বৃহস্পতিবার | অক্টোবর ০১, ২০২০ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৭

খবর

বিদ্যুতের অস্বাভাবিক বিলের সমন্বয় করতে সাত দিন বেঁধে দিল মন্ত্রণালয়

বণিক বার্তা অনলাইন

তিন মাসের বকেয়া একসঙ্গে দিতে গিয়ে অনেক গ্রাহককেই অস্বাভাবিক বিদ্যুৎ বিলের কাগজ দিয়েছে বিদ্যুৎ বিতরণ সংস্থাগুলো। এখনই পরিশোধ না করলে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়ার হুমকি এবং অতিরিক্ত বিল পরে সমন্বয় করার কথা বলে সেই বিল আদায়ও করা হয়েছে। এ নিয়ে সারা দেশেই সাধারণ গ্রাহকদের মধ্যে ক্ষোভ বাড়ছে। বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিষয়টি ফলাও করে প্রচার করা হয়েছে।

এর পরিপ্রেক্ষিতে বিদ্যুৎ বিভাগ বলেছে, সাত দিনের মধ্যে ভুতুড়ে বিলের সমাধান না করতে পারলে বিদ্যুৎ বিতরণ সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শাস্তি দেয়া হবে। আজ বৃহস্পতিবার এক বৈঠকে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের বিদ্যুৎ বিভাগ এ সিদ্ধান্ত নেয়। 

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে বিদ্যুৎ বিভাগের আওতাধীন দপ্তর ও কোম্পানির বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়ন এবং মে মাসের অগ্রগতি পযালোচনা করা হয়।  

বৈঠকের ব্যাপারে মন্ত্রণালয়ের পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে হয়েছে, বৈঠকে গ্রাহকের প্রকৃত বিদ্যুৎ বিলের চেয়ে বাড়তি বিলের বিষয়ে আলোচনা হয়। বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, সাত দিনের মধ্যে অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল সমন্বয় করতে হবে। যদি এ কাজে কেউ ব্যর্থ হন, তবে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে বিদ্যুৎ বিভাগ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেবে। কোনো অবস্থায় অতিরিক্ত বিল গ্রহণ করা যাবে না। বিদ্যুতের বাড়তি বিল সমস্যার সমাধানে একজন অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে টাস্কফোর্স গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সভায় বিতরণ কোম্পানিগুলোর ব্যবস্থাপনা পরিচালকেরা দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল প্রদান সংক্রান্ত বিষয়টি নিয়ে সংস্থাগুলো পৃথকভাবে গণমাধ্যমের মাধ্যমে গ্রাহকদের কাছে ব্যাখ্যা করবে।

সভায় সভাপতিত্ব করেন বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। বৈঠকে আরো উপস্থিত ছিলেন বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব সুলতান আহমেদ, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. বেলায়েত হোসেন, পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) মঈন উদ্দিন, পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক মোহাম্মদ হোসেইন ও বিদ্যুৎ বিভাগের আওতাধীন দপ্তর এবং কোম্পানিগুলোর ব্যবস্থাপনা পরিচালকেরা।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন