বৃহস্পতিবার| এপ্রিল ০২, ২০২০| ১৮চৈত্র১৪২৬

শেষ পাতা

১৭ মার্চ থেকে ডাকঘর সঞ্চয়ে সুদহার ১১.২৮% : অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশের ডাকঘরগুলোর অটোমেশন সম্পন্নের পর আগামী ১৭ মার্চ থেকে ডাকঘর সঞ্চয় স্কিমের সুদহার ১১ দশমিক ২৮ শতাংশে ফিরিয়ে নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। গতকাল সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী এ তথ্য জানান। ১৩ ফেব্রুয়ারি অর্থ মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের এক পরিপত্রে ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের সুদহার সরকারি ব্যাংকের সুদহারের সমপর্যায়ে নিয়ে আসা হয়।

ডাকঘর সঞ্চয় স্কিমের সুদহার কমানোর কারণ হিসেবে অর্থমন্ত্রী বলেন, একটা সময় দেখলাম, সবাই চলে যাচ্ছেন পোস্ট অফিসে। এটি বন্ধ করতে হলে বলতে হবে ইন্টারেস্ট নেই। ব্যাংকের মাধ্যমে সঞ্চয়পত্রের ক্ষেত্রে অটোমেশন সম্পন্ন হয়েছে। তাই এখানে সেভিংসের অপব্যবহারের সুযোগ নেই। কিন্তু পোস্ট অফিসে অটোমেশন না থাকায় এটির অপব্যবহারের সুযোগ আছে। এজন্য সুদহার বেশি হওয়ায় অনেক ধনী এখানে এসেছেন। তাই সাময়িকভাবে এ স্কিমে সুদহার কমানো হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ১৭ মার্চ অটোমেশন শেষ হলে ডাকঘর সঞ্চয় স্কিমের সুদহার আগের মতো ১১ দশমিক ২৮ শতাংশে ফিরে যাব আমরা। এ সিদ্ধান্ত প্রথম পর্যায়ে বাস্তবায়ন হবে জেলা পর্যায়ে, এরপর উপজেলা পর্যায়ে। ডাকঘর স্কিমে সুদহার ১১ দশমিক ২৮ শতাংশে ফিরে যাবে পোস্ট অফিসের অটোমেশন হয়ে গেলে। অটোমেশন প্রক্রিয়ার পর ডাকঘর সঞ্চয় স্কিম ২ লাখ টাকার বেশি হলে তাদের পরিচয় নিশ্চিত করতে টিআইএন বাধ্যতামূলক করা হবে। অপব্যবহার বন্ধে এ উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।

উল্লেখ্য, ১৩ ফেব্রুয়ারি অর্থ মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের এক পরিপত্রে ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের সুদহার সরকারি ব্যাংকের সুদহারের সমপর্যায়ে নিয়ে আসা হয়। পরিপত্র অনুযায়ী, ডাকঘরের সঞ্চয় স্কিমের মেয়াদি হিসাব ও সাধারণ হিসাবের সুদহার কমানো হয়। সাধারণ হিসাবের ক্ষেত্রে সুদহার সাড়ে ৭ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ করা হয়েছে।

গতকাল সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটিতে সাতটি ক্রয় প্রস্তাবের অনুমোদন দেয়া হয়েছে জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, এর মধ্যে সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তরের আওতায় টোল প্লাজা অটোমেশন প্রকল্প রয়েছে। ধলেশ্বরীতে কম্পিউটারাইজড টোল প্লাজার ভ্যারিয়েশন প্রকল্পটির ব্যয় ৮ কোটি ১৯ লাখ ৯৫ হাজার টাকা বাড়ানো হয়েছে। সব মিলিয়ে এতে ব্যয় হবে ৩৬ কোটি ১০ লাখ টাকা। টোল আদায় ব্যবস্থা সারা বিশ্বেই প্রচলিত আছে। টোল না নিলে আমরা যে রাস্তাঘাট করছি তা রক্ষণাবেক্ষণ করা কঠিন হয়ে যাবে।

বৈঠকে যাত্রাবাড়ী থেকে ডেমরা মহাসড়ক চার লেন করতে একটি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়। অর্থমন্ত্রী বলেন, যাত্রাবাড়ী (মেয়র হানিফ ফ্লাইওভার)-ডেমরা (সুলতানা কামাল সেতু) মহাসড়ক চার লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্পে পূর্তকাজ সম্পাদনের জন্য সর্বনিম্ন দরদাতা প্রতিষ্ঠান তমা কনস্ট্রাকশন কাজ পাচ্ছে। এতে ব্যয় হবে ৩৩২ কোটি ১২ লাখ ৬৩ হাজার টাকা।

গতকালের বৈঠকে অনুমোদিত অন্যান্য প্রস্তাবের মধ্যে আছে বিদ্যমান চুক্তির আওতায় সৌদি আরব থেকে সাড়ে চার লাখ টন ডিএপি সার আমদানি। ১ হাজার ৩২৯ কোটি ৫১ লাখ ৪২ হাজার ২২৫ টাকা ব্যয়ে এ সার আমদানি করা হবে। এছাড়া নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নাগরিক অবকাঠামো উন্নয়নে বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পের সম্ভাব্যতা যাচাই সমীক্ষা সম্পন্নকরণ এবং প্রকল্পের ড্রইং, ডিজাইন ও টেন্ডার ডকুমেন্ট প্রণয়নকাজের পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগের প্রস্তাবে অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৫০ কোটি ৯৩ লাখ ৮০ হাজার ৩৩০ টাকা।

সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ইন্দোনেশিয়ার বিএসপি থেকে ১৫৯ কোটি টাকা ব্যয়ে জরুরি চাহিদা পূরণের জন্য কম্বি পার্সেল গ্যাস অয়েল ১৫ হাজার ২৭২ টন ও ১৪ হাজার ৪০১ টন ডিজেল আমদানিতে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। এতে ব্যয় হবে ১৫৯ কোটি ১২ লাখ টাকা। ই-জিপি রিলেটেড ট্রেনিং কার্যক্রম বাস্তবায়নে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হিসেবে দোহাটেক নিউ মিডিয়াকে নিয়োগের চুক্তি স্বাক্ষর প্রস্তাবে অনুমোদন দেয়া হয়। এতে ব্যয় হবে ৪০ কোটি ১১ লাখ ৮৫ হাজার ২৬৩ টাকা।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন