শনিবার | আগস্ট ০৮, ২০২০ | ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭

খবর

সিরামিক এক্সপো উদ্বোধন অনুুষ্ঠিত

ব্যাংকঋণের সুদহার কমানোয় অর্থমন্ত্রীর ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক

ব্যাংকঋণের সুদহার কমানোয় অর্থমন্ত্রীর ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন ব্যবসায়ীদের প্রতিনিধিত্বকারী শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম। রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় বাংলাদেশ সিরামিক ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত তিন দিনব্যাপী সিরামিক এক্সপো-২০১৯-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেয়া বক্তব্যে তিনি প্রশ্ন তোলেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

বাংলাদেশ সিরামিক ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো. সিরাজুল ইসলাম মোল্লার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন এফবিসিসিআই প্রেসিডেন্ট শেখ ফজলে ফাহিম অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব ইরফান উদ্দিন।

অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি এমপি বলেন, সিরামিক পণ্য রফতানিতে সহায়তা দেবে সরকার। বাংলাদেশের সিরামিক পণ্য বিশ্ববাজারে এরই মধ্যে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছে। উন্নত বিশ্বে বাংলাদেশে তৈরি সিরামিকের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। সিরামিকের গুণগত মান নির্মাণশৈলীও ব্যবহারকারীদের আকর্ষণ করছে। বাংলাদেশ সরকার তৈরি পোশাকের পাশাপাশি যেসব পণ্য রফতানিতে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে, তার মধ্যে অন্যতম সিরামিক পণ্য। সিরামিক পণ্য তৈরির জন্য কাঁচামাল ছাড়া অত্যাধুনিক পরিবেশবান্ধব ফ্যাক্টরি, গ্যাস-বিদ্যুৎ সহজলভ্য দক্ষ শ্রমিক আমাদের আছে। বিশ্বের যেকোনো দেশের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে বাজারে টিকে থাকার সক্ষমতা বাংলাদেশের আছে। সিরামিক শিল্পকে আরো লাভজনক রফতানিমুখী করতে সরকার সব ধরনের সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে। যেসব ক্ষেত্রে সমস্যা রয়েছে, তা চিহ্নিত করে সমাধান করা হবে।

অর্থমন্ত্রী মুস্তফা কামাল অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নেয়ার পর ব্যাংকঋণের সুদহার এক অংকে নামিয়ে আনার ঘোষণা দেয়ার ১১ মাসেও তা কার্যকর হয়নি। অনুষ্ঠানে দেয়া বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে এফবিসিসিআই সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম বলেন, ১১ মাস পর তিনি (অর্থমন্ত্রী) বললেন, বেশি সুদহার নিয়ে ব্যবসায়ীদের ব্যবসা করা কঠিন। তাহলে এতদিন কি তিনি ঘুমিয়ে ছিলেন?

তিনি বলেন, ঋণের সুদহার এক অংকে আসার কথা। অর্থমন্ত্রী জানুয়ারিতে দায়িত্ব নেয়ার ১১ মাস পর নভেম্বরে বলেছেন, সুদহার এত বেশি যে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের ব্যবসা করা খুব কঠিন। তাহলে ১১ মাস তিনি কী করলেন? তিনি কি শীতনিদ্রায় ছিলেন? আমাদের প্রশ্ন, ১১ মাস তিনি ব্যাংকিং কাঠামোয় কী করলেন? ব্যাংকিং খাত নিয়ে যখন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বিষয়গুলো ভালোভাবে উঠে আসছে, তখন তিনি হয়তো আবারো হাইবারনেশনে যাবেন। এগুলো দুঃখজনক।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন