সোমবার| এপ্রিল ০৬, ২০২০| ২২চৈত্র১৪২৬

খবর

দক্ষিণ সিটির হলফনামা

ইশরাকের চেয়ে সম্পদ বেশি তাপসের

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী সাত মেয়র প্রার্থীর মধ্যে সবচেয়ে সম্পদশালী আওয়ামী লীগের ফজলে নূর তাপস। তার বার্ষিক আয় প্রায় ১২ কোটি টাকা। নিজের ও স্ত্রীর নামে অস্থাবর মোট সম্পত্তির মূল্য ১১৮ কোটি ৭৬ লাখ ২২ হাজার ৩২০ টাকা। মোট স্থাবর সম্পদের পরিমাণ ২৫ কোটি ৭৩ লাখ ৯৯ হাজার ৫৪৮ টাকা। আর বিএনপির মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেনের বার্ষিক আয় ৯ কোটি টাকা। অস্থাবর সম্পদের পরিমাণ ৫ কোটি টাকা। স্থাবর সম্পদের পরিমাণ সাড়ে ৭৮ লাখ টাকা। ইশরাকের ক্রেডিট কার্ড, স্বল্পমেয়াদি ঋণ মিলিয়ে দেনা টাকার পরিমাণ ৬৫ লাখ ৪৬ হাজার ৭৪৩। দক্ষিণ সিটির মেয়র প্রার্থীদের জমা দেয়া হলফনামা থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

জাতীয় পার্টি-জাপা সমর্থিত প্রার্থী হচ্ছেন মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন। তার বিরুদ্ধে কোনো ধরনের মামলা নেই। তার বার্ষিক আয় ১ কোটি ৩৬ লাখ ৩ হাজার ৪৩ টাকা। আয়ের উত্স বাড়ি ভাড়া, অ্যাপার্টমেন্ট, দোকান ভাড়া, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে তার কাছে নগদ টাকা রয়েছে ৫৯ লাখ ৬০ হাজার টাকা। পরিবহন বাবদ ১৭ লাখ টাকা এবং আসবাবপত্র ও অন্যান্য বীমার টাকা রয়েছে ৭০ লাখ ৩৬ হাজার ৬৮৯ টাকা। এই হিসাবে মোট অস্থাবর সম্পদ রয়েছে ১ কোটি ৪৬ লাখ ৯৬ হাজার ৯৮৯ টাকা। স্থাবর কোনো সম্পদের বিবরণী হলফনামায় নেই। তবে তিন ব্যাংকে সব মিলিয়ে ২ কোটি ৭৭ লাখ ৭ হাজার ৬০১ টাকার ঋণ রয়েছে। এছাড়া স্ত্রীর নামে ন্যাশনাল ব্যাংকে আরো দুই কোটি টাকার ঋণ রয়েছে।

ইসলামী আন্দোলনের মেয়র প্রার্থী মো. আব্দুর রহমান। তার বিরুদ্ধে দুটি ফৌজদারি মামলা থাকলেও আদালতের চূড়ান্ত প্রতিবেদনের পর তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। তার বার্ষিক আয় ৮ লাখ ২৩ হাজার টাকা। আয়ের উত্স হচ্ছে কৃষি, বাড়ি, দোকান ভাড়া ও ব্যবসা।

বাংলাদেশ কংগ্রেসের মেয়র প্রার্থী আকতারুজ্জামান ওরফে আয়াতুল্লাহ। হলফনামায় তার বিরুদ্ধে কোনো মামলা নেই বলে উল্লেখ করা হয়েছে। পেশায় তিনি একজন লেখক। নেই কোনো বার্ষিক আয়। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে নিজের ও স্ত্রীর কাছে নগদ অর্থ রয়েছে ৩ লাখ টাকা।

আব্দুস সামাদ সুজন গণফ্রন্টের প্রার্থী। এই প্রার্থীর বার্ষিক আয় ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা। আয়ের উত্স হচ্ছে কৃষি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।

ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি) সমর্থিত প্রার্থী বাহরানে সুলতান বাহার। তার বার্ষিক আয় ২ লাখ ২০ হাজার টাকা। যা ব্যবসা ও বাড়ি ভাড়া থেকে আসে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন