শুক্রবার | জুন ০৫, ২০২০ | ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

আন্তর্জাতিক ব্যবসা

লোকসানের শঙ্কা, কর্মী ছাঁটাইয়ের কথা ভাবছে এইচঅ্যান্ডএম

বণিক বার্তা অনলাইন

পোশাক রফতানিকারক দেশগুলোর সরকার যথেষ্ট করছে না এমন দোহাই দিয়ে কর্মী ছাঁটাইয়ের কথা ভাবছে বিখ্যাত সুইডিশ পোশাক বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান হেসিস অ্যান্ড মৌরিৎস এবি বা এইচঅ্যান্ডএম। কোম্পানির অভিযোগ, করোনা মহামারীতে সারা বিশ্বে কোম্পানির তিন চতুর্থাংশ খুচরা দোকান বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরও সরকারগুলো তাদের সহায়তায় সেভাবে এগিয়ে আসেনি।

এইচঅ্যান্ডএমের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, মার্চে তাদের বিক্রি ৪৬ শতাংশ কমে গেছে। কোম্পানির দ্বিতীয় প্রান্তিকের প্রথম মাস ছিল এটি। এ ফ্যাশন কোম্পানি আশঙ্কা করছে এবছর তাদের কোনো মুনাফা থাকবে না। 

এদিকে তারল্য বাড়াতে কোম্পানি ঋণ নেয়ার চিন্তাভাবনা করছে। যেখানে তাদের এরই মধ্যে অন্তত ১০ হাজার কর্মীর কর্মঘণ্টা কমিয়ে আনতে হয়েছে। চলতি বছর কোম্পানির শেয়ারেও ধস নেমেছিল। তবে আজ শুক্রবার স্টোকহোম সূচক ৬ শতাংশ বেড়েছে।

চার বছর অনেকটা সঙ্কটের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে এইচঅ্যান্ডএম। এবছর টানেলের মাথায় একটু আলোকচ্ছটা দেখবে বলে আশা করেছিল। জানুয়ারির শেষ নাগাদ নতুন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) যোগ দিয়েছেন। এইচঅ্যান্ডএমের প্রতিষ্ঠাতার নাতির স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন হেলেনা হেলমারসন। এইচঅ্যান্ডএমের প্রথম নারী সিইও তিনি। সঙ্কটের প্রতি সহমর্মী হয়ে তিনি শীর্ষ কর্মকর্তাদের বেতনভাতা সাময়িকভাবে ২০ শতাংশ কমিয়ে দিয়েছেন।

আজ শুক্রবার হেলমারসন বলেছেন, ফ্যাশন কোম্পানিগুলোর সহায়তায় বিভিন্ন দেশ যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে তাকে স্বাগত। তবে এটি যথেষ্ট নয়।

কোম্পানির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এইচঅ্যান্ডএমকে কিছু কঠিন সিদ্ধান্ত নিতেই হবে। এর মধ্যে ক্রয় সংক্রান্ত ব্যয় হ্রাস, বিনিয়োগ, ভাড়া এবং কর্মীদের বিষয়ে পর্যালোচনা করতে হবে। এ বছর ১ হাজার স্টোরের ইজারার বিষয়ে নতুন করে আলাপ করবে এইচঅ্যান্ডএম। এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি স্টোরের ভাড়া স্থগিত করা এবং চুক্তি বাতিলের কথা বলেছে তারা। কোম্পানি আরো বলছে, দ্বিতীয় প্রান্তিকে পরিচালন ব্যয় ২৫ শতাংশ পর্যন্ত কমানোর ব্যাপারে আলোচনা চলছে।

সূত্র: ব্লুমবার্গ

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন