রবিবার | সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২০ | ১২ আশ্বিন ১৪২৭

আন্তর্জাতিক খবর

কভিড-১৯

প্রাদুর্ভাবের নতুন কেন্দ্রস্থল হয়ে উঠছে যুক্তরাষ্ট্র

বণিক বার্তা অনলাইন

ইউরোপের পর নভেল করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের নতুন কেন্দ্রস্থল হয়ে উঠছে যুক্তরাষ্ট্র। সারা বিশ্বে আক্রান্ত ও মৃতের পরিসংখ্যান বিচার করে এমন সম্ভাবনার কথাই জানাচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। গত ২৪ ঘণ্টায় ইউরোপ-যুক্তরাষ্ট্রে নতুন আক্রান্তের মধ্যে ৪০ শতাংশই যুক্তরাষ্ট্রের বাসিন্দা।

জেনেভায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মুখপাত্র মার্গারেট হ্যারিস জানিয়েছেন, আমেরিকায় সংক্রমণের হার ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকেল পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় ৮৫ শতাংশ নতুন আক্রান্তই ইউরোপ ও  যুক্তরাষ্ট্রে। তার মধ্যে আবার শুধু  যুক্তরাষ্ট্রেই ৪০ শতাংশ। মার্গারেট বলেন, ‘এখন আমরা দেখতে পাচ্ছি, যুক্তরাষ্ট্রে ব্যাপক হারে সংক্রমণ বাড়ছে। তাই প্রাদুর্ভাবের নতুন কেন্দ্রস্থল ওঠার যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে।’

যুক্তরাষ্ট্রে গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় শতাধিক প্রাণহানি ঘটেছে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্তের হয়েছেন ৫৫ হাজার ৪১ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭৮২ জনের। চিকিৎসায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩৭৮ জন। তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত নিউইয়র্ক, নিউ জার্সি, ক্যালিফোর্নিয়া, ওয়াশিংটনের মতো প্রদেশ।

এদিকে নিউইয়র্কে বুলেট ট্রেনের গতিতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে পারে বলে সতর্ক করেছেন গভর্নর এন্ড্রু কুমো। সেইসাথে চিকিৎসা সামগ্রীর স্বল্পতার কথাও বলেন তিনি। যেখানে ভেন্টিলেটার প্রয়োজন ৩০ হাজার সেখানে আছে মাত্র ৭ হাজার। এখনই ব্যবস্থা না নিলে নিউইয়র্ক চীনের উহান বা ইতালির লস্বর্ডিতে পরিণত হতে বেশি সময় নেবে না। এরইমধ্যে নিউইয়র্কে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ২৫ হাজার ও মারা গেছেন ২১০ জন। 

যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে ২০ জানুয়ারি। তার পর থেকে অল্প সংখ্যায় বাড়ছিল। গত ১৭ মার্চ পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ছিল মাত্র ১০০। কিন্তু সেখান থেকে গত সপ্তাহে লাফিয়ে বাড়তে শুরু করে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। আচমকা এক সপ্তাহের মধ্যে মৃতের সংখ্যা ১০০ থেকে প্রায় ৮০০ হয়ে যাওয়ায় কারণেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এই আশঙ্কা বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য একাধিক প্রদেশে লকডাউন জারি হয়েছে। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বাসিন্দাদের ঘরে থাকার অহ্বান জানিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, খাবার-সহ অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের জোগান স্বাভাবিক রাখার সব রকম চেষ্টা চলছে।

এত দিন পর্যন্ত ইউরোপকেই মূলত করোনা সংক্রমণের কেন্দ্র বলে মনে করা হচ্ছিল। তার মধ্যে আবার শীর্ষে ছিল ইটালি। তবে সেখানে এখন নতুন সংক্রমণ ও মৃতের সংখ্যা কিছুটা কমেছে। মার্গারেট বলেন, ‘ইটালিতে কিছুটা আশার আলো দেখা যাচ্ছে। গত দু’দিনে নতুন আক্রান্ত এবং মৃতের সংখ্যা কিছুটা কমেছে।’


সূত্র: বিবিসি ও আনন্দবাজার পত্রিকা

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন