শুক্রবার| এপ্রিল ০৩, ২০২০| ১৯চৈত্র১৪২৬

দেশের খবর

বগুড়ায় ‘আভ্যন্তরীণ কোন্দলে’ বিএনপি কর্মী খুন

বণিক বার্তা প্রতিনিধি, বগুড়া

বগুড়ায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই ভাইয়ের উপর হামলা চালিয়ে এক ভাইকে খুন অপর ভাইকে কুপিয়ে আহত করেছে দুর্বৃত্তরা। আজ বৃহস্পতিবার সকালে বগুড়া সদর উপজেলার দিঘলকান্দী মোড়ে করতোয়া নদীর পাশে একটি লিচুর বাগান থেকে নিহতের মৃতদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। আহত জনকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহত আপেল মাহমুদ (৩২) বগুড়া সদরের গোকুল ইউনিয়নের পলাশবাড়ি পূর্বপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল মান্নানের ছেলে। তিনি ইউনিয়ন বিএনপির সক্রিয় কর্মী। তার বড় ভাই আহত আল মামুন (৩৮) গোকুল ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ড বিএনপির সদস্য।

স্থানীয়রা বলছেন, বগুড়া সদর উপজেলার গোকুল ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক সভাপতি ও জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মিজানুর রহমান মিজানের সহযোগী সনি ২০১৮ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি খুন হন। সনি হত্যা মামলার আসামি মামুন। বিএনপি কর্মী সনি হত্যার জের ধরে এই হত্যাকাণ্ড ঘটে থাকতে পারে।

নিহতের পরিবারের সদস্যরা ও স্থানীয়রা জানান, আপেল ও তার বড় ভাই মামুন ছাগল ক্রয়-বিক্রয় করতো। বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় বাড়ি থেকে বের হয়ে বগুড়ার মহাস্থানে রওনা হয়। এসময় তাদের কে বা কারা মোবাইল ফোনে চন্ডিহারা ডেকে নিয়ে যায়। সেখানেই প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে দুই ভাই এর উপর হামলা করে।

এতে ঘটনা স্থলেই আপেল মাহমুদ নিহত হয় এবং আল মামুন গুরুত্বর আহত হয়। খবর পেয়ে পুলিশ সদস্যরা মৃতদেহ উদ্ধার করে এবং স্থানীয়দের সহযোগিতায় মামুনকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

স্থানীয়রা বলছেন, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারের জের ধরে ২০১৮ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি গোকুল হল বন্দরে স্বেচ্ছাসেবকদল নেতা একাধিক মামলার আসামি মিজানের সহযোগী সনি খুন হন। সনি হত্যা মামলার আসামি মামুন। গত ২১ অক্টোবর মামুন আদালতে হাজিরা দিয়ে ফেরার পথে শহরের আটাপড়া এলাকায় তার উপর হামলার চেষ্টা করেছিল প্রতিপক্ষরা।

বগুড়া সদরের ছিলিমপুর (মেডিকেল ফাঁড়ি) ফাঁড়ির এসআই আব্দুল আজিজ মন্ডল জানান, আহত মামুনের দুই হাতের কবজির প্রায় ৯০ শতাংশ সন্ত্রাসীরা কেটে ফেলেছে। তার হাতে অস্ত্রপচার হয়েছে। চিকিৎসকরা তাকে নিবির পরিচর্যায় রেখেছেন।

বগুড়া সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রেজাউল করিম রেজা জানান, প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা ধারালো অস্ত্রের আঘাতে এক ভাইকে হত্যা করেছে এবং অপর ভাই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারে পুলিশ মাঠে নেমেছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনকারী বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সনাতন চক্রবর্তী জানান, আভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরেই বিএনপি কর্মী খুন হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িতদের দ্রুত সময়ে গ্রেফতার করা হবে। তাদের অভিযান শুরু করেছে পুলিশ।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন