বৃহস্পতিবার | আগস্ট ০৬, ২০২০ | ২১ শ্রাবণ ১৪২৭

প্রথম পাতা

দ্বিতীয় দফায় সংক্রমণ

দেশে দেশে ফিরে আসছে লকডাউন

বণিক বার্তা ডেস্ক

বৈশ্বিক মহামারী নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কমে আসায় লকডাউনসহ আরোপিত বিধিনিষেধ তুলে নিতে শুরু করেছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ। এতে খানিকটা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে না ফেলতেই অনেক দেশে দ্বিতীয় দফায় সংক্রমণ শুরু হয়েছে। ফলে বাধ্য হয়েই ফের লকডাউনের পথ বেছে নিতে হচ্ছে সরকারগুলোকে। সর্বশেষ মেলবোর্নে সম্প্রতি কভিড-১৯-এর সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় শহরটির ৫০ লাখ বাসিন্দাকে ছয় সপ্তাহের জন্য ঘরে অবস্থানের নির্দেশ দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া কর্তৃপক্ষ। এর আগে স্পেনের গ্যালিসিয়া কাতালোনিয়ায় আঞ্চলিক লকডাউন ঘোষণা করা হয়। এদিকে রোববার দেশব্যাপী ফের লকডাউনে ফিরে যায় কাজাখস্তান। অন্যদিকে সংক্রমণ বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে স্থানীয় সময় সোমবার ইসরায়েলে নতুন করে বেশকিছু বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়। খবর বিবিসি, দ্য ডিপ্লোম্যাট গার্ডিয়ান।

মেলবোর্নে নতুন করে লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছেন ভিক্টোরিয়া রাজ্যের প্রিমিয়ার ডেনিয়েল অ্যান্ড্রুজ। রাজ্যে নতুন ১৯১ জন কভিড-১৯ আক্রান্ত শনাক্ত হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল ঘোষণা দেন তিনি। মূলত করোনা মহামারী শুরু হওয়ার পর থেকে এখানে একদিনে এত বেশি সংক্রমণ আর দেখা যায়নি। সর্বশেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী অস্ট্রেলিয়ায় কভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছে হাজার জন, মারা গেছে ১০৬ জন। ভিক্টোরিয়ায় মূলত নতুন করে সংক্রমণ বৃদ্ধির আগে আরোপিত বিধিনিষেধ তুলে নেয়া হচ্ছিল। কিন্তু এখন সেখানে কয়েকশ সংক্রমিত ব্যক্তি রয়েছে। ডেনিয়েল অ্যান্ড্রুজ বলেন, বর্তমান অবস্থায় পদক্ষেপ না নেয়া হলে পরিস্থিতি খুবই খারাপ হবে।

সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, নতুন আরোপিত লকডাউন চলাকালীন লোকজন প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বের হতে পারবে না। এছাড়া বিদ্যালয়গুলোকে ফের দূরশিক্ষণে ফিরে যেতে হবে। রেস্তোরাঁগুলো শুধু টেক অ্যাওয়ে ভিত্তিতে খাবার বিক্রি করতে পারবে। তবে খোলা থাকবে দোকান হেয়ার ড্রেসারগুলো। এসব পদক্ষেপ কার্যকর করা হবে স্থানীয় সময় বুধবার (আজ) থেকেই।

এদিকে গ্যালিসিয়ায় নতুন করে লকডাউন জারি করেছে স্পেন, যার আওতায় পড়েছে ৭০ হাজারের বেশি মানুষ। রোববার থেকে শুরু লকডাউন জারি থাকবে শুক্রবার পর্যন্ত। মূলত দেশটির উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় গ্যালিসিয়ায় আড়াইশ জনের বেশি করোনা আক্রান্ত হওয়ার পরই নতুন করে লকডাউনে যায় কর্তৃপক্ষ। এর আগে শনিবার কাতালোনিয়ায় একই ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হয়। স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ বলেন, লোকজনকে সতর্ক থাকতে হবে। তবে একই সঙ্গে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার পরিপ্রেক্ষিতে তাদের উৎসাহিত বোধ করা উচিত। আগেভাগেই সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার মানে হলো মার্চের চেয়ে এখন দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা অনেক ভালো।

উল্লেখ্য, স্পেনে কভিড-১৯ আক্রান্তের সংখ্যা দুই লাখ ছাড়িয়ে গেছে। মারা গেছে ২৮ হাজারের বেশি মানুষ।

নতুন করে সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় স্থানীয় সময় সোমবার ফের বেশকিছু বিধিনিষেধ আরোপ করেছে ইসরায়েল। এর মধ্যে অন্যতম হলো তাত্ক্ষণিকভাবে বার, ব্যায়ামাগার ইভেন্ট হল বন্ধ করে দেয়া। মে মাসে নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ সীমাবদ্ধ রাখার পরিপ্রেক্ষিতে ব্যবসা কার্যক্রমের পাশাপাশি বিদ্যালয় সমুদ্রসৈকত খুলে দিয়েছিল ইসরায়েল। কিন্তু হঠাৎই দেশটিতে ফের তীব্রভাবে কভিড-১৯ সংক্রমণ বেড়ে চলেছে। বর্তমানে ইসরায়েলে প্রতিদিন এক হাজারের মতো মানুষ সংক্রমিত হচ্ছে। প্রথম ধাপের সংক্রমণের তুলনায় সংখ্যা অনেক বেশি। দেশটির প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু বলেন, মহামারী যে ছড়িয়ে পড়ছে তা দিনের আলোর মতো স্পষ্ট।

এছাড়া সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় জুলাই ফের দেশব্যাপী লকডাউন ঘোষণা করেছে কাজাখস্তান, যা অন্তত দুই সপ্তাহ বলবৎ থাকবে। এর আগে দেশটির জারীকৃত প্রথম লকডাউন বলবৎ ছিল ১৬ মার্চ থেকে ১১ মে পর্যন্ত। কাজাখস্তানে নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ৫০ হাজারের মতো মানুষ। মারা গেছে ২৬০ জনের বেশি।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন