রবিবার | সেপ্টেম্বর ২০, ২০২০ | ৫ আশ্বিন ১৪২৭

শেষ পাতা

উত্তরা-মতিঝিল মেট্রোরেল যাবে কমলাপুর পর্যন্ত

সমন্বয় চায় রেলওয়ে

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকায় উত্তরার দিয়াবাড়ি থেকে মতিঝিল পর্যন্ত নির্মাণ করা হচ্ছে দেশের প্রথম মেট্রোরেল (এমআরটি লাইন-) দুই ভাগে চলছে নির্মাণকাজ। উত্তরা-আগারগাঁও অংশের কাজ এগিয়েছে ৬৫ শতাংশ। আগারগাঁও-মতিঝিল অংশের অগ্রগতি প্রায় ৩৫ শতাংশ। নির্মাণকাজের পর্যায়ে এসে মেট্রোরেলের লাইনটি কমলাপুর পর্যন্ত সম্প্রসারণের উদ্যোগ নিয়েছে প্রকল্প বাস্তবায়নকারী সংস্থা ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল) এতে রেলস্টেশনের যাত্রীরা মেট্রোরেল ব্যবহারেরও সুযোগ পাবে, এমন যুক্তিই দিচ্ছেন ডিএমটিসিএলের কর্মকর্তারা।

তবে লাইনটি কমলাপুর পর্যন্ত বাড়ানো হলে রেলওয়ের সঙ্গে সমন্বয় করে সেটি বাস্তবায়নের কথা বলছেন রেলওয়ের কর্মকর্তারা। সমন্বয় না হলে বর্ধিত অংশটি কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের যাত্রীসেবায় বিঘ্ন ঘটানোর পাশাপাশি স্টেশনের আধুনিকায়নের পথে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে বলে মনে করছেন তারা।

২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে উত্তরা-মতিঝিল মেট্রোরেল চালুর পরিকল্পনা করছে সরকার। সে অনুযায়ী এগিয়ে নেয়া হচ্ছে নির্মাণকাজ। বর্ধিত অংশটুকু যেন পরিকল্পনায় বিঘ্ন না ঘটায়, সেজন্য প্রয়োজনীয় কাজগুলো শুরু করে দিয়েছে ডিএমটিসিএল। উত্তরা-মতিঝিল মেট্রোরেলের দৈর্ঘ্য ২০ দশমিক কিলোমিটার। মতিঝিল-কমলাপুরের বর্ধিত অংশটির দৈর্ঘ্য হবে আরো দশমিক ১৬ কিলোমিটার।

নির্মাণের মাঝপথে মেট্রোরেলটি বর্ধিত করার সিদ্ধান্তকে কর্তৃপক্ষের অদূরদর্শী পরিকল্পনার ফসল হিসেবে অভিহিত করেছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক . সামছুল হক। তিনি বণিক বার্তাকে বলেন, প্রকল্পের কাজ অর্ধেকের বেশি শেষ হতে চলল। এখন লাইনটা বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়া হলো। এটা অনেকটা জোড়াতালি দেয়ার মতো। আমাদের এখানে উন্নয়ন হচ্ছে, কিন্তু সেটা সমন্বিতভাবে হচ্ছে না। সমন্বয়হীনতার উন্নয়ন ঢাকার পরিবহন ব্যবস্থাপনাটিকে দিন দিন জটিল করে তুলছে বলে মনে করেন তিনি।

এদিকে লাইনটির পরিসর কমলাপুর পর্যন্ত বাড়ানো সম্পর্কে ডিএমটিসিএলের কর্মকর্তারা বলছেন, প্রথমে মেট্রোরেলের রুট ছিল উত্তরার দিয়াবাড়ি থেকে মতিঝিল পর্যন্ত। রুটটির সঙ্গে কমলাপুরের কোনো সংযোগ ছিল না। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে বিপুলসংখ্যক যাত্রী কমলাপুরে নামে। সেখান থেকে ঢাকার বিভিন্ন জায়গায় বাস বা সিএনজি অটোরিকশাই প্রধান ভরসা যাত্রীদের, যা অনেক সময়ই প্রয়োজনের তুলনায় কম থাকে। ফলে কমলাপুরে

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন