রবিবার| এপ্রিল ০৫, ২০২০| ২০চৈত্র১৪২৬

টেলিকম ও প্রযুক্তি

ইতালিতে ফেসবুকে গ্রুপকল বেড়েছে হাজারগুণ

বণিক বার্তা অনলাইন

নভেল করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে অবরুদ্ধ জীবনযাপন করছে ইতালির কয়েক কোটি বাসিন্দা। তাদের ঘরে বসে সময় কাটানোর অভিনব সব ছবি ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘুরে বেড়াচ্ছে। সেইসঙ্গে ফেসবুকে গ্রুপকলের জোয়ার বইয়ে দিয়েছেন ইতালীয়রা।

গতমাসের হিসাবে, ইতালিতে গ্রুপকলের পরিমাণ বেড়েছে হাজার গুণেরও বেশি। সোশ্যাল মিডিয়া জায়ান্ট ফেসবুক বলেছে, এর সমস্ত প্ল্যাটফর্মগুলোতে মোট মেসেজিং ট্রাফিক ৫০ শতাংশেরও বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে। সেইসঙ্গে গ্রুপ কলের (তিন বা ততোধিক ব্যবহারকারী) সময়ও প্রায় ৭০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপ হোয়াটসঅ্যাপের পাশাপাশি ইনস্টাগ্রামও ফেসবুকের মালিকানাধীন।

তবে সংস্থাটির ব্যবহারকারী ও ব্যবহার বাড়লেও বিশ্বব্যাপী ডিজিটাল বিজ্ঞাপনে প্রত্যাশিত লাভ তারা পাচ্ছে না। কেননা মহামারীর এ সময়ে প্রায় সমস্ত বিজ্ঞাপনদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর ত্রাহী অবস্থা।

মঙ্গলবার একটি পোস্টে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ লিখেছে, আমরা যেখানে অনেক বেশি ব্যস্ততা দেখছি সেখানে কোনো কনটেন্ট বা সার্ভিস মনেটাইজ করছি না। তবে যেখানে প্রয়োজন সেখানে সতর্কতার সঙ্গে তদারকি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ফেসবুক অ্যানালাইটিক্স  ভাইস- প্রেসিডেন্ট অ্যালেক্স শুলজ এবং প্রকৌশল বিভাগের ভাইস- প্রেসিডেন্ট জয় পারেখ। কিন্তু এটা তাদের জন্য দিন দিন কঠিন হয়ে পড়ছে। প্রতিদিন তারা নতুন নতুন রেকর্ডর সম্মুখীন হচ্ছেন।

এদিকে ইন্টারনেট পরিষেবা সরবরাহকারীদের ওপর চাপ কমাতে ফেসবুক ইউরোপে ভিডিওর মান কমিয়েছে। ইউটিউব, অ্যামাজন, অ্যাপল টিভি + এবং নেটফ্লিক্সসহ প্রায় সব স্ট্রিমিং প্রতিষ্ঠানই তাদের ভিডিওর বিটরেট কমিয়েছে। প্রচুর মানুষ এখন ঘরে অবস্থান করছে। তাদের সময় কাটানোর প্রধান মাধ্যমে পরিণত হয়েছে ইন্টারনেট। ফলে স্ট্রিমিং সার্ভিসের ব্যবহার বেড়েছে। এতে বাসায় বসে অফিসের কাজ করা, শিশুরা অনলাইনের পড়াশোনার করছে বা অন্যান্য জরুরি পরিষেবার কাজে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে গিয়ে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। ব্রেডব্যান্ডের ওপর এই বাড়তি চাপ কমাতেই ভিডিওর মান কমিয়ে দিচ্ছে স্ট্রিমিং প্রতিষ্ঠানগুলো।

সূত্র: বিবিসি

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন