শনিবার | সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০ | ১১ আশ্বিন ১৪২৭

খবর

জবাবদিহিতামূলক সিটি করপোরেশন গড়ার অঙ্গীকার আতিকের

সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা দিয়েছি, বিজয় সুনিশ্চিত: তাপস

নিজস্ব প্রতিবেদক

গতকাল ছুটির দিনে নির্বাচনী গণসংযোগে ব্যস্ত সময় পার করেছেন ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম ও শেখ ফজলে নূর তাপস। প্রার্থীরা তাদের প্রচারণায় নগরবাসীর জন্য আগামী দিনে নিজ নিজ পরিকল্পনা তুলে ধরেন।

গতকাল সকালে রাজধানীর মানিকদীর কালিবাড়ি বাউনিয়া মোড় থেকে নির্বাচনী গণসংযোগ ও পথসভা শুরু করেন আতিকুল ইসলাম। পরে তিনি মাটিকাটা, লালাসরাইসহ ঢাকা-১৭ সংসদীয় এলাকার বিভিন্ন স্থানে গণসংযোগ করেন। আর শেখ ফজলে নূর তাপস বংশালের ফুলবাড়িয়া থেকে গণসংযোগ ও পথসভা শুরু করেন। এ সময় দুই প্রার্থীর সঙ্গেই আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা ছাড়াও স্থানীয় নেতাকর্মী ও জনসাধারণ উপস্থিত ছিল।

বাউনিয়া মোড়ের পথসভায় উত্তরের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম বলেন, আপনারা নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে যদি আমাকে নির্বাচিত করেন, তাহলে আমি কথা দিতে চাই, মেয়র, কাউন্সিলরসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে জবাবদিহিতার আওতায় আনব। এছাড়া প্রতিটি ওয়ার্ডে প্রতি মাসে সবাইকে নিয়ে টাউন হল মিটিং করব। যে মিটিংয়ে কাউন্সিলরসহ এলাকার জনগণ উপস্থিত থাকবে। এলাকার যত সমস্যা, যা সমাধান হয়নি, এলাকার উন্নয়নে আর কী কী করা বাকি আছে, কোন কাজ আগে করতে হবে অর্থাৎ সমস্যা চিহ্নিত এবং তার সমাধানের উদ্যোগ নেয়া হবে টাউন হল মিটিংয়ে। যার মাধ্যমে জনগণের কাছে আমাদের সবার জবাবদিহিতা থাকবে।

তিনি বলেন, নির্বাচিত হলে সিটি করপোরেশন ও আমাদের যা আছে, তাই দিয়ে জনগণের সেবা করে যাব। জনগণের কাছে এটা আমাদের অঙ্গীকার।

বাউনিয়া এলাকাবাসীর উদ্দেশে আতিকুল ইসলাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে বলেছেন, যেখানে ২০ ফুট রাস্তা আছে, সেটিকে অন্তত ৬০ ফুট করতে হবে। এ এলাকায় সুয়ারেজ লাইনসহ প্রশস্ত রাস্তা চেয়েছেন। ইনশাআল্লাহ আমি দায়িত্ব নিলে আগামী ছয় মাসের মধ্যে এখানে প্রশস্ত রাস্তা হবে। সুয়ারেজ লাইন থাকবে, বাতি থাকবে। কীভাবে হবে? কারণ নয় মাস ধরে এ কাজ শুরু করেছি আমরা। সেই কাজ অব্যাহত রাখতে হলে নৌকায় ভোট দিতে হবে।

ফুলবাড়িয়া কেন্দ্রীয় পশু হাসপাতালের সামনে নির্বাচনী গণসংযোগ চলাকালে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন ঢাকা দক্ষিণের মেয়র প্রার্থী শেখ ফজলে নূর তাপস। তিনি বলেন, আমি একমাত্র মেয়র প্রার্থী, যিনি এই ঐতিহ্যবাহী ঢাকাকে নিয়ে উন্নয়নের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট রূপরেখা দিয়েছি। আমরা পাঁচটি ভাগে আমাদের রূপরেখা ভাগ করেছি। প্রথমত, ঐতিহ্যের ঢাকা, গর্বের ঢাকা। আমরা সেই গর্বের ও ঐতিহ্যের ঢাকাকে পুনরুদ্ধার করতে চাই।

তাপস বলেন, এই ঐতিহ্যবাহী ঢাকার সংস্কৃতি, ঐতিহ্য এবং এর স্বকীয়তাকে আমরা পুনরুজ্জীবিত করব। আমাদের পাঁচটি রূপরেখা হলো: ঐতিহ্যের ঢাকা, সুন্দর ঢাকা, সচল ঢাকা, সুশাসিত ঢাকা এবং উন্নত ঢাকা। এ পাঁচটির সমন্বয়ে আমাদের উন্নয়ন পরিকল্পনা হবে।

এ সময় নির্বাচন নিয়ে বিএনপির প্রার্থী ও দলটির নেতাদের অভিযোগের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের নেতাকর্মী ও জনগণের মাঝেও একটি উৎসবমুখর সুষ্ঠু পরিবেশ আছে। তারা অভিযোগ নিয়ে ব্যস্ত, আমরা গণসংযোগ নিয়ে ব্যস্ত। দলীয় নেতাকর্মীদের নির্বাচনী আচরণ বিধির বিষয়ে সতর্ক করে তিনি বলেন, আচরণ বিধি কোনো রকম লঙ্ঘনের অবকাশ নেই। নেতাকর্মী ও জনগণের মাঝে উৎসবমুখর পরিবেশ আছে। ইনশাআল্লাহ আগামী ৩০ জানুয়ারি আমাদের বিজয় সুনিশ্চিত।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন