কার্যক্রম চিকিৎসা সেবাদানের দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ডিজিটাল প্রযুক্তির ওপর গুরুত্বারোপ করেছে। ফাইভজি প্রযুক্তির চালকবিহীন গাড়ির পরীক্ষামূলক প্রকল্প হাসপাতালের মধ্যে কেন্দ্রীয় লজিস্টিক সিস্টেমকে আরো উন্নত করবে। প্রাথমিক পর্যায়ে প্রযুক্তি মানুষের সংস্পর্শ ছাড়া ওষুধ পরিবহন এবং বিতরণ করতে ব্যবহার করা হবে, যা স্বাস্থ্যকর্মীদের কাজের চাপ সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে সহায়তা করবে। দীর্ঘমেয়াদি এবং টেকসই উন্নয়নের জন্য স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়নে এটি গুরুত্বপূর্ণ এক পদক্ষেপ।

নিয়ে হুয়াওয়ে থাইল্যান্ডের প্রধান নির্বাহী আবেল ডেং বলেন, বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হিসেবে হুয়াওয়ে ধারাবাহিকভাবে থাইল্যান্ডের চিকিৎসা কর্মীদের সহযোগিতায় অংশ নিতে পেরে সম্মানিত আনন্দিত। সিরিরাজ হাসপাতালে হুয়াওয়ের ফাইভজি প্রযুক্তির সহায়তায় চালকবিহীন গাড়ির পরীক্ষামূলক প্রকল্পটি হাসপাতালের ভেতরে চিকিৎসা উপকরণ পরিবহনে সহায়তা করবে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন