শুক্রবার | জুন ০৫, ২০২০ | ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

আন্তর্জাতিক খবর

কিছু ইহুদি আছেন যারা ইসরায়েলকে যথেষ্ট ভালোবাসেন না: ট্রাম্প

বণিক বার্তা ডেস্ক

সম্প্রতি হলিউডে ইসরায়েলপন্থী একটি সম্মেলনে গিয়ে মার্কিন ইহুদি ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এসময় ডেমোক্রেটদের প্রস্তাবিত করনীতির ভয় দেখিয়ে তাকে সমর্থন জানাতে পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি মার্কিন সংবিধান সংশোধন করে সর্বোচ্চ দুই মেয়াদে প্রেসিডেন্ট হওয়ার বাধ্যবাধকতা তুলে দেয়ার পক্ষে কথা বলেছেন।  খবর বিজনেস ইনসাইডার।

গত শনিবার ফ্লোরিডায় হলিউডের ডিপ্লোম্যাট বিচ রিসোর্টে ইসরায়েলি আমেরিকান কাউন্সিল ন্যাশনাল সামিট ২০১৯ ভাষণ দেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। এর আগে ১৯৮৮ সালে একই স্থানে অনুষ্ঠিত ইসরায়েলপন্থী সংগঠনটির সম্মেলনে সর্বশেষ ভাষণ দিয়েছিলেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রে ইহুদিদের মধ্যে ট্রাম্পের সমর্থক সংখ্যা খুব কম। তবে গত শনিবার রাতে যে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার ইহুদি সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন তাদের অধিকাংশই রক্ষণশীল। ইসরায়েল ফিলিস্তিন ইস্যুতে ট্রাম্পের অবস্থান ও সম্প্রতি বেশ কিছু কর্মকাণ্ডের কারণে এই রক্ষণশীলদের মধ্যে তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে।

বক্তৃতায় ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জো বাইডেনের মতো ডেমোক্র্যাট প্রার্থী ও ডেমোক্র্যাট সিনেটর এলিজাবেথ ওয়ারেন ধনীদের  সম্পদে বাড়তি কর বসানোর পরিকল্পার প্রতি ইঙ্গিত করে ট্রাম্প বলেন, আমাকে পছন্দ না করলেও ডেমোক্র্যাটদের প্রস্তাবিত কর এড়ানোর জন্য হলেও ইহুদি ব্যবসায়ীরা আমাকে ভোট দেবে।

তিনি বলেন, আপনারা নিশ্চয় সম্পদের ওপর কর বসানোর পক্ষে ভোট দেবেন না। এমনকি আমাকে যদি আপনারা পছন্দ নাও করে থাকেন, অবশ্য অনেকেই পছন্দ করেন না- তারপরও আপনারা আমার সবচেয়ে বড় সমর্থক হবেন। কারণ তা না করলে মাত্র ১৫ মিনিটের মধ্যে ব্যবসা হারাবেন।

ট্রাম্প আরো বলেন, কিছু ইহুদি আছেন যারা খুব উঁচুমানের লোক, কিন্তু ইসরায়েলকে যথেষ্ট ভালোবাসেন না।

অনেকের ভয়, ট্রাম্প দুই মেয়াদের পরও সংবিধান লঙ্ঘন করে পদ আঁকড়ে থাকেন- সম্মেলনে বক্তৃতার সময় এ বিষয়েও  ইঙ্গিত করেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। আর তখনি সমবেতদের মধ্য থেকে ‘আরো চার বছর’, ‘আরো ১২ বছর’ আপনাকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে চাই এমন স্লোগান উঠতে থাকে। যেখানে যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানের ২২তম সংশোধনী অনুযায়ী, একই ব্যক্তি দুই মেয়াদের বেশি প্রেসিডেন্ট থাকতে পারবেন না। ট্রাম্পের মতে, এ বাধ্যবাধকতা তুলে দিলে খারাপ হবে না।

ইসরায়েলের প্রতি যুক্তরাষ্ট্র তথা নিজের প্রশাসনের সমর্থনের দৃষ্টান্ত দিতে গিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প, ২০১৭ সালের ৬ ডিসেম্বর জেরুসালেমকে মার্কিন দূতাবাস স্থানান্তরের কথা উল্লেখ করেন।

তবে ইসরায়েলের জন্য যতোটা করা উচিত ততোখানি এখনো করে উঠতে না পারার জন্য আক্ষেপও করেন ট্রাম্প। তিনি সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, আমি মনে করি না তারা ইসরায়েলকে খুব পছন্দ করেন, এর জন্য আমি দুঃখিত। আট বছর আমাদের এই মিত্রকে অবহেলা ও উপেক্ষা করা হয়েছে, আমি খুশি যে এখন বলতে পারি, যুক্তরাষ্ট্র-ইসরায়েল সম্পর্ক এখন যেকেনো সময়ের চেয়ে ভালো।

এদিকে এ সম্মেলনে একটি বক্তব্যকে ঘিরে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে উল্টো ইহুদি বিদ্বেষের অভিযোগ উঠেছে। আমেরিকান ইহুদি ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ ঝারতে গিয়ে ট্রাম্প বলেছিলেন, আপনাদের অনেকেই রিয়েল এস্টেট ব্যবসার সঙ্গে জড়িত, কারণ আমি জানি আপনারা এ খাতে খুব ভালো করছেন। আপনারা নিষ্ঠুর ঘাতক, কোনোমতেই ভালো লোক নন। কিন্তু তারপরও আপনাদের আমাকেই ভোট দিতে হবে, এছাড়া আপনাদের গত্যন্তর নেই।

এ বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে দ্য জিউয়িশ ডেমোক্র্যাটিক কাউন্সিল অব আমেরিকার নির্বাহী পরিচালক হ্যালি সিফার রোববার এক বিবৃতিতে বলেছেন, ইহুদিরা টাকার কাঙ্গাল এ ধরনের প্রচলিত বিদ্বেষেরই পুনরাবৃত্তি করেছেন প্রেসিডেন্ট।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন