রবিবার | মে ৩১, ২০২০ | ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

পণ্যবাজার

নভেল করোনাভাইরাস

শস্য রফতানি বন্ধের পরিকল্পনা নেই ইউক্রেনের

বণিক বার্তা ডেস্ক

বিশ্বের শীর্ষ শস্য ভোজ্যতেল রফতানিকারক দেশগুলোর মধ্যে ইউক্রেন অন্যতম। নভেল করোনাভাইরাসের প্রকোপে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ যখন শস্য রফতানি স্থগিত করে অভ্যন্তরীণ মজুদে মন দিয়েছে, তখন ইউক্রেন শুনিয়েছে ভিন্ন কথা। দেশটির অর্থনৈতিক উন্নয়ন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী তারাস ভিসোতস্কি সম্প্রতি জানিয়েছেন, মহামারীর মধ্যে শস্য রফতানি বন্ধের কোনো পরিকল্পনা নেই দেশটির। খবর রয়টার্স বিজনেস রেকর্ডার।

ইউক্রেনের প্রতিবেশী দেশ রাশিয়া বিশ্বের শীর্ষ শস্য রফতানিকারক দেশ। গত ২৩ মার্চ থেকে পরবর্তী ১০ দিন দেশটি সব ধরনের শস্য রফতানি বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে। পরবর্তী পরিস্থিতি পর্যালোচনাসাপেক্ষে ১০ দিন পর বিষয়ে নতুন সিদ্ধান্ত আসতে পারে বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে রাশিয়ার ফেডারেল সার্ভিস ফর ভেটেরিনারি অ্যান্ড ফাইটোস্যানিটারি সার্ভিল্যান্স। তবে মুহূর্তে ইউক্রেনের শস্য রফতানিতে কোনো ধরনের সীমা টানা হবে না বলে জানিয়েছেন দেশটির উপ-অর্থমন্ত্রী।

ইউক্রেনকে বলা হয়ে থাকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) শস্যভাণ্ডার। প্রতি বছরের জুলাই থেকে দেশটিতে নতুন শস্য মৌসুম শুরু হয়। শেষ হয় পরের বছরের জুনে। চলতি ২০১৯-২০ শস্য মৌসুমের শুরু থেকে পর্যন্ত দেশটি থেকে সব মিলিয়ে কোটি ৫০ হাজার টন শস্য আন্তর্জাতিক বাজারে রফতানি হয়েছে, আগের মৌসুমের একই সময়ের তুলনায় যা ২০ শতাংশ বেশি। ইউক্রেনের অর্থ মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, চলতি মৌসুমে মোট কোটি ২০ লাখ থেকে কোটি ৫০ লাখ টন পর্যন্ত শস্য রফতানির প্রত্যাশা করছে দেশটি।

ভোজ্য তেলের মধ্যে সূর্যমুখী তেল রফতানির বৈশ্বিক শীর্ষ দেশগুলোর তালিকায় ইউক্রেনের অবস্থান প্রথম। চলতি মৌসুমে দেশটি থেকে ভোজ্য তেলটির রফতানিতে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা বজায় রয়েছে। দেশটির কৃষি কনস্যালট্যান্সি এপিকে ইনফর্মের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯-২০ মৌসুমের (আগস্ট-সেপ্টেম্বর) শুরু থেকে পর্যন্ত দেশটি থেকে পণ্যটির রফতানি আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ৭২ দশমিক শতাংশ বেড়েছে।

প্রতিষ্ঠানটির তথ্যমতে, চলতি মৌসুমে এরই মধ্যে ইউক্রেন থেকে সমুদ্রপথে সব মিলিয়ে ২৮ লাখ ৭৮ হাজার টন সূর্যমুখী তেল আন্তর্জাতিক বাজারে রফতানি করা হয়েছে। আগের মৌসুমের একই সময়ে ভোজ্য তেলটি রফতানির পরিমাণ ছিল ১৬ লাখ ৭১ হাজার টন। সে হিসাবে এক বছরের ব্যবধানে দেশটি থেকে সূর্যমুখী তেলের রফতানি ১২ লাখ হাজার টন বেড়েছে।

তবে চলতি মৌসুমে প্রতিকূল আবহাওয়ার জেরে ইউক্রেনের শস্য উৎপাদনে মন্দা দেখা দিতে পারে। দেশটির জাতীয় গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইএই পূর্বাভাস করেছে, আগের বছরের তুলনায় এবার দেশটিতে শস্য উৎপাদনের পরিমাণ ১০ দশমিক শতাংশ কমে কোটি ৭৪ লাখ টনে নামতে পারে। ২০১৯ সালে দেশটি মোট সাড়ে সাত কোটি টন শস্য উৎপাদন করে রেকর্ড করেছিল।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন