রবিবার | সেপ্টেম্বর ২০, ২০২০ | ৫ আশ্বিন ১৪২৭

শেয়ারবাজার

চীনের শেয়ারবাজার

চীনের ১৪০ কোটির বেশি জনসংখ্যার মাত্র ৭ শতাংশ শেয়ারবাজারে সম্পৃক্ত। এর ওপর আবার এ বাজারের মোট লেনদেনযোগ্য শেয়ারের ৮০ শতাংশই রয়েছে মুষ্টিমেয় বিত্তবান বিনিয়োগকারীদের হাতে। এ কারণে মাঝেমধ্যেই দেশটির শেয়ারবাজারে ব্যাপক উত্থান-পতন লক্ষ করা যায়, যেমনটি হয়েছিল ২০১৫ ও ২০১৬ সালে। এ কারণে চীনের শেয়ারবাজারকে অনেকেই ক্যাসিনোর সঙ্গে তুলনা করেন। চীনের শীর্ষস্থানীয় নেতারা দেশটির অর্থনৈতিক পুনর্গঠনের জন্য শেয়ার বিনিয়োগের ওপর যথেষ্ট জোর দেন। তাদের মতে, শেয়ারবাজার যত ভালো অবস্থানে থাকবে, ক্ষুদ্র উদ্ভাবনী কোম্পানিগুলো সেখান থেকে তত বেশি মূলধন সহায়তা পাবে। আর এতে দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিও ত্বরান্বিত হবে। তা সত্ত্বেও চীনের শেয়ারবাজারে মোট বিনিয়োগের পরিমাণ দেশটির মোট হাউজহোল্ড ওয়েলথের ২০ শতাংশেরও কম। চীনের মূল ভূখণ্ড বা মেইন ল্যান্ড চায়নায় দুটি স্টক এক্সচেঞ্জ রয়েছে—সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জ ও শেনঝেন স্টক এক্সচেঞ্জ। আর চীন নিয়ন্ত্রিত হংকংয়ে রয়েছে হংকং স্টক এক্সচেঞ্জ, যা আবার সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত।

সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জ
এক্সচেঞ্জটি বিদেশী বিনিয়োগকারীদের জন্য সম্পূর্ণ উন্মুক্ত নয়। এর ওপর কেন্দ্রীয় সরকারের সিদ্ধান্তের যথেষ্ট প্রভাব রয়েছে। সাংহাইয়ে সিকিউরিটিজ লেনদেনের প্রচলন ১৮৬০-এর দশকের শেষের দিকে। প্রথম শেয়ার তালিকাভুক্ত হয় ১৮৬৬ সালে। এক্সচেঞ্জটির যাত্রা খুব একটা মসৃণ নয়। ১৯৪৯ সালে কমিউনিস্ট বিপ্লব সংঘটিত হলে এটি বন্ধ হয়ে যায়। দীর্ঘ ৪১ বছর পর ১৯৯০ সালে তা পুনরায় চালু করা হয়। এর আগে ১৯৪১ সালের ডিসেম্বর থেকে ১৯৪৬ সাল পর্যন্ত এক্সচেঞ্জটির কার্যক্রম বন্ধ ছিল। গত বছর এটি শুধু প্রযুক্তি কোম্পানির শেয়ার নিয়ে ‘স্টার মার্কেট’ চালু করেছে।


অবস্থান: সাংহাই
বাজার মূলধনে অবস্থান: বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম
বাজার মূলধন: ৫ লাখ ১ হাজার কোটি ডলার
মূল সূচক: এসএসই কম্পোজিট

শেনঝেন স্টক এক্সচেঞ্জ 
সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জের তুলনায় এটি অনেকটাই ছোট। এক্সচেঞ্জটির পরীক্ষামূলক যাত্রা ১৯৮৭ সালে। আর আনুষ্ঠানিক যাত্রা ১৯৯০ সালের ১ ডিসেম্বর। ১৯৯১ সালের ৩ জুলাই এটি লেনদেনের জন্য খুলে দেয়া হয়। এ স্টক এক্সচেঞ্জে নিবন্ধিত বেশির ভাগ কোম্পানিই হলো চীনা সরকারের স্বার্থনিয়ন্ত্রিত কোম্পানির সাবসিডিয়ারি।


অবস্থান: শেনঝেন, গুয়াংডং
বাজার মূলধনে অবস্থান: বিশ্বের অষ্টম বৃহত্তম
বাজার মূলধন: ৩ লাখ ৫১ হাজার কোটি ডলার
মূল সূচক: এসজেডএসই কম্পোনেন্ট

হংকং স্টক এক্সচেঞ্জ
১৯১৪ সালে যাত্রা করা এক্সচেঞ্জটির মালিকানায় রয়েছে হংকং এক্সচেঞ্জেস অ্যান্ড ক্লিয়ারিং লিমিটেড। ২০১৪ সালের নভেম্বরে চীনা সরকার সাংহাই-হংকং কানেক্ট প্রোগ্রামের আওতায় হংকং স্টক এক্সচেঞ্জ ও সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জের মধ্যে একটা সংযোগ স্থাপন করে। চীনের নাগরিকরা এ এক্সচেঞ্জে প্রতিদিন ১৭০ কোটি ডলার পর্যন্ত লেনদেন করতে পারেন। কানেক্ট প্রোগ্রামের আওতায় বিদেশী বিনিয়োগকারীরা এ স্টক এক্সচেঞ্জে নিবন্ধিত চীনা কোম্পানির শেয়ার কিনতে পারেন। তার আগে কেবল চীনা নাগরিক ও কিছু বিদেশী তহবিল ব্যবস্থাপক মেইনল্যান্ড চায়নার শেয়ার কিনতে পারতেন।


অবস্থান: সেন্ট্রাল ডিসট্রিক্ট, হংকং
বাজার মূলধনে অবস্থান: বিশ্বে পঞ্চম বৃহত্তম
বাজার মূলধন: ৩ লাখ ৯০ হাজার কোটি ডলার
মূল সূচক: হ্যাংসেং


দ্য ব্যালান্স ও উইকিপিডিয়া অবলম্বনে

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন