মঙ্গলবার | জুলাই ১৪, ২০২০ | ২৯ আষাঢ় ১৪২৭

সম্পাদকীয়

মহামারী করোনা- সাইক্লোন আম্পান ও ঈদ

মো: আব্দুল কাদের খান

এমনিতেই প্রাণঘাতী ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে গোটা বিশ্ব  হিমশিম খাচ্ছে বাংলাদেশও এর বাইরে নয়। তাইতো সরকার সর্বোচ্চ সাবধানতার অংশ হিসেবে কার্যত সমস্ত বাংলাদেশ লকডাউন করে রেখেছে। শুধু নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বা শিল্প ছাড়া ধরা চলে সবই বন্ধ । এ কারণে অর্থনীতির অন্যতম চালিকাশক্তি বেসরকারি খাতের অবস্থাও অনেকটা জড়সরো।  এমন পরিস্থিতিতে প্রায় ২৬টি জেলায় আঘাত হানলো প্রাকৃতিক দুর্যোগ আম্পান যার প্রাথমিক ক্ষতি প্রায় ১১শ কোটি টাকা। তবে প্রকৃত ক্ষতি হয়তো আরও অনেক বেশি । এমন অবস্থায় এবারের ঈদ কেমন যেতে পারে?

ঈদ মানে আনন্দ বা খুশি- আপনি কি বলতে পারেন সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় এবারের ঈদের প্রকৃত এ অর্থ কি সার্থক হয়েছে? যদিও সরকার সাধ্যমতো চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য। করোনার কারণে এমনিতেই কাজ না থাকায় কোন না কোন ভাবে সকলের আয়ের ওপর বড় একটা চাপ পড়েছে আবার যারা কিছুটা বিত্তবান তাদের থাকতে হচ্ছে বিপদগ্রস্ত প্রতিবেশীদের সঙ্গে।

তারপরে ঠিক ঈদের আগে ঘটে গেল মহাপ্রলংকারী সাইক্লোন যার কারণে বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চল বাঁধ ভেঙে অনেক গ্রামে প্রবেশ করেছে সাগরের লোনা পানি, নষ্ট হয়েছে চিংড়ির ঘের, ফসল, বসত বাড়ি, অনেক অর্থকারি ফল ও ফসল- আম, লিচু, কলা, ধান ইত্যাদি।

এমন অবস্থায় যে কৃষকের আশা ছিল হয়তে আম বা লিচু বা অন্য ফল বা ফসল বিক্রি করে কিছুদিন পরে একটা বড় অংকের অর্থ ঘরে তুলতে পারবে যা দিয়ে করোনার ক্ষতি কিছুটা হলেও পুষিয়ে নিতে পারবে কিন্তু হলো এর উল্টোটা আয়ের পরিবর্তে তাকে এখন ব্যায় করতে হবে তার নষ্ট হয়ে যাওয়া ঘর মেরামত করার জন্য বা তার বাচ্চার বই কিনতে বা নতুন করে কৃষি কাজ শুরু করার জন্য বীজ বা সার কিনতে, এমন অবস্থায় তারা কী করবে তা ভেবে দিশেহারা।

বিশেষ করে যাদের ঘর নষ্ট  বা ভেঙে গিয়েছে তা মেরামত করা এখন খুবই জরুরি হয়ে পড়েছে, কারণ এখন বর্ষাকাল প্রায়শই বৃষ্টি হচ্ছে, ঘর সারতে না পারলে তাদের ইজ্জত নিয়ে বেঁচে থাকাটাই অনেকটা চ্যালেঞ্জ হয়ে পড়বে , চ্যালেঞ্জ হয়ে পড়বে প্রাথমিক স্বাস্থ্য সুরাক্ষা কারণ টয়লেট কাঁচা হওয়া অধিকাংশই নষ্ট হয়েছে, নষ্ট হয়েছে টিউওয়েল বা কুয়া বা সুপেয় পানির উৎস্য, যদিও প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে এখন হতেই ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে ত্রাণ ও প্রয়োজনীয় সহযোগিতার জন্য নির্দেশ প্রদান করেছেন। তথাপিও তাদের জন্য আমাদের যা করা প্রয়োজন তা নির্দিষ্টভাবে তুলে ধরা চেষ্টা -

• জোয়ারের পানি যাতে প্রবেশ করতে না পারে তার জন্য যে এলাকার বাঁধ  ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তা মেরামতের  কাজ দ্রততার সঙ্গে করতে হবে একই সঙ্গে এ কাজে শ্রমিক হিসাবে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের অগ্রাধিকার দিতে হবে। 

• যাদের ঘর নষ্ট হয়েছে তা মেরামতের ব্যবস্থা করতে প্রকৃত তালিকা প্রনয়ণ করে যতদ্রুত সম্ভব তাদের মোবাইলে সরাসরি নগদ অর্থ সহায়তা প্রদানের উদ্দ্যোগ গ্রহণ করতে হবে।  

• আম ও লিচুর বাগান মালিকদের তালিকা কৃষি বিভাগ কর্তৃক দ্রুততার সথে করে তাদের জন্য আগামীতে কম সুদে অর্থায়ন নিশ্চিত করতে হবে। 

• মৎস্য বিভাগ কর্তৃক চিংড়ি ঘের মালিকদের তালিকা করে তাদেরকেও অনুরুপ অর্থায়ন করতে হবে। 

• করোনার পাশাপাশি প্রাথমিক স্বাস্থ্যরক্ষায়  ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় গুরুত্ব দিতে হবে না হলে জনস্বাস্থ্যে জন্য হুমকি হয় অনুরুপ আরোও অনেক রোগ দেখা দিতে পারে। 

• সুপেয় পানি ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা নিশ্চিতকরণে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগের সকল ছুটি বাতিল করে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দারাতে হবে। 

করোনাকালীন সময়ে আমারা সরকারের পাশাপাশি ব্যবসায়িদের, ধনাঢ্য ব্যক্তিদের, বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনকে দেখেছি সহযোগিতার হাত বাড়াতে কিন্তু  দুঃখের বিষয় – এ সময়ে আমরা কিন্তু দাতা সংস্থার তেমন কোনো সাড়া দেখতে পাইনি। এমনকি আন্তর্জাতিক এনজিও এ বিষয়ে ছিল নিরব। আশা করবো তারা এ দুযোর্গের সময় সরকারের পাশাপাশি সাধ্যমত ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে থাকার চেষ্টা করবে।

সর্বোপরী, ঈদ-উল- ফিতর হয়তো ক্ষতিগ্রস্ত কারো জন্য মোটেও ভালো গেল না তাথাপিও ঈদ- উল-আযহাতে যেন সাধারণ মানুষ কিছুটা হলেও আনন্দ করতে পারে তার জন্য কমর্সংস্থানের ওপর গুরুত্ব দিয়ে প্রকল্প গ্রহণ কতে হবে এবং এ বিষয়ে সরকারের দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সমন্বয় করে  স্থানীয় সরকার, খাদ্য, কৃষি,  স্বাস্থ্য,  পানি সম্পদ,   অর্থ  ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়কে কাজ করতে হবে এবং এ সকল প্রকল্প সঠিকভাবে বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সরাসরি মনিটরিং এর জন্য বিশেষ টাস্ক ফোর্স গঠন করতে পারে।  

মো: আব্দুল কাদের খান

উন্নয়নকর্মী, পরামর্শক ও গবেষক

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন