মঙ্গলবার| ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০২০| ৫ফাল্গুন১৪২৬

শেয়ারবাজার

‘বি’ ক্যাটাগরিতে আইএসএন

নিজস্ব প্রতিবেদক

৩০ জুন সমাপ্ত ২০১৯ হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয়ায় ইনফরমেশন সার্ভিসেস নেটওয়ার্ক (আইএসএন) লিমিটেডের শেয়ারকে বিদ্যমানজেডক্যাটাগরি থেকেবিক্যাটাগরিতে স্থানান্তর করেছে স্টক এক্সচেঞ্জ কর্তৃপক্ষ। আজ থেকে সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে।

নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, সমাপ্ত হিসাব বছরে আইএসএনের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪০ পয়সা, আগের হিসাব বছরে যা ছিল ৪৮ পয়সা। ৩০ জুন কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়ায় ১২ টাকা ৯৬ পয়সা, আগের হিসাব বছর শেষে যা ছিল ১২ টাকা ৫৬ পয়সা।

এদিকে সর্বশেষ অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, চলতি হিসাব বছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) প্রতিষ্ঠানটির ইপিএস হয়েছে ১১ পয়সা, আগের হিসাব বছরের একই সময়ে যা ছিল ১০ পয়সা। ৩০ সেপ্টেম্বর এনএভিপিএস দাঁড়িয়েছে ১৩ টাকা পয়সা।

২০১৮ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের কোনো লভ্যাংশ দেয়নি আইএসএন। কোম্পানিটির পর্ষদ সভায় শতাংশ নগদ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ প্রদানের সুপারিশ করা হলেও রিটেইনড আর্নিং ঋণাত্মক থাকার কারণে বার্ষিক সাধারণ সভায় (এজিএম) শেয়ারহোল্ডারদের সর্বসম্মতিক্রমে লভ্যাংশ প্রদানের সিদ্ধান্ত বাতিল করা হয়। তার আগের ছয় হিসাব বছরেও শেয়ারহোল্ডারদের কোনো লভ্যাংশ দেয়নি আইএসএন।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গতকাল কোম্পানিটির শেয়ারের সর্বশেষ দর ছিল ৩৮ টাকা ৭০ পয়সা। সমাপনী দর ছিল ৩৮ টাকা ৩০ পয়সা। গত এক বছরে শেয়ারটির দর ২৩ টাকা ১০ পয়সা থেকে ৪৯ টাকা ৫০ পয়সার মধ্যে ওঠানামা করেছে।

২০০২ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় প্রথম প্রজন্মের ইন্টারনেট সেবাদাতা (আইএসপি) কোম্পানিটি। তাদের অনুমোদিত মূলধন ৫০ কোটি টাকা। পরিশোধিত মূলধন ১০ কোটি ৯২ লাখ টাকা। রিজার্ভে রয়েছে কোটি ৮৯ লাখ টাকা। কোম্পানিটির মোট শেয়ার সংখ্যা কোটি লাখ ২০ হাজার ৩। এর মধ্যে ২১ দশমিক ৬২ শতাংশ উদ্যোক্তা-পরিচালক, দশমিক ৪৬ শতাংশ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী বাকি ৬৮ দশমিক ৯২ শতাংশ শেয়ার সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে রয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন