রবিবার | মে ৩১, ২০২০ | ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

শেয়ারবাজার

৪ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকের কারখানা

নিজস্ব প্রতিবেদক

করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে ২৯ মার্চ থেকে এপ্রিল পর্যন্ত পাঁচদিন সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে সরকার। এর সঙ্গে ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে সরকারি ছুটি চারদিন সাপ্তাহিক ছুটি মিলিয়ে মোট ছুটি ১০ দিনের। মূলত ভাইরাসটির সংক্রমণ যেন না বাড়ে, সে লক্ষ্যেই উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। সিদ্ধান্তের সঙ্গে সংগতি রেখে ১০ দিনের জন্য কারখানা বন্ধ রেখেছে স্ট্যান্ডার্ড সিরামিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। গত ২৫ মার্চ কোম্পানির ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেয়।

সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ২৬ মার্চ থেকে আগামী এপ্রিল পর্যন্ত স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকের কারখানা বন্ধ থাকবে। পরিস্থিতি অনুকূলে থাকলে এপ্রিল থেকে কোম্পানিটির কারখানায় ফের উৎপাদন শুরু হবে।

এর আগে পুরনো একটি চুল্লি সংস্কারের জন্য গত বছরের ১৪ আগস্ট থেকে ১৪ অক্টোবর পর্যন্ত দুই মাসের জন্য কারখানার একটি অংশ বন্ধ রাখে স্ট্যান্ডার্ড সিরামিক। সেই অংশটি আবার কারখানাটির মূল উৎপাদন অংশ ছিল। দুই মাস উৎপাদন বন্ধ থাকায় চলতি হিসাব বছরের প্রথম দুই প্রান্তিকেই শেয়ারপ্রতি লোকসান দেখতে হয়েছে কোম্পানিটিকে।

সর্বশেষ অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, চলতি হিসাব বছরের প্রথমার্ধে (জুলাই-ডিসেম্বর) স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকের শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে টাকা ৬০ পয়সা, যেখানে আগের হিসাব বছরের একই সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৮০ পয়সা। দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর-ডিসেম্বর) শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে টাকা ৫০ পয়সা, যেখানে আগের হিসাব বছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল ৪৩ পয়সা। প্রথম প্রান্তিকে কোম্পানিটির (জুলাই-সেপ্টেম্বর) শেয়ারপ্রতি লোকসান ছিল টাকা ১০ পয়সা।

৩০ জুন সমাপ্ত ২০১৯ হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে স্ট্যান্ডার্ড সিরামিক। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে টাকা ৫৬ পয়সা, আগের হিসাব বছরে যা ছিল টাকা ৫৮ পয়সা। ৩০ জুন কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়ায় ১৬ টাকা ৩৭ পয়সা, আগের হিসাব বছর শেষে যা ছিল ১৪ টাকা ৯৬ পয়সা।

সর্বশেষ রেটিং অনুযায়ী, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকের ঋণমান দীর্ঘমেয়াদে ট্রিপল বি স্বল্পমেয়াদে এসটি-থ্রি ২০১৮ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনের ভিত্তিতে প্রত্যয়ন করেছে ন্যাশনাল ক্রেডিট রেটিংস লিমিটেড (এনসিআর)

২০১৮ হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল স্ট্যান্ডার্ড সিরামিক। ২০১৭ হিসাব বছরে কোনো লভ্যাংশ দেয়নি তারা। ২০১৬ ২০১৫ হিসাব বছরে ১০ শতাংশ হারে নগদ লভ্যাংশ পেয়েছিলেন কোম্পানিটির শেয়ারহোল্ডাররা।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) কোম্পানিটির শেয়ার সর্বশেষ ৩০৭ টাকা ৯০ পয়সায় লেনদেন হয়েছে। গত এক বছরে শেয়ারটির দর ১৪৩ টাকা ২০ পয়সা থেকে ৭৫৯ টাকার মধ্যে ওঠানামা করেছে।

১৯৯৬ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির অনুমোদিত মূলধন ১০ কোটি টাকা। পরিশোধিত মূলধন কোটি ৪৬ লাখ ১০ হাজার টাকা। রিজার্ভে রয়েছে কোটি ৬৫ লাখ ৩০ হাজার টাকা। কোম্পানিটির মোট শেয়ার সংখ্যা ৬৪ লাখ ৬০ হাজার ৬৫০। এর ২৮ দশমিক শতাংশ রয়েছে উদ্যোক্তা-পরিচালকদের হাতে। এছাড়া দশমিক শতাংশ শেয়ার প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী বাকি ৬৫ শতাংশ সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে রয়েছে। সর্বশেষ নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন বাজারদরের ভিত্তিতে শেয়ারের মূল্য আয় অনুপাত ১৯৭ দশমিক ৩৭।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন