মঙ্গলবার| জানুয়ারি ২১, ২০২০| ৮মাঘ১৪২৬

খবর

ধারের টাকা দিতে না পেরে কিশোরী কন্যাকে তুলে দিতেন বাবা

স্থানীয় এক মুরগী ব্যবসায়ীর কাছে টাকা ধার নিয়ে তা পরিশোধ করতে না পেরে নিজের কিশোরী কন্যাকে তুলে দিতেন বাবা। রাজধানীর কামরাঙ্গীরচর এলাকার ওই মুরগী ব্যবসায়ী মেয়েটিকে একাধিকবার ধর্ষণ করেছে। এমন অভিযোগ পেয়ে গতকাল মঙ্গলবার রাতে মেয়েটিকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। সেই সঙ্গে গ্রেফতার করা হয়েছে ওই অভিযুক্ত বাবাকেও।

নিপীড়নের শিকার মেয়েটিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করা হয়েছে। কামরাঙ্গীরচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ বি এম মশিউর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

প্রতিবেশীদের বরাত দিয়ে পুলিশ বলছে, ভুক্তভোগী ওই মেয়ের মা বিদেশে, সে তার বাবার সঙ্গে কামরাঙ্গীরচরে একটি ভাড়া বাসায় থাকে। তার বাবা স্থানীয় এক মুরগী ব্যবসায়ীর দোকানে কাজ করেন, পাশাপাশি ভ্যানও চালান। বেশ কিছুদিন আগে তিনি ওই ব্যবসায়ীর কাছে কিছু টাকা কর্জ নিয়েছিলেন। সেই টাকা পরিশোধ করতে না পেরে একাধিকবার তার কিশোরী মেয়েকে ওই ব্যক্তির হাতে তুলে দিয়েছেন। এই সুযোগ নিয়ে ওই মুরগীর ব্যবসায়ী কিশোরীটিকে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। গেল ১১ জানুয়ারি সর্বশেষ ধর্ষণ করলে মেয়েটি তার এক প্রতিবেশীকে ব্যাপারটি জানান। প্রতিবেশী পুলিশে খবর দেন।

এ ঘটনায় ওই বাড়ির মালিক বাদী হয়ে কামরাঙ্গীরচর থানায় একটি মামলাও দায়ের করেছেন। যাতে ভুক্তভোগী ওই কিশোরীর বাবা ও মুরগীর ব্যবসায়ীকে আসামি করা হয়েছে। এ ঘটনায় মেয়েটির বাবাকে রাতেই গ্রেফতার করলেও মুরগীর ব্যবসায়ী পলাতক।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন