শুক্রবার | জুলাই ০৩, ২০২০ | ১৮ আষাঢ় ১৪২৭

খেলা

জিততে চান মাহমুদউল্লাহ লড়াইয়ের প্রত্যাশা বাবরের

ক্রীড়া প্রতিবেদক

দলের একাধিক সেরা তারকাকে ছাড়াই নিরাপত্তা ইস্যু সামনে রেখে পাকিস্তান সফরে গেছে বাংলাদেশ। শুক্রবার স্থানীয় সময় বেলা ২টায় লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে পাকিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি২০ খেলতে নামবে বাংলাদেশ। বর্তমানে টি২০ র্যাংকিংয়ে পাকিস্তান এক নম্বর দল হলেও তাদের হারিয়ে সিরিজ জিততে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। পাশাপাশি তার প্রত্যাশা, অভিজ্ঞদের অনুুপস্থিতিতে সুযোগ পেয়ে নিজেদের মেলে ধরবেন তরুণ খেলোয়াড়রা।

বৃহস্পতিবার ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে প্রথমেই মাহমুদউল্লাহকে কথা বলতে হলো নিরাপত্তা ইস্যু নিয়ে। তিনি বলেন, ‘সম্ভবত আমরা যখন বিমানে উঠেছি তখনই এটাকে (নিরাপত্তা ভাবনা) পেছনে ফেলে এসেছি। আমরা পাকিস্তানে কেবল ভালো ক্রিকেট খেলার কথা ভাবছি। সেজন্যই আমরা এখানে এসেছি। এখানে ভালো কিছু করে দেখাতে চাই। ভালো খেলার জন্য আমরা সবাই মুখিয়ে আছি। পাকিস্তান আমাদের সেরা নিরাপত্তাটাই দিচ্ছে। তাদের আয়োজন নিয়ে আমি আনন্দিত।

বাংলাদেশ দল নিয়ে পাকিস্তান দলনায়ক বাবর আজম বলেন, ‘বাংলাদেশ দল খুব ভালো। সিনিয়র-জুনিয়র মিলিয়ে অনেকদিন ধরেই ভালো করছে। আমাদেরও  বেশ কয়েকজন তরুণ প্লেয়ার আছে। হারিস (রউফ) এসেছে, শাহিনও (আফ্রিদি) ফিরে এসেছে। দলের কম্বিনেশন খুব ভালো। আশা করি খুব ভালো লড়াই হবে। সময় র্যাংকিং বিবেচনায় বাংলাদেশকে ছোট করে দেখছেন না বলেও জানালেন তিনি, ‘কোনো দলই ছোট নয়। বাংলাদেশ নিজেদের দিনে ম্যাচ একতরফা করে দিতে পারে। কিন্তু আমরাও ইতিবাচক আছি। চেষ্টা করব ভালো ক্রিকেট উপহার দেয়ার।

ঘরের মাঠে প্রথমবারের মতো অধিনায়কত্ব নিয়ে কী ভাবছেন জানতে চাইলে বাবর বলেন, ‘নিজেদের দেশে প্রথমবারের মতো অধিনায়কত্ব করছি এটা আমার জন্য অনেক বড় অর্জন। এটা গর্বের বিষয়ও আমার জন্য।

টানা হারে এখন হুমকির মুখে পাকিস্তানের শীর্ষস্থান। তবে বাংলাদেশের বিপক্ষে ভালো করেই সেটি ধরে রাখতে প্রত্যয়ী পাকিস্তান অধিনায়ক, ‘আমাদেরও মূল মনোযোগ এক নম্বর র্যাংকিং ধরে রাখার ওপর। সেটা তখনই হবে, যখন আমরা ম্যাচ জিতব। আমাদের লক্ষ্য সিরিজ জিতে শীর্ষস্থান ধরে রাখার। আমাদের প্রস্তুতি খুব ভালো। ছয়দিনের ক্যাম্পে আমরা চার ম্যাচ খেলেছি। দল খুব ভালো অবস্থায় আছে। আশা করি ভালো ফল পাব’—যোগ করেন বাবর।

সম্প্রতি নিজেদের মাঠে শ্রীলংকার বিপক্ষে হোয়াইটওয়াশ হয়েছিল পাকিস্তান। বিষয়টি দলের ওপর বাড়তি কোনো চাপ ফেলছে কিনা, ‘ওইরকম কোনো চাপ নেই, যা হয়ে গেছে তা হয়ে গেছে। কিন্তু সেখানে যেসব ভুল করেছি তার পুনরাবৃত্তি হবে না। চেষ্টা থাকবে নিজেদের শক্তির ওপর জোর দিয়ে ভালো পারফরম্যান্স করার।

গাদ্দাফি স্টেডিয়ামের উইকেট নিয়ে এখনো পুরোপুরি নিশ্চিত ধারণা পাননি বাবর। তবে আগে ব্যাট করলে কেমন স্কোর আশা করছেন সেটিও জানালেন তিনি, ‘উইকেট এখনো দেখি নাই। তবে যে ম্যাচ খেলেছি, সেখান থেকে মনে হচ্ছে উইকেট কিছুটা ধীরগতির হতে পারে। সেভাবেই আমরা পরিকল্পনা করব। তবে আমি যেমন দেখেছি, তাতে মনে হয় আগে ব্যাট করলে ১৮০-১৯০ করতে হবে।

বাংলাদেশের বিপক্ষে বাবরের অনুরোধেই দলে আনা হয়েছে দুই অভিজ্ঞ শোয়েব মালিক মোহাম্মদ হাফিজকে। বিষয়ে স্বাগতিক অধিনায়কের ভাষ্য, ‘তারা শীর্ষে ওঠা দলটির সদস্য। আমি আমার মত দিয়েছি। তারা সেটা রেখেছেন। আমি নির্বাচকদের প্রতি কৃতজ্ঞ যে তারা আমার মতামতের গুরুত্ব দিয়েছে।

পাকিস্তান দলে সাম্প্রতিক সময়ে বারবার পরিবর্তন আসছে। তবে সেটাকে দলের প্রয়োজনেই করতে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বাবর, ‘আসলে কেউ কেউ ফর্মে নেই বলেই বদল আনতে হচ্ছে। এটা খুব স্বাভাবিক ব্যাপার। এটা করতেই হয়।

 

 

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন