রবিবার | জুলাই ১২, ২০২০ | ২৮ আষাঢ় ১৪২৭

আন্তর্জাতিক খবর

চীনের পার্লামেন্টে হংকং নিরাপত্তা আইন পাস

বণিক বার্তা ডেস্ক

অবশেষে বিতর্কিত হংকং নিরাপত্তা আইন পাস করল চীন গতকাল দেশটির পার্লামেন্টে ঐতিহাসিক পদক্ষেপ নেয়া হয় সমালোচক বহু পশ্চিমা দেশের সরকার মনে করছে, এর মধ্য দিয়ে হংকংয়ের স্বায়ত্তশাসন স্বাধীনতা খর্বিত হবে খবর এএফপি বিবিসি

বেইজিংয়ের হংকং কার্যালয় বলছে, যারা জাতীয় নিরাপত্তাকে বিপদে ফেলবে, তাদের মাথার ওপর আইন তলোয়ার হয়ে ঝুলবে তবে পাসকৃত আইনে কী কী বিষয় রয়েছে, তা ৭৫ লাখ হংকংবাসীর কাছে এখনো স্পষ্ট করা হয়নি ফলে আইনটি নিয়ে একদিকে ভীতি অন্যদিকে সৃষ্টি হয়েছে ক্ষোভ বিশিষ্ট গণতন্ত্রপন্থী জোশুয়া ওং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে বলেন, এর মধ্য দিয়ে বিশ্বের কাছে চিরপরিচিত হংকংয়ের পরিসমাপ্তি ঘটল তার মতে আইন হংকংকে গোপন পুলিশি রাষ্ট্রে পরিণত করবে

মূলত গত মাসেই চীনা সরকার ঘোষণা দিয়েছিল, হংকংয়ের সহিংসতা অস্থিরতা নিরসনে তারা জাতীয় নিরাপত্তা আইন জারি করবে আইনের আওতায় হংকংয়ে বিচ্ছিন্নতাবাদী কার্যক্রম, কেন্দ্রীয় সরকারের অবমাননা, সন্ত্রাসবাদ বিদেশী শক্তির সঙ্গে আঁতাত অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে এসব অপরাধের সর্বোচ্চ শাস্তি হতে পারে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

১৯৯৭ সালে ব্রিটিশ উপনিবেশ থেকে চীনের সঙ্গে যুক্ত হয় হংকং সময় নগররাষ্ট্রটিকে এক দেশ, দুই নীতির আওতায় বিশেষ স্বাধীনতার পাশাপাশি বিচারিক আইনি স্বায়ত্তশাসন নিশ্চিত করা হয় আর এর ওপর ভিত্তি করেই হংকং বিশ্বমানের ব্যবসা কেন্দ্রে পরিণত হয় তবে সমালোচকরা বহু আগে থেকেই চীনের বিরুদ্ধে হংকংয়ের স্বায়ত্তশাসন সংকুচিত করার অভিযোগ করে আসছিলেন আর নতুন নিরাপত্তা আইন সার্বিকভাবে নগরাষ্ট্রটিকে চীনের অধীনে নিয়ে আসবে আমূলে পাল্টে যাবে বেইজিং হংকংয়ের সম্পর্ক

এদিকে চীনের পদক্ষেপের বিষয়ে উদ্বেগ জানিয়েছে বিভিন্ন দেশের সরকার যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র সচিব ডমিনিক রাব চীনকে এমন পদক্ষেপ থেকে সরে আসার জন্য অনুরোধ জানান তিনি বলেন, হংকংয়ের সফলতার মূলে রয়েছে এক দেশ দুই নীতি স্বায়ত্তশাসন এর মধ্য দিয়েই হংকং অর্থনৈতিকভাবে দারুণ সাফল্য অর্জন করে একইভাবে আইন পাসের ফলে হংকংয়ের অনন্য স্বায়ত্তশাসন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন ইউরোপীয় কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট চার্লস মাইকেলও

ন্যাটোর মহাসচিব জেনস স্টোলটেনবার্গ বলেন, এটা এখন স্পষ্ট যে চীন আমাদের মূল্যবোধের সম্মান দেয় না দেশটির কাছে গণতন্ত্র, স্বাধীনতা এবং আইনের শাসনের মূল্য নেই এদিকে আইনকে শোচনীয় বলে অভিহিত করেছে জাপান সরকার তাইওয়ান এরই মধ্যে তার নাগরিকদের হংকং ভ্রমণ নিয়ে সতর্ক করে দিয়েছে

তবে বেইজিং হংকং সরকার বলছে, আইনের মাধ্যমে নগর রাষ্ট্রটির স্বায়ত্তশাসন খর্ব হবে না তাদের মতে, আইনের লক্ষ্য হবে খুবই অল্পসংখ্যক মানুষ তাছাড়া কোনোভাবেই হংকংয়ের রাজনৈতিক স্বাধীনতা তো ক্ষতিগ্রস্ত হবেই না, বরং পুনরায় দৃঢ় হবে টলে যাওয়া ব্যবসায়িক আত্মবিশ্বাস

বিষয়ে বেইজিংয়ের নিয়োজিত হংকংয়ের নেতা ক্যারি লাম জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলে বলেন, জাতীয় নিরাপত্তা নিশ্চিতে আমাদের দেশের অধিকারের প্রতি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে শ্রদ্ধাশীল হওয়ার জন্য অনুরোধ করছি সময় তিনি স্থিতিশীলতা সম্প্রীতির প্রতি হংকংবাসীর আকাঙ্ক্ষার কথাও ব্যক্ত করেন

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন