সোমবার | মে ২৫, ২০২০ | ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

আন্তর্জাতিক খবর

দিল্লি সহিংসতা

নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩২, নিরবতা ভেঙে মোদির টুইট

বণিক বার্তা অনলাইন

বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন (সিএএ) নিয়ে ভারতের রাজধানী দিল্লিতে গেল রোববার থেকে শুরু হওয়া সহিংসতা চলছেই। সহিংসতার ঘটনায় আজ বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩২ জনে। এছাড়া আহত হয়েছেন প্রায় দুই শতাধিক।

আজ সকালেও গুরু তেজ বাহাদুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় একজনের মৃত্যু হয়েছে বলে ভারতীয় সংবাদ সংস্থা এএনআই। ইতোমধ্যে আহত ও নিহতদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ প্রদানের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। নিহতদের দুই লাখ টাকা সরকারি ক্ষতিপূরণ ও আহতদের ৫০ হাজার টাকা দেয়ার ঘোষণা দেয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

সংঘর্ষের ঘটনায় ১৮টি মামলা করেছে দিল্লি পুলিশ, গ্রেফতার করা হয়েছে ১০৬ জনকে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এসেছে বলে দাবি দিল্লি পুলিশের। গতকাল বুধবার শহরের বিভিন্ন আক্রান্ত অঞ্চল পরিদর্শন করেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল।

গতকাল বুধবার উসকানিমূলক ভাষণ দেওয়ার জন্য বিজেপির চার নেতার বিরুদ্ধে পুলিশকে মামলা দায়ের করতে বলেছেন দিল্লি হাইকোর্ট। এদের মধ্যে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর, স্থানীয় নেতা কপিল মিশ্রও রয়েছেন। উচ্চ আদালতের বিচারপতি এস মুরলিধর বলেন, আদালত আরো একটি ১৯৮৪-র মতো পরিস্থিতি হতে দিতে পারে না। 

এদিকে গতকাল নীরবতা ভেঙে পরিস্থিতি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে টুইট করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিনি টুইটে লেখেন, ‘আমার ভাই ও বোনেদের দিল্লিতে শান্তি ও সৌভ্রাতৃত্ব বজায়ের আবেদন জানাচ্ছি।’ পুলিশ ও অন্য এজেন্সি মিলে এলাকার শান্তি ফেরানোর কাজ করছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল অশান্ত এলাকা ঘুরে দেখবেন বলে জানানো হয়েছে। তিনি গণমাধ্যমে বলেছেন, ‘দিল্লির কাছে এখন দুটো অপশন রয়েছে। হয় মানুষ একজোট হয়ে পরিস্থিতির উন্নতি ঘটাতে সাহায্য করুক। অথবা একে অপরকে আঘাত করে হত্যা করুক।’

তবে বুধবার রাতের পর থেকে আর নতুন করে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেনি। বর্তমানে সহিংসতার স্থানগুলোয় বিপুল পরিমাণে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পাশাপাশি মোতায়েন করা হয়েছে আধা সামরিক বাহিনী।

এরই মধ্যে সহিংসতা দমনে ব্যর্থ হওয়ায় ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের পদত্যাগ দাবি করেছেন বিরোধী দলের নেত্রী সোনিয়া গান্ধী। সোনিয়া গান্ধী পুরো সহিংসতার জন্য অমিত শাহকে দায়ী করেন। অন্যদিকে উদ্ভূত পরিস্থিতি খুবই উদ্বেগজনক বলে মন্তব্য করেছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। পাশাপাশি তিনি সেনাবাহিনী মোতায়েনেরও দাবি জানিয়েছেন।

সূত্র: এনডিটিভি

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন