শনিবার | আগস্ট ০৮, ২০২০ | ২৩ শ্রাবণ ১৪২৭

টকিজ

প্রাঙ্গণেমোর আয়োজিত দুই বাংলার নাট্যমেলা

আবার জমবে মেলা...

ফিচার প্রতিবেদক

টানা ১৬ বছর ধরে নাট্যোৎসব আয়োজন করে আসছে নাট্যদল প্রাঙ্গণেমোর। দীর্ঘ সময়ের যাত্রায় ১০টি নাট্যোৎসব আয়োজনের অভিজ্ঞতা রয়েছে তাদের ঝুলিতে। সে অভিজ্ঞতাকে সঙ্গী করে বছর তারা ১১তম উৎসব আয়োজনের পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। আগামীকাল পর্দা উঠতে যাচ্ছে নয় দিনব্যাপী জাঁকজমকপূর্ণ সে নাট্যোৎসবের। এবারের নাট্যমেলায় ভারতের পশ্চিমবঙ্গ দিল্লি থেকে চারটি এবং বাংলাদেশের পাঁচটি উল্লেখযোগ্য নাটক প্রদর্শিত হবে।

এখানেই শেষ নয়। নাটক মঞ্চস্থ মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠানের পাশাপাশি বছর ব্যতিক্রমী এক পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে প্রাঙ্গণেমোর। বাংলাদেশের নাট্যজগতকে নিজেদের মেধা শ্রম দিয়ে যেসব অভিনেতা ঋদ্ধ করেছেন, তাদের সহধর্মিণীদের সম্মাননা জানাবে দলটি। এবার প্রথমবারের মতো প্রদত্তপ্রাঙ্গণেমোর নাট্যযোদ্ধা সহযোদ্ধা ২০১৯পাচ্ছেন অভিনেতা মামুনুর রশীদের সহধর্মিণী গওহর আরা চৌধুরী, অভিনেতা আতাউর রহমানের সহধর্মিণী শাহিদা রহমান লিয়াকত আলী লাকীর সহধর্মিণী কৃষ্টি হেফাজ।


আমি বাংলায় ভালোবাসি, আমি বাংলাকে ভালোবাসিশিরোনামে প্রাঙ্গণেমোরের ১১তম আয়োজন নিয়ে গতকাল টকিজের কাছে বিস্তারিত তুলে ধরেন এর অন্যতম সংগঠক অভিনেতা অনন্ত হীরা। শুরুতেই তার কাছে প্রশ্ন রাখা হয় প্রাঙ্গণেমোর আয়োজিত নাট্যোৎসব নিয়ে। নিয়ে অনন্ত হীরা বলেন, ‘উৎসবটি করতে গিয়ে পদে পদে কঠিন সংকটের মুখোমুখি হতে হয় আমাদের। এর মধ্যে রয়েছে হল বরাদ্দ পাওয়া, বিদেশী শিল্পীদের আনার ক্ষেত্রে হয়রানিমূলক বিধিনিষেধ অর্থনৈতিকসহ নানা সংকট। এত বড় আয়োজনে সরকারি যে সহায়তা পাই, তা আসলে মূল খরচের ১০ শতাংশও নয়। এত কিছুর পরও আমরা জার্নিটাকে উপভোগ করি। আর আনন্দ যদি না- পেতাম, তাহলে তো আর ১০টি নাট্যোৎসব শেষ করে ১১টির কথা ভাবতে পারতাম না।

লক্ষণীয় ব্যাপার হলো, বছরের ১১তম আয়োজনকে নাট্যদলটিআরো ব্যাপক ব্যয়বহুল পরিসরবলছে। এর কারণ কী? “প্রথমত, জাঁকজমকপূর্ণ বড় আয়োজনের মাধ্যমে নাটক মঞ্চস্থর পাশাপাশি আলোচনা প্রাঙ্গণেমোর নাট্যযোদ্ধা সহযোদ্ধা সম্মাননা ২০১৯প্রদান করছি আমরা। আবার এবারের আয়োজনে দেশের বাইরে থেকে ৮৫ জনের মতো নাট্যকর্মী অংশগ্রহণ করছে। তাদের ভ্রমণ, থাকা-খাওয়াসহ আনুষঙ্গিক খরচের একটা ব্যাপার আছে। তাছাড়া দুই বছর আগের চেয়ে এখন সবকিছুর দামই চড়া, সব মিলিয়ে খরচটা অনেক বেশি হচ্ছে”—বলেন সংগঠক।

দুই বাংলার নাট্যোৎসব মানেই বিনিময় প্রথার একটি চল দেখা যায়। যেমন ঢাকার কোনো দল পশ্চিমবঙ্গের কোনো একটি দলকে আমন্ত্রণ জানাল, বিনিময়ে পশ্চিমবঙ্গের সে

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন