রবিবার | জুলাই ১২, ২০২০ | ২৮ আষাঢ় ১৪২৭

খবর

কভিড-১৯ মোকাবেলায় প্রস্তুতির ঘাটতি নিয়ে আ.লীগে অসন্তোষ

তানিম আহমেদ

করোনাভাইরাস মোকাবেলায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রস্তুতির ঘাটতি নিয়ে ক্ষুব্ধ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় ও তৃণমূলের নেতাকর্মীরা। তারা বলছেন, প্রস্তুতি নিয়ে এ মন্ত্রণালয়ের অবহেলাই আতঙ্ক ও আশঙ্কায় ফেলেছে দেশবাসীকে।

দল ও সহযোগী এবং ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা ফেইসবুকসহ অনলাইনের বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্বরাষ্ট্র, পররাষ্ট্র এবং বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীদের পাশাপাশি কর্মকর্তাদেরও কড়া সমালোচনা করছেন। শুধু তাই নয়, এমন পরিস্থিতিতে মন্ত্রীদের ‘লাগামহীন কথাবার্তায়’ বিরক্ত ও বিব্রত তারা। বর্তমান পরিস্থিতির জন্য আমলাদেরও দায়ী করছেন তারা।

নাম প্রকাশে কয়েকজন সম্পাদকমণ্ডলীর কয়েকজন নেতা বলেন, এরা আসলে লুটপাট করতে এসেছে, আওয়ামী লীগকে বদনামের ভাগীদার করতে চায় এরা।

সম্পাদকমণ্ডলীর দুই জন সদস্য বলেন, এরা দায়িত্বশীল হবে কী করে! এরা তো রাজনীতি করে সংসদ সদস্য হয়নি। মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন কয়েকজন আছেন রাজনীতি না করেও আজকে এ অবস্থায় এসেছেন।

তারা বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণলায়সহ সংশ্লিষ্ট অন্য মন্ত্রণালয়গুলো পর্যাপ্ত সময় পেয়েছে প্রস্তুতি নিয়ে রাখার। কিন্তু বিষয়টি অবহেলা করতে গিয়ে এবং আমলে না নেয়ায় আজকে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

তারা আরো বলেন, বিশ্বের আক্রান্ত অন্য দেশগুলোর চেয়ে প্রস্তুতি নেয়ার সময় বাংলাদেশই বেশি পেয়েছে। কিন্তু বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র এবং স্বরাষ্ট মন্ত্রণালয়ও দায়ী এ অবহেলায়। বৈশ্বিক পরিস্থিতি আমলে নিয়ে এই মন্ত্রণালয়গুলো যৌথভাবে একটি সিদ্ধান্ত নিলে আজ এই পরিস্থিতিতে পড়তে হতো না দেশের মানুষকে।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর এক সদস্য বলেন, আজকে দেশে পর্যাপ্ত পরীক্ষাগার, কিট নেই। নেই ডাক্তারদের ব্যক্তিগত সুরক্ষার সরঞ্জাম (পিপিই)। এগুলো শুধু অবহেলার কারণেই ঘটেছে।

আর্থিক সঙ্কট এসবের জন্য দায়ী নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, স্বাস্থ্য, বিমান ও পর্যটন এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আগে থেকেই যৌথ মিটিং করে প্রস্তুতি নিয়ে রাখলে আজকে এ আতঙ্ক তৈরি হতো না।  তাদের অবহেলাই আজকের পরিস্থিতির জন্য দায়ী। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ারও দাবী জানান তিনি।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর আরেক সদস্য বলেন, যে পরিস্থিতি দাঁড়িয়েছে তাতে আমরা কেউ ঝুঁকিমুক্ত নই। আমাদের পরিবার-পরিজন সবাই ঝুঁকিতে। প্রস্তুতি নিতে ঘাটতি ছিল বলেই দুরবস্থায় পড়েছি আমরা। আজকে যে প্রস্তুতি নিতে হচ্ছে এগুলো আগে থেকেই নিয়ে রাখা হলে আমরা নিরাপদ থাকতাম।

তবে আজ শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, এটা সত্য যে এই (করোনাভাইরাস) যুদ্ধ আসবে বা এই যুদ্ধ মোকাবেলার প্রস্তুতি পৃথিবীর কোনো দেশেরই ছিল না। আমাদেরও ছিল না। এখানে এখনও আতঙ্কিত হওয়ার মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়নি। অহেতুক গুজব থেকে বিরত থাকতে হবে। সরকারের আন্তরিকতা ও স্বদিচ্ছার কোনো অভাব নেই।

সাধারণ মানুষ করোনাভাইরাস পরীক্ষা করতে পারছে না বলে যে অভিযোগ উঠেছে সে বিষয়ে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, কিছু কিছু দুর্বলতা ছিল তা কাটিয়ে উঠতে চেষ্টা করা হচ্ছে। একই সঙ্গে করোনাভাইরাস পরীক্ষা করার সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য সরকার জোরদার চেষ্টা করছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন