মঙ্গলবার | মে ২৬, ২০২০ | ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

টকিজ

কম্পিউটিংয়ে ‘নোবেল’ জিতলেন টয় স্টোরির দুই স্রষ্টা

বণিক বার্তা অনলাইন

টয় স্টোরির সূচনা দৃশ্যটি প্রথম ‍মুক্তি পায় ১৯৯৫ সালে। এক শিশুর শোবার ঘরে ছড়ানো ছিটানো কয়েকটি বাক্স। এক বাক্সের গায়ে মিস্টার পটেটো হেড পুতুলের ছবি সম্বলিত পোস্টার সাঁটানো। যাকে ধরিয়ে দিলে ৫০ বিলিয়ন ডলার পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে। এই আলু মাথা পুতুলটি অস্ত্র উঁচিয়ে অন্য প্লাস্টিক আর উলের পুতুলগুলোর কাছ থেকে টাকা দাবি করে।

ঠিক এই সময় নায়ক এসে হাজির। প্লাস্টিক আর কাপড়ের তৈরি এক কাউবয় শেরিফ। সুতা ধরে টেনে ছেড়ে দিলে তিনি কথা বলেন। আইনের হাত থেকে পালিয়ে বেড়ানো এই আলু মাথা শয়তানকে জেলে ভরেন শেরিফ।

পুরো দৃশ্যটাই একটি শিশুর কল্পনার দৃষ্টিতে দেখা। এ দৃশ্য হলো কম্পিউটার অ্যানিমেশন নিয়ে কয়েক দশকের প্রচেষ্টার ফসল।

এই অসাধারণ অ্যানিমেশনের পেছনে যে দুই ব্যক্তি প্রধান ভূমিকা রেখেছেন তারা এ বছর পেলেন টিউরিং অ্যাওয়ার্ড। পিক্সারের প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য এড ক্যামাল এবং প্যাট হ্যানরাহানের হাতেই তৈরি হয়েছিল টয় স্টোরি। টিউরিং অ্যাওয়ার্ডকে বলা হয় কম্পিউটার বিজ্ঞানের নোবেল পুরস্কার। পুরস্কারের ১০ লাখ টাকা বিজয়ী দুজনের মধ্যে ভাগ করে দেয়া হবে। আগামী জুনে আনুষ্ঠানিকভাবে এ পুরস্কার বিজয়ীদের হাতে তুলে দেয়া হবে।

টয় স্টোরি নির্মাণ করেছিল পিক্সার স্টুডিও। এ প্রতিষ্ঠানের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ক্যাটমাল। আর হ্যানরাহান একেবারে শুরুর দিকের কর্মী।আর ১৯৮৬ সালে পিক্সার প্রতিষ্ঠা করেন অ্যাপলের প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ জবস। তিনি লুকাস ফিল্মের কম্পিউটার বিভাগ কিনে নেন এবং সেটিকে পিক্সার নামে আলাদা কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন। 

শুরুর দিকে এ কোম্পানি কম্পিউটার হার্ডওয়্যার বিক্রির ব্যবসা করার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু সে ব্যবসায় ব্যর্থ হলে পিক্সার মূলত কম্পিউটার গ্রাফিক্স অ্যানিমেশনে মনোযোগ দেয়। ওই সময় পিক্সারের বেশ কয়েকটি ব্যবসা সফল চলচ্চিত্রের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত ছিলেন স্টিভ জবস। ২০০৬ সালে পিক্সার কিনে নেয় ডিজনি।

সূত্র: বিবিসি

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন