বৃহস্পতিবার | নভেম্বর ১৪, ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

খবর

রাজধানীবাসীকে বিশুদ্ধা পানি সরবরাহে নতুন দুই প্লান্ট উদ্বোধন

বণিক বার্তা অনলাইন

রাজধানী ঢাকাবাসীকে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ করতে ঢাকা ওয়াসার নতুন দুটি পানি শোধনাগার প্রকল্প উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পদ্মা (যশলদিয়া) পানি শোধনাগার (ফেজ-১) এবং সাভার উপজেলার তেতুলঝরা-ভাকুর্তা এলাকায় ওয়েলফিল্ড নির্মাণ (১ম পর্ব) প্রকল্পের প্লান্ট দুটি থেকে ৬০ কোটি লিটার বিশুদ্ধ পানি পাবে ঢাকাবাসী।

এ দু’টি প্রকল্পের উদ্বোধন ছাড়াও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকা এনভায়রনমেন্টালি সাসটেইনেবল ওয়াটার সাপ্লাই প্রকল্পের অধীন রূপগঞ্জের গন্ধর্বপুরে পানি শোধনাগার নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন।

বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) সকালে রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেল থেকে এসব উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ঢাকা শহর ঘিরে চারটি নদী রয়েছে। তবে নদী দূষণ একটি সমস্যা। এই নদী দূষণ সমাধানের জন্য ইতোমধ্যেই আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। বুড়িগঙ্গার তলদেশ থেকে প্রচুর পরিমাণে ময়লা তুলে ফেলেছি এবং পাশে যে অবৈধ স্থাপনাগুলো অপসারণ করা হচ্ছে।’ ভুগর্ভস্থ পানি যেন না কমে সেজন্যও ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী নিরাপদ পানির জন্য সরকারের নানা পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন। সেই সঙ্গে সাধারণ মানুষকে পানি ব্যবহারে যত্নবান হওয়ার আহ্বান জানান। 

উদ্বোধন করা এই প্রকল্প দুটি যেন দ্রুত বাস্তবায়ন হয়- সেই আশাবাদ ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী। 

লৌহজং উপজেলার পদ্মা যশলদিয়া পানি শোধন প্ল্যান্টের মাধ্যমে প্রতিদিন ৪৫ কোটি লিটার শোধিত পদ্মা নদীর পানি আসবে ঢাকায়। পদ্মার পানি ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টে নিয়ে সেখান থেকে পাইপের মাধ্যমে ঢাকায় পাঠানো হবে। ৩ হাজার ৬৭০ কোটি টাকা ব্যয়ে এ প্রকল্প স্থাপন করা হয়েছে।

ঢাকার ক্রমবর্ধমান পানি চাহিদা মেটাতে ২০১৫ সালের অক্টোবরে এ প্রকল্পের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একটি চায়নিজ কোম্পানি এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করে।

রাজধানী মিরপুর এলাকায় ভূগর্ভস্থ পানির ওপর ওপর নির্ভরশীলতা কমাতে সাভারের তেতুলঝরা-ভাকুর্তা এলাকায় ওয়েলফিল্ড নির্মাণ (১ম পর্ব) প্রকল্প নির্মাণ করা হয়। এ প্রকল্প থেকে প্রতিদিন ১৫ কোটি লিটার পানি পাবে ঢাকাবাসী।

ওয়াসা মিরপুর এলাকায় বর্তমানে ৩০ কোটি লিটার পানি সরবরাহ করে আসছে প্রতিদিন। যার অধিকাংশই আছে আন্ডারগ্রাউন্ড ওয়াটার থেকে। ৫৭৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এ প্রকল্প দক্ষিণ কোরিয়ার একটি কোম্পানি বাস্তবায়ন করে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন স্থানীয় সরকার ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় সরকার সচিব হেলাল উদ্দিন আহমেদ, বাংলাদেশ নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত লি জিমিং, দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত হু কাং-ইল, এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর মনমোহন প্রকাশ এবং ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাকসিম এ খান।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন