শনিবার| জানুয়ারি ২৫, ২০২০| ১২মাঘ১৪২৬

টেলিকম ও প্রযুক্তি

সরকারি সহায়তা না পেলে ব্যবসা গুটাবে ভোডাফোন আইডিয়া

বণিক বার্তা ডেস্ক

ভারতের বাজারে টেলিকম অপারেটরদের জন্য ব্যবসা করা কঠিন হয়ে পড়ছে। কারণে যত দিন যাচ্ছে, অধিকাংশ অপারেটরের লোকসানের ঝুঁকি তত বাড়ছে। দেশটির ক্রমবিকাশমান টেলিকম বাজারে দীর্ঘ সময় ধরে এমন পরিস্থিতি চলতে দেয়া যায় না। এমনটা মনে করছেন ভারতের সবচেয়ে বড় টেলিকম অপারেটর ভোডাফোন আইডিয়ার চেয়ারম্যান কুমার মঙ্গলম বিড়লা। পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে তিনি টেলিকম অপারেটরদের জন্য সরকারি অর্থ সহায়তার প্রস্তাব করেছেন। স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, আগামী অর্থবছরে সরকারের পক্ষ থেকে টেলিকম খাতে প্যাকেজ বরাদ্দ দেয়া না হলে ভারতের বাজার থেকে ব্যবসা গুটাতে বাধ্য হবে ভোডাফোন আইডিয়া। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়া এনডিটিভি।

গ্রাহক সংখ্যার বিবেচনায় ভোডাফোন আইডিয়া ভারতের সবচেয়ে বড় টেলিকম অপারেটর। টেলিকম রেগুলেটরি অথরিটি অব ইন্ডিয়ার (টিআরএআই) তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ভারতের মোট মোবাইল ব্যবহারকারীর ৩১ দশমিক ৭৩ শতাংশ ভোডাফোন আইডিয়ার গ্রাহক। দেশটির টেলিকম বাজারে ৩০ দশমিক ২৬ শতাংশ গ্রাহক হিস্যা নিয়ে তালিকায় এর পরই রয়েছে রিলায়েন্স জিও।

তবে ভারতের সবচেয়ে বড় অপারেটর হয়েও স্বস্তিতে নেই ভোডাফোন আইডিয়া। চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের দ্বিতীয় প্রান্তিক (জুলাই-সেপ্টেম্বর) শেষে প্রকাশিত আর্থিক প্রতিবেদনে কোম্পানিটি ৫০ হাজার ৯২১ দশমিক কোটি রুপি (ভারতীয় মুদ্রা) বা ৭১৪ কোটি ডলার নিট লোকসান ঘোষণা করেছে। উল্লেখ্য, ভারতে এপ্রিল নতুন অর্থবছর শুরু হয়। এক বছর আগেও ভোডাফোন আইডিয়ার নিট লোকসান ছিল হাজার ৯৭৪ কোটি রুপি। অর্থাৎ খুব অল্প সময়ের মধ্যে বড় ধরনের লোকসানের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে কোম্পানিটি।

পরিস্থিতিতে সম্প্রতি দিল্লিতে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ভোডাফোন আইডিয়ার চেয়ারম্যান কুমার মঙ্গলম বিড়লা বলেন, শুধু ভোডাফোন আইডিয়া নয়, বরং ভারতের কয়েকটি অপারেটর লোকসানের মুখে রয়েছে। দীর্ঘ সময় ধরে অবস্থা চলতে থাকলে ভারতের টেলিকম খাত মুখ থুবড়ে পড়বে। আমি মনে করি, পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে আরো কার্যকর অনুপ্রেরণাদায়ী উদ্যোগ নিতে হবে। তা না হলে সামগ্রিক খাতের পতন ঠেকিয়ে রাখা যাবে না।

তিনি আরো বলেন, আগামী ২০২০-২১ অর্থবছরে সরকারের পক্ষ থেকে টেলিকম অপারেটরদের জন্য প্যাকেজ তহবিল রাখতে হবে। প্যাকেজ ভারতীয় টেলিকম খাতের পাশাপাশি অপারেটরদের বাঁচিয়ে রাখবে। একতরফা প্রতিযোগিতা থেকে পুরো খাতকে মুক্ত রাখবে। তাহলে ভারতের টেলিকম খাত থেকে ব্যবসা গুটিয়ে নিতে বাধ্য হবে লোকসানের মুখে থাকা ভোডাফোন আইডিয়া। এটা শুনতে খারাপ শোনালেও পরিস্থিতি সেদিকেই যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, কোম্পানিটির ৪৫ দশমিক শতাংশ শেয়ার রয়েছে ভোডাফোন গ্রুপের হাতে। আদিত্য বিড়লা গ্রুপের হাতে রয়েছে ভোডাফোন আইডিয়ার ২৬ শতাংশ শেয়ার। কোম্পানির দশমিক ১৭ শতাংশ শেয়ারের মালিক আজিয়াটা গ্রুপ। আর ২০ দশমিক ৭৩ শতাংশ শেয়ার রয়েছে প্রাইভেট ইকুইটির নিয়ন্ত্রণে। ভারতের টেলিকম বাজারে রিলায়েন্স জিওর তৈরি অসম মূল্যযুদ্ধ ভোডাফোন আইডিয়ার লোকসানের বড় একটি কারণ। ক্রমাগত লোকসান থেকে বেরিয়ে আসতে কোম্পানিটি সম্প্রতি কলরেট ইন্টারনেট ডাটা ট্যারিফ সর্বোচ্চ ৪২ শতাংশ বাড়িয়ে চাপ সামলানোর উদ্যোগ নিয়েছে।

এদিকে ২০০৫ সাল থেকে অ্যাডজাস্টেড গ্রস রেভিনিউ (এজিআর) ইস্যুতে ভারত সরকারের টেলিকম বিভাগের (ডিওটি) সঙ্গে অপারেটরদের আইনি লড়াই চলছিল। সম্প্রতি দেশটির সর্বোচ্চ আদালত ডিওটির পক্ষে রায় দিয়েছে। একই সঙ্গে বকেয়া পরিশোধে অপারেটরদের ছয় মাসের সময় বেঁধে দিয়েছেন আদালত। রায়ের ফলে ভোডাফোন আইডিয়াকে সব মিলিয়ে ৫৩ হাজার ৩৯ কোটি রুপি বকেয়া পরিশোধ করতে হবে। এর মধ্যে ২৮ হাজার ৩০৯ কোটি রুপি বকেয়া এবং সুদ, জরিমানা জরিমানার ওপর সুদ বাবদ ২১ হাজার ৪৩৫ কোটি রুপি পরিশোধের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এটা ভোডাফোন আইডিয়ার ওপর বাড়তি চাপ তৈরি করেছে। কারণে কোম্পানিটি এজিআর ইস্যুতে সর্বোচ্চ আদালতে একটি সীমিত পর্যালোচনার আবেদন জানিয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন