শনিবার | জুলাই ১১, ২০২০ | ২৭ আষাঢ় ১৪২৭

খবর

চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ড

মিটিং থেকে করোনা ঝুঁকিতে কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শিক্ষক

নিজস্ব প্রতিবেদক চট্টগ্রাম ব্যুরো

সৌদি আরব থেকে ওমরাহ করে এসে গত মঙ্গলবার নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন কক্সবাজারের এক নারী ওই নারীর সন্তান (পেশায় তিনি কক্সবাজার সরকারি কলেজের শিক্ষক) তার সংস্পর্শ থেকে এসে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের এক মিটিংয়ে অংশ নেন এতে মিটিংয়ে থাকা চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের কর্মকর্তা, ১৬ জন শিক্ষক এবং কর্মচারীরা এখন করোনাভাইরাসের ঝুঁকিতে রয়েছেন

চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর অনুষ্ঠেয় এইচএসসি পরীক্ষার কক্সবাজার অঞ্চলের বিভিন্ন কেন্দ্রের কর্মকর্তাদের নিয়ে গত রোববার একটি মিটিং অনুষ্ঠিত হয় মিটিংয়ে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রদীপ চক্রবর্তী, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক নারায়ণ চন্দ্র নাথ, কলেজ পরিদর্শক জাহেদুল হক এবং কক্সবাজার অঞ্চলের বিভিন্ন কলেজের অধ্যক্ষ-উপাধ্যক্ষ মিলিয়ে ১৬ জন অংশ নেন ওই মিটিংয়ে উপস্থিত ছিলেন করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সন্তানও

কক্সবাজারের এই শিক্ষকের মা এবং ছোট ভাই ওমরাহ শেষে ১৩ মার্চ চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দর দিয়ে বাংলাদেশে আসেন সেদিন তিনি নগরীর চান্দগাঁও আবাসিক এলাকায় তার আরেক সন্তানের বাসায় যান পরদিন তিনি কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার খুটাখালীতে তার বাড়িতে চলে যান গত মঙ্গলবার তার করোনা আক্রান্তের বিষয়টি প্রকাশ পায় কক্সবাজারের ওই নারীকে চিকিসাসেবা দেয়া চিকিসক এবং নার্সদের হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই শিক্ষক বণিক বার্তাকে বলেন, রোববার আমার মাকে হাসপাতালে ভর্তি করে তিনি চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে এসে বৈঠকে যোগ দেন তবে মায়ের সঙ্গে তেমন সংস্পর্শে আসিনি এমনকি করোনা শনাক্ত হওয়ার পরে আমি তার সংস্পর্শেও যায়নি এখন আমি হোম কোয়ারেন্টিনে আছি

তবে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক নারায়ণ চন্দ্র নাথ জানান, এই শিক্ষক তার মায়ের অসুস্থতার বিষয়টি আমাদের জানাননি বিষয়টি জানা থাকলে তাকে মিটিংয়ে আসতে নিষেধ করতাম আর মিটিং রুমে সবাই দূরত্ব নিশ্চিত করে অবস্থান করেছেন

চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রদীপ চক্রবর্তী বলেন, মিটিংয়ে যারা এসেছিলেন, তাদের সবাইকে রুমে প্রবেশের আগে সাবান, হ্যান্ডওয়াশ স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধোয়ানো হয়েছে ওই শিক্ষকের মা যে অসুস্থ, আমরা সেটা জানতাম না মিটিংয়ের আগে তো এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিতের নির্দেশনা দেয়া হয়নি

সেজন্য আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম সেদিন আমাদের অনেকগুলো মিটিং ছিল পরে বিকালের মিটিংগুলো বাতিল করা হয় সে সময়ে আমরা যারা উপস্থিত ছিলাম, তাদের সবাইকে এখন কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে

প্রসঙ্গে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন সেখ ফজলে রাব্বী বণিক বার্তাকে বলেন, করোনা ভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পরে আক্রান্তের দুই ছেলের দুটি ভবন আমরা লকডাউন করেছি কক্সবাজার কলেজের শিক্ষক আক্রান্ত নন আমরা তাদের সঙ্গে যারা সংস্পর্শে গেছেন, তাদের সবাইকে আপাতত হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে পরামর্শ দিচ্ছি

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন