বুধবার | মে ২৭, ২০২০ | ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

আন্তর্জাতিক ব্যবসা

ভাইরাস-পরবর্তী নতুন প্রণোদনা প্রস্তাব করবে ইইউ

বণিক বার্তা ডেস্ক

নভেল করোনাভাইরাসের অর্থনৈতিক অভিঘাত থেকে উত্তরণে নতুন আর্থিক প্রণোদনা প্যাকেজ প্রস্তাবের উদ্যোগ নিয়েছে ইউরোপীয় কমিশন। ভাইরাস-পরবর্তী প্যাকেজের মধ্য দিয়ে অঞ্চলটির ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনীতিকে সহায়তা করা হবে বলে জানিয়েছেন কমিশনের প্রধান উরসুলা ভন ডার লিয়েন। খবর এএফপি

স্থানীয় সময় শনিবার এক বিবৃতিতে উরসুলা বলেন, অর্থনৈতিকভাবে ঘুরে দাঁড়ানো নিশ্চিত করতে বহুবার্ষিক আর্থিক পরিকল্পনায় (এমএফএফ) পরিবর্তন আনা হবে। এর মধ্য দিয়ে ভাইরাস-পরবর্তী সংকট মোকাবেলায় উদ্যোগ নেয়া হবে। তিনি আরো বলেন, এমএফএফে অন্তর্ভুক্ত করা হবে একটি প্রণোদনা প্যাকেজ, যা ইউনিয়নের মধ্যে সমন্বয় সাধন করবে। একই সঙ্গে প্যাকেজ সদস্য দেশগুলোর মধ্যে সংহতি দায়িত্ব বজায় রাখবে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে চুক্তির আওতাধীন কোনো ধরনের বিকল্প উপায়ই বাদ রাখা হবে না।

গত মাসে ইইউর নেতারা আসন্ন সাত বছর (২০২১-২০২৭) মেয়াদি বাজেট পরিকল্পনার সম্প্রসারণ নিয়ে মতৈক্যে পৌঁছতে ব্যর্থ হন। কোন খাতে কী পরিমাণ বরাদ্দ হবে, তা নিয়ে তাদের মধ্যে মতদ্বৈধতা সৃষ্টি হয়। তবে এর পর থেকেই করণীয় নিয়ে আলোচনা চলমান ছিল। বিশেষ করে নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতিতে তারা অঞ্চলটির ভবিষ্যৎ অর্থনীতি নিয়ে দুশ্চিন্তার মধ্যে রয়েছেন। এরই মধ্যে ইউরোপে ব্যাপক মাত্রায় কভিড-১৯-এর সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। পুরো বিশ্বের মধ্যে অঞ্চলেই রোগটিতে মারা গেছে দুই-তৃতীয়াংশ। এর মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা ইতালির।

পরিস্থিতিতে বহু রাজনৈতিক নেতারই অর্থনীতিসংক্রান্ত পূর্বপরিকল্পনা পাল্টে গেছে। চলতি বছরের শেষে মন্দায় নিমজ্জিত হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে পুরো ইউরোপীয় ব্লকের জন্য। কিন্তু গত বৃহস্পতিবারও ইইউর ২৭ নেতা এক ভিডিও কনফারেন্সে নভেল করোনাভাইরাস মহামারীর অর্থনৈতিক ক্ষতির প্রেক্ষাপটে করণীয় নিয়ে একমত হতে পারেননি। তারা ইউরোগ্রুপ ব্লকের জাতিগুলোকে -সংক্রান্ত প্রস্তাব নিয়ে আগামী মাসে ফের আলোচনার কথা বলেন।

ভন ডার লিয়েন বলেন, কমিশন ওই আলোচনায় অংশগ্রহণ করবে। একই সঙ্গে সহায়তার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হবে। তবে সেজন্য ইউরোগ্রুপের সহযোগিতা প্রয়োজন। এর বাইরে কমিশন সমান্তরালভাবে বর্তমান চুক্তির আওতায় ভাইরাস সংক্রমণের পরবর্তী সময়ে করণীয় বিষয়ে বিভিন্ন প্রস্তাব নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে।

নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণে ইউরোপে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ইতালি, স্পেন ফ্রান্স। তিনটি দেশেই সংক্রমণের হার দ্রুত বাড়ছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে অর্থনৈতিক ক্ষতি সমভাবে সামলানো এবং সংকট থেকে উত্তরণের জন্য চাপ বাড়ছে ইউরোপের ওপর। কিন্তু বিষয়ে নেদারল্যান্ডস জার্মানি ঠিক নিশ্চিত হতে পারছে না। তাদের ধারণা, প্রতিবেশী দেশগুলো সংকটের সুযোগ নিতে পারে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন