মঙ্গলবার| এপ্রিল ০৭, ২০২০| ২২চৈত্র১৪২৬

শিল্প বাণিজ্য

ডরিন পাওয়ারের ঋণমান ‘ডাবল এ’ ও ‘এসটি-টু’

নিজস্ব প্রতিবেদক

ডরিন পাওয়ার জেনারেশনস অ্যান্ড সিস্টেমস লিমিটেডের ঋণমান দীর্ঘমেয়াদে ডাবল স্বল্পমেয়াদে এসটি-টু ২০১৯ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত নিরীক্ষিত ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনসহ হালনাগাদ প্রাসঙ্গিক অন্যান্য তথ্যের ভিত্তিতে প্রত্যয়ন করেছে ক্রেডিট রেটিং ইনফরমেশন অ্যান্ড সার্ভিসেস লিমিটেড (সিআরআইএসএল)

চলতি হিসাব বছরের প্রথমার্ধে (জুলাই-ডিসেম্বর) ডরিন পাওয়ারের সম্মিলিত শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে টাকা ৩১ পয়সা, আগের হিসাব বছরের একই সময়ে যা ছিল টাকা ৪৩ পয়সা। দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর-ডিসেম্বর) সম্মিলিত ইপিএস হয়েছে টাকা ১৬ পয়সা, আগের হিসাব বছরের একই সময়ে যা ছিল টাকা ২৫ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর কোম্পানিটির সম্মিলিত শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ৪১ টাকা ৯১ পয়সা (সম্পদ পুনর্মূল্যায়নের পর)

এদিকে ৩০ জুন সমাপ্ত ২০১৯ হিসাব বছরে কোম্পানিটির সম্মিলিত ইপিএস হয়েছে টাকা ৯১ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল টাকা ১৪ পয়সা। ৩০ জুন সম্মিলিত এনএভিপিএস দাঁড়ায় ৪৪ টাকা ১৯ পয়সা (পুনর্মূল্যায়িত), যা আগের হিসাব বছর শেষে ছিল ৩৬ টাকা ৬৮ পয়সা। সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য কোম্পানিটি উদ্যোক্তা-পরিচালক বাদে সাধারণ শেয়ারহোল্ডারদের ১৭ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ সব ধরনের শেয়ারহোল্ডারদের ১৩ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দিয়েছে।

২০১৮ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরে শেয়ারহোল্ডারদের মোট ২৫ শতাংশ লভ্যাংশ দেয় ডরিন পাওয়ার। এর মধ্যে সব ধরনের শেয়ারহোল্ডার পেয়েছেন ১০ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ। আর ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ছিল উদ্যোক্তা-পরিচালক বাদে সাধারণ শেয়ারহোল্ডারদের জন্য।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ডরিন পাওয়ারের শেয়ার সর্বশেষ ৫৭ টাকা ১০ পয়সায় লেনদেন হয়েছে। গত এক বছরে শেয়ারটির দর ৪৯ টাকা ৯০ পয়সা থেকে ৮৮ টাকা ২০ পয়সার মধ্যে ওঠানামা করেছে।

২০০৮ সালের নভেম্বরে বিদ্যুৎ উৎপাদনের মাধ্যমে ডরিন পাওয়ার জেনারেশনস অ্যান্ড সিস্টেমস লিমিটেডের যাত্রা শুরু হয়। ২০১০ সালে ৫৫ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন নর্দার্ন সাউদার্ন বিদ্যুেকন্দ্র দুটির বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু হয়। কোম্পানিটি ২০১৬ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়।

বর্তমানে কোম্পানিটির অনুমোদিত মূলধন ২০০ কোটি টাকা। পরিশোধিত মূলধন ১৩১ কোটি ২৬ লাখ ১০ হাজার টাকা। রিজার্ভে রয়েছে ৩৪৫ কোটি ৮৮ লাখ টাকা। কোম্পানির মোট শেয়ার সংখ্যা ১৩ কোটি ১২ লাখ ৬০ হাজার ৮০০। এর মধ্যে উদ্যোক্তা-পরিচালকদের কাছে রয়েছে ৬৬ দশমিক ৬১ শতাংশ শেয়ার। এছাড়া ১৯ দশমিক ৮৭ শতাংশ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী, দশমিক শূন্য শতাংশ বিদেশী বিনিয়োগকারী বাকি ১৩ দশমিক ৪৫ শতাংশ শেয়ার সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে রয়েছে।

সর্বশেষ নিরীক্ষিত ইপিএস বাজারদরের ভিত্তিতে শেয়ারটির মূল্য আয় অনুপাত বা পিই রেশিও দশমিক ১৬, অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনের ভিত্তিতে যা দশমিক ৬৩।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন