রবিবার | জুলাই ১২, ২০২০ | ২৮ আষাঢ় ১৪২৭

ঈপ্সনীয়

সৌন্দর্যে নান্দনিক ব্রেসলেট

ফিচার ডেস্ক

নারীর সৌন্দর্য ও ব্যক্তিত্বের সঙ্গে মানানসই ফ্যাশন অ্যাকসেসরিজের মধ্যে ব্রেসলেট অন্যতম। পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে হাতে ব্রেসলেট পরা অনেকটা চলে পরিণত হয়েছে। বিয়ে থেকে শুরু করে জন্মদিনযেকোনো অনুষ্ঠানের সাজে ব্রেসলেট এনে দেয় অনন্য মাত্রা। বাজারে কিংবা অনলাইনে এখন নানা ডিজাইন ও ধরনের ব্রেসলেট পাওয়া যায়। সম্প্রতি ব্রেসলেটের দুনিয়ায় নতুন মাত্রা যোগ করেছে লুই ভিঁতো (এলভি) ও ইউনিসেফ

বিখ্যাত ফ্যাশন হাউজ ও বিলাসবহুল পণ্য বিক্রয়কারী লুই ভিঁতো নারীদের জন্য দৃষ্টিনন্দন ব্রেসলেট নিয়ে এসেছে। ব্রেসলেটগুলো মেটালের তৈরি। ইউনিসেফ ও লুই ভিঁতোর সম্মিলিতভাবে তৈরি ব্রেসলেটে মেটালের পাশাপাশি ব্যবহার করা হয়েছে বিভিন্ন রঙের রশি। রশির সঙ্গে আবার সিলভারের চেইন যুক্ত করা হয়েছে। আর এ চেইনের সঙ্গে এল ও ভি (লুই ভিঁতো) শব্দ যুগলের প্যাডলক রয়েছে।

ব্রেসলেট যদি পরতেই চান, তবে ভালো ও ইউনিক ডিজাইনের ব্রেসলেট পরাই উচিত। ব্র্যান্ডের হলেই সবসময় যে ভালো ও নান্দনিক হবে তেমনটা নয়। যত নতুন ডিজাইনের ও আকর্ষণীয় ব্রেসলেট পরবেন ততই সবার নজর কাড়বেন। ব্রেসলেটের রঙ বাছাইয়ের ক্ষেত্রে একটু কালারফুল বাছাই করাই শ্রেয়। যদিও বিষয়টি পোশাকের ওপর নির্ভর করে। কিন্তু অনেকেই আছেন, একটু রঙিন জিনিসের ব্যবহার পছন্দ করেন। লুই ভিঁতো নিশ্চয়ই তাদের কথা মাথায় রেখেই ব্রেসলেটটি তৈরি করেছে।

কালারফুল ডিজাইনের ব্রেসলেট নিতে চাইলে দুশ্চিন্তার কিছু নেই। নতুন ডিজাইনের এ ব্রেসলেটগুলোর বিভিন্ন রঙের কালেকশন রয়েছে। কালো, কমলা, সবুজ ও নীল রঙের ব্রেসলেট চাইলে তাও নিতে পারেন।

এ ব্রেসলেটগুলোর বিশেষত্ব হলো, এতে ডিজাইন হিসেবে তালা ব্যবহার করা হয়েছে। ব্রেসলেটের রশির দুই প্রান্তে সিলভারের চেইন রয়েছে। আর চেইনের ঠিক মাঝখানে একটি সিলভারের তালা ঝোলানো আছে। প্রতিটি ব্রেসলেট একই ডিজাইনের।

ফ্যাশনের পাশাপাশি সামাজিক কাজে অংশগ্রহণের সুযোগও দিচ্ছে এসব আকর্ষণীয় ব্রেসলেট। বিষয়টি অনেকের কাছেই হয়তো পরিষ্কার নয়। লুই ভিঁতো (এলভি) ও ইউনিসেফ ২০১৬ সাল থেকে একে অন্যের অংশীদার হিসেবে কাজ করছে।

মজার বিষয় হলো, এসব ব্রেসলেট বিক্রির টাকা থেকে বিখ্যাত এই ফ্যাশন প্রতিষ্ঠানটি স্যানিটেশন, পুষ্টি, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে মোজাম্বিয়াসহ জিম্বাবুয়ের শিশুদের জন্য ব্যয় করতে ইউনিসেফকে সহায়তা করবে। কাজেই আপনি এসব ব্রেসলেট কিনে একদিকে যেমন ফ্যাশনের চাহিদা পূরণ করতে পারবেন, অন্যদিকে সমাজসেবামূলক কাজেও আপনার অংশগ্রহণ থাকবে। ফলে দেরি না করে কিনে ফেলুন এলভির ইউনিক সব ব্রেসলেট।

এলভির এ ব্রেসলেটগুলোর দাম খুব বেশি নয়। আর বরাবরই ফ্যাশনসচেতনদের কাছে পছন্দের চেয়ে টাকার বিষয়টি নিতান্তই গৌণ। ব্রেসলেটগুলোর দাম ৪২৫ মার্কিন ডলার। ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে ব্রেসলেটগুলো বাজারে পাওয়া যাবে। ফলে দেরি না করে এখনই অর্ডার করে ফেলুন পছন্দের রঙের ব্রেসলেটটি।


এ তো গেল এলভির বিলাসবহুল ব্রেসলেটের গল্প। ব্রেসলেটপ্রেমীদের জন্য আরো আনন্দের সংবাদ রয়েছে। কিছুদিন হলো বিখ্যাত ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রি টিফানি অ্যান্ড কোম্পানি নতুন কিছু ব্রেসলেট নিয়ে এসেছে। এলভির ইউনিক ব্রেসলেটগুলোর সঙ্গে টিফানির ব্রেসলেটগুলোর যথেষ্ট মিল রয়েছে। টিফানির ব্রেসলেটও চেইন সিস্টেমের এবং ডিজাইন হিসেবে এখানেও ছোট তালার ব্যবহার দেখা গেছে। এলভির ব্রেসলেটগুলোর মতো এগুলো তৈরিতেও মেটাল ব্যবহার করা হয়েছে। আর রঙ নিয়ে ভাবনার কিছু নেই। কারণ রঙের ক্ষেত্রেও যথেষ্ট ভিন্নতা রেখেছে টিফানি। সোনালি কিংবা সাদা যেকোনো রঙেই রাঙাতে পারবেন আপনার হাত।

মেটালের এসব ব্রেসলেটের পাশাপাশি আরেক ধরনের ব্রেসলেট আছে, যেগুলো ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র স্টোনের তৈরি। সাদা রঙের বিন্দু বিন্দু স্টোন সারিবদ্ধভাবে সাজিয়ে অনেকটা চেইনের মতো করে তৈরি করা হয়েছে এ ব্রেসলেটগুলো। যারা স্টোনের ব্রেসলেট পরতে ভালোবাসেন, তারা অনায়াসে চিন্তাভাবনা ছাড়াই এগুলো কিনতে পারেন। ব্রেসলেটগুলো দেখতে বেশ আকর্ষণীয়। আর সাদা রঙ যেকোনো কিছুর সঙ্গেই মানানসই। সাদা ব্রেসলেটে শুভ্রতার ছোঁয়া আনতে পারবেন হাতে।

ভাবছেন এই আকর্ষণীয় ব্রেসলেটগুলো কোথায় পাবেন? সময়টা এখন উন্নত প্রযুক্তির। এখন আর কোনো জিনিস কিনতে খুব বেশি কষ্ট করতে হয় না। হাতে থাকা স্মার্টফোনের মাধ্যমেই দেশ-বিদেশের নানা জিনিস হাতের নাগালেই পাওয়া সম্ভব। ব্রেসলেটগুলো কিনতে চাইলে উঁকি মারুন টিফানি ডটকমে। তারপর পছন্দসই ব্রেসলেটটি বাছাই করে নিন। পেজেই উল্লেখ করা রয়েছে কোন ব্রেসলেটের কত দাম। কাজেই দাম ও পছন্দের মধ্যে সামঞ্জস্য রেখে অনলাইনেই অর্ডার করে দিন। দেখবেন নিমেষের মধ্যেই ঘরে পৌঁছে গেছে আপনার প্রিয় জিনিসটি। তাহলে আর চিন্তা কী! আকর্ষণীয় ও নান্দনিক এসব ব্রেসলেট কিনে আপনার সুন্দর হাত ভরিয়ে তুলুন আরো সৌন্দর্যে।

 

সূত্র: লাক্সারি লঞ্চেস

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন