সোমবার | জুন ০১, ২০২০ | ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

খবর

চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপ-নির্বাচন

নৌকার প্রার্থী মোছলেম বিজয়ী

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম ব্যুরো

চট্টগ্রাম-৮ (চান্দগাঁও-বোয়ালখালী) আসনের উপ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মোছলেম উদ্দিন বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। নৌকা প্রতীক নিয়ে মোছলেম উদ্দিন ভোট পেয়েছেন ৮৭ হাজার ২৪৬টি। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে বিএনপি প্রার্থী আবু সুফিয়ানের ধানের শীষ পেয়েছে ১৭ হাজার ৯৩৫টি।

বাংলাদেশ জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের নেতা মইন উদ্দীন খান বাদলের মৃত্যুতে শূন্য হওয়া এ আসনে সোমবার সকাল থেকে ১৭০টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। বোয়ালখালী উপজেলা এবং নগরীর চান্দগাঁও ও বায়েজিদের কিছু অংশ নিয়ে গঠিত চট্টগ্রাম-৮ আসনটিতে মোট ভোটার ৪ লাখ ৭৫ হাজার ৯৮৮ জন। এর মধ্যে বোয়ালখালী উপজেলায় ভোটার রয়েছেন ১ লাখ ৬৪ হাজার। আর শহরে ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ১১ হাজার ৯৮৮। ভোটকক্ষ মোট ১ হাজার ২৫২টি।

ভোটগ্রহণ শেষে গতকাল রাতে এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের জিমনেসিয়ামে স্থাপিত নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে ফল ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. হাসানুজ্জামান। তিনি জানান, উপ-নির্বাচনে মোট বৈধ ভোট গণনা করা হয়েছে এক লাখ ৮ হাজার ৫৮১টি। যা মোট ভোটের ২২ দশমিক ৯৪ শতাংশ।

অন্য চার প্রার্থীর মধ্যে বিএনএফের এস এম আবুল কালাম আজাদ টেলিভিশন প্রতীকে পেয়েছেন ১১৮৫ ভোট, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের সৈয়দ মোহাম্মদ ফরিদ আহমদ চেয়ার প্রতীকে ৯৯২ ভোট, ন্যাপের বাপন দাশগুপ্ত কুঁড়েঘর প্রতীকে ৬৫৬ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ এমদাদুল হক আপেল প্রতীকে পেয়েছেন ৫৬৭ ভোট।

এদিকে ভোটের মাঠে সর্বশক্তি নিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মাঠে থাকলেও নিষ্ক্রীয় দেখা গেছে বিএনপির নেতাকর্মীদের। বিভিন্ন ভোটকেন্দ্র ঘুরে দেখা গেছে, অধিকাংশ এলাকায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোছলেম উদ্দিন আহমেদের অনুসারীদের সরব উপস্থিতি। এর বিপরীতে মাঠে দাঁড়াতেই পারেননি বিএনপির প্রার্থী আবু সুফিয়ানের অনুসারীরা।

গতকাল সোমবার ভোটগ্রহণের সময় চট্টগ্রাম-৮ আসনের বিভিন্ন ভোটকেন্দ্র ঘুরে দেখা গেছে মোছলেমের অনুসারীদের একচেটিয়া বিচরণ। সংসদীয় এলাকার নেতাকর্মী তো ছিলই, দক্ষিণ চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলা থেকেও আসা নেতাকর্মীদের মোছলেমের পক্ষে সরব  দেখা গেছে বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রের সামনে।

নগরীর বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে সকাল থেকে নৌকার সমর্থকদের পাশাপাশি ধানের শীষের সমর্থকদেরও সরব উপস্থিতি ছিল। কিন্তু বোয়ালখালী উপজেলার বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে ধানের শীষের সমর্থকদের কেন্দ্রে পাওয়া যায়নি। দুই প্রার্থীর সমর্থকদের সরব উপস্থিতি থাকায় নগরীর কয়েকটি কেন্দ্রে ভোটের সময় উত্তাপও ছড়িয়েছিল। আর উপজেলায় বিএনপির  নেতাকর্মীদের অভাবে ভোটের চিত্রও দেখা গেছে অনেকটা একতরফা। তবে বিএনপির প্রার্থী আবু সুফিয়ান এবং তার অনুসারীদের অভিযোগ- সকাল থেকে নৌকার সমর্থকরা অনেক  কেন্দ্রে এজেন্টদের মেরে বের করে দিয়েছে। ভয়ভীতি দেখিয়ে ও হুমকি দিয়ে ধানের শীষের সমর্থকদের কেন্দ্রে আসতে দেওয়া হয়নি।

সকাল ৯টা ২০ মিনিটে নগরীর বাকলিয়া নূরনগর এলাকায় মজিদিয়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা কেন্দ্রে গিয়ে দেখা গেছে, শান্তিপূর্ণভাবে ভোটারেরা লাইনে দাঁড়িয়ে আছেন। এক মাদ্রাসায় দুই কেন্দ্রে মোট ভোটারের মধ্যে পুরুষ ২৩৪৮ জন এবং মহলিা ২৫৫৪ জন। 

পুরুষ কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার  মো. সালাহউদ্দিন বলেন, ‘খুব সুন্দরভাবে ইভিএম এ  ভোট হচ্ছে। কারও কোনো অভিযোগ নেই।’

কেন্দ্রের বাইরে নৌকা প্রতীকের লেমিনেটিং করা কার্ড গলায় ঝুলিয়ে দাঁড়িয়েছিল ১০-১৫ জন তরুণ-যুবক। কয়েকজন ভেতরে ঢুকতে চাইলে পুলিশ ওই কেন্দ্রের ভোটার নন দেখে বাধা দেয়। কেন্দ্রের সামনে দাঁড়িয়েছিলেন যুবলীগ নেতা মাসুদ করিম টিটু। তাকে নৌকার কর্মীদের বিভিন্ন নির্দেশনা দিতে দেখা গেছে।